জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে বঙ্গবন্ধুর সহচর শেখ আব্দুল আজিজ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর ও সাবেক মন্ত্রী শেখ আব্দুল আজিজ এখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।



বাগেরহাট: বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর ও সাবেক মন্ত্রী শেখ আব্দুল আজিজ এখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।

সোমবার রাত থেকে রাজধানী ঢাকার গুলশানে জেড এইচ শিকদার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাকে লাইফ সাপোর্ট দিয়ে রাখা হয়েছে। অসুস্থতার খবর শুনে তার রাজনৈতিক উত্তরসূরী ও গুণগ্রাহীরা তাকে হাসপাতালে দেখতে যান। তিনি দীর্ঘদিন ধরে হৃদরোগসহ বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছেন।

বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদের ভাগ্নে সাবেক জেলা ও দায়রা জজ বেলায়েত হোসেন বাংলানিউজকে জানান, ৯২ বছর বয়স্ক মামা শেখ আব্দুল আজিজ ১ আগস্ট গুলশানের বাসায় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাৎক্ষণিকভাবে জেড এইচ শিকদার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে পরেরদিন ২ আগস্ট তাকে অ্যাপোলে হাসপাতালে আনা হয়। সেখানে লেভেল-৩ এ নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে লাইফ সাপোর্ট দিয়ে রাখা হয়েছে।

প্রবীণ এ রাজনীতিবিদের ছোট মেয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ডা. নাভিন শেখ মেঘলা বাংলানিউজকে জানান, তার বাবার শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলে ৭ আগস্ট অ্যাপোলো হাসপাতাল থেকে আবার শিকদার মেডিকেলে নেওয়া হয়। সোমবার রাত সাড়ে ১১টার পর অবস্থার অবনতি হলে তাকে সম্পূর্ণ লাইফ সাপোর্ট দিয়ে রাখা হয়েছে।  

মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বারবার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি শেখ আব্দুল আজিজ আওয়ামী লীগের  প্রতিষ্ঠালগ্নের একজন সদস্য। বৃহত্তর খুলনা অঞ্চলের আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতাও তিনি। ১৯৫৪ সালে তৎকালীন যুক্তফ্রন্টের মনোনয়নে প্রথম প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৭০ ও ১৯৭৩ সালে বাগেরহাট-৪ (মোড়েলগঞ্জ-শরণখোলা) আসন থেকে তিনি জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।     

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর জাতীয় ৪ নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, ক্যাপ্টেন মুনসুর আলী ও এএইচএম কামরুজ্জামানের সঙ্গে শেখ আব্দুল আজিজকেও গ্রেপ্তার করে তৎকালীন সামরিক শাসক। প্রায় ৩ বছর কারাভোগের পর ১৯৭৮ সালের জুন মাসে তিনি মুক্তি পান।

স্বাধীনতা পরবর্তী তাজ উদ্দিনের মন্ত্রী সভায় যোগাযোগ মন্ত্রী, বঙ্গবন্ধু সরকারের মন্ত্রিসভায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ, কৃষি, তথ্য ও বেতারসহ গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরের মন্ত্রী ছিলেন।

বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জ উপজেলার তেলিগাতী গ্রামে জন্মগ্রহণকারী এই বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাকাল থেকে স্বাধীনতা উত্তর পর্যন্ত বৃহত্তর খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন ছাড়াও বাগেরহাট পৌরসভার প্রথম চেয়ারম্যান ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯২৫ ঘণ্টা, আগস্ট ০৯, ২০১১

বঙ্গবন্ধু বিষয়ক দুই বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
ওপার বাংলার ‘ওরা ৭ জন’ এখন পাবনায়
দ. আফ্রিকার টি-টোয়েন্টি দলে ফিরলেন ডু প্লেসিস-রাবাদা 
জমে উঠেছে বইমেলা, চলছে আড্ডাও
মেয়েকে হত্যার অভিযোগে মা গ্রেফতার


প্রকাশিত হয়েছে সুমন রহমানের ‘নির্বাচিত কবিতা’
তিনটি উপ-নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন পেলেন যারা
শাহরুখের সিনেমায় ৮ কোটি রুপি পারিশ্রমিক চান কারিনা!
দেশে ফিরেছেন ভারতে কারাভোগ করা ৮ বাংলাদেশি 
বিমানবন্দরে বডি স্ক্যানার ‘প্রোভিশন ২’