পুলিশের সহায়তায়ই মিলন হত্যা: পূর্ণাঙ্গ তদন্ত প্রতিবেদন

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ডাকাত সন্দেহে সামছুদ্দিন মিলন নামে এক কিশোরকে পুলিশের সহায়তায় পিটিয়ে হত্যার সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি। মঙ্গলবার সকালে নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুবুর রশীদের নেতৃত্বে ৩ সদস্য...



নোয়াখালী: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ডাকাত সন্দেহে সামছুদ্দিন মিলন নামে এক কিশোরকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় পুলিশের সহায়তার অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি।

মঙ্গলবার সকালে নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুবুর রশীদের নেতৃত্বে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি এ বিষয়ে পুলিশ সুপারের কাছে পুরো প্রতিবেদন জমা দেন। এর আগে সোমবার রাতে পুলিশ সুপারকে রিপোর্টের খসড়া অবহিত করা হয়েছিল।

তদন্ত প্রতিবেদনে মিলনের হত্যাকাণ্ডের সময় কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মো. রফিক উল্লাহ, উপ-পরিদর্শক আকরাম উদ্দিন শেখ, কনস্টেবল আবদুর রহিম ও হেমা রঞ্জন চাকমার বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগের সত্যতা পেয়ে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়েছে।

এদিকে, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি বিশ্বাস আফজাল হোসেন বলেছেন, ‘তদন্ত রিপোর্টের আলোকে দোষীদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা দায়েরসহ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

তিনি মঙ্গলবার কোম্পানীগঞ্জ সফরে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন। অতিরিক্ত ডিআইজি এ সময় বলেন, ‘পরিস্থিতির কারণে আবেগতাড়িত হয়ে মানুষ অনেক সময় আইন হাতে তুলে নেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘মিলনের মায়ের দায়ের করা মামলাটি তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

পুলিশ সুপার হারুনুর উর রশীদ হাজারী সাংবাদিকদের বলেন, ‘তদন্ত রিপোর্ট পেয়েছি। এর আলোকে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মিলনের মায়ের থানায় দায়ের মামলার রেকর্ড
মিলনের মা কহিনুর বেগম বাদী হয়ে তার ছেলেকে হত্যা, হত্যাকাণ্ডে সহযোগিতা এবং হত্যা পরবর্তী ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার অভিযোগে গত ৩ আগস্ট নোয়াখালীর ২নং আমলী আদালতে দায়ের করা পিটিশন মামলাটি সোমবার রাতে কোম্পানীগঞ্জ থানায় এফআইআর হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসির দায়িত্বে থাকা ইন্সপেক্টর (তদন্ত) হুমায়ুন কবির জানান, বাহকের মাধ্যমে আদালত থেকে সন্ধ্যার পর তিনি মামলার কপি হাতে পান। সেই মোতাবেক রাত ৯টা ৫ মিনিটে মামলাটি এফআইআর হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে।

এরপর ওই রাত থেকে মামলায় উল্লিখিত দুই আসামি ইউপি সদস্য জামাল উদ্দিন ও নারী সদস্যের স্বামী নিজাম উদ্দিন মানিককে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ অভিযানে নামে। তারা পলাতক বলে জানান ওসি।

বাংলাদেশ সময়: ২১১৩ ঘণ্টা, আগস্ট ০৯, ২০১১

‘কর্ণফুলী বাঁচলে দেশ বাঁচবে’ গ্রন্থের প্রকাশনা উৎসব
‘ধূমপানের কথা বলে বাঁশঝাড়ে নিয়ে পাঠাওচালকে হত্যা করা হয়’
মঙ্গলবার শুরু সিইউডিএসর ১৬তম বিতর্ক কর্মশালা
মেলায় ‘রাজার কঙ্কাল’ নিয়ে সাখাওয়াত টিপু 
পথশিশুদের পাশে মেহজাবীনের হাসি ফাউন্ডেশন


উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণায় বাংলাদেশ সম্ভাবনাময়
রাজশাহীতে চার দিনব্যাপী পিঠা উৎসব শুরু
বঙ্গবন্ধু বিষয়ক দুই বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
ওপার বাংলার ‘ওরা ৭ জন’ এখন পাবনায়
দ. আফ্রিকার টি-টোয়েন্টি দলে ফিরলেন ডু প্লেসিস-রাবাদা