php glass

যৌন হয়রানির দায়ে জাপানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার হচ্ছে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এ কে এম মুজিবুর রহমান ভূঁইয়াকে প্রত্যাহার করে দেশে আনা হচ্ছে। জাপানের টোকিওতে দূতাবাসে চাকরি করা একজন স্থানীয় নারীকে যৌন হয়রানির দায়ে তাকে দেশে ফিরিয়ে নেওয়া বা অন্য কোথাও বদলীর সুপারিশ করে তদন্ত কমিটি।

ঢাকা: জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এ কে এম মুজিবুর রহমান ভূঁইয়াকে প্রত্যাহার করে দেশে আনা হচ্ছে। জাপানের টোকিওতে দূতাবাসে চাকরি করা একজন স্থানীয় নারীকে যৌন হয়রানির দায়ে তাকে দেশে ফিরিয়ে নেওয়া বা অন্য কোথাও বদলীর সুপারিশ করে তদন্ত কমিটি।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র এসব তথ্য জানায়।

টোকিও দূতাবাসের সাবেক সোস্যাল সেক্রেটারি কিয়োকো তাকাহাসির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটি রাষ্ট্রদূত মুজিবুরের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পায় বলে সূত্র জানায়।

তদন্ত কমিটির প্রধান ছিলেন দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শহীদুল ইসলাম। তিনি রাষ্ট্রদূত মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ তদন্ত করেন।

৮ মে থেকে পরবর্তী কয়েকদিন শহীদুল ইসলাম টোকিও গিয়ে অভিযোগের তদন্ত করেন। তদন্ত প্রতিবেদন তিনি ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করেন।

জাপানে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মুজিবুর রহমান রোববার টেলিফোনে বাংলানিউজকে বলেন, ‘সিউলের রাষ্ট্রদূত এসেছিলেন। তিনি ঢাকায় কী জানিয়েছেন, তা জানি না। আমাকে কেউ এখনো কিছু জানায়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। কারা করছে জানি না।’
 
জাপানি তরুণী তাকাহাসি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো কয়েক পৃষ্ঠার অভিযোগপত্রে রাষ্ট্রদূত মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে কয়েকদফা বিভিন্নভাবে যৌন হয়রানির অভিযোগ তোলেন।

অভিযোগপত্রে জাপানি ওই তরুণী বলেন, ‘চলতি বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি দূতাবাসের চাকরিতে যোগদানের পর থেকেই রাষ্ট্রদূত তার সঙ্গে অযাচিত আচরণ করেন। এমনকি চাকরির ইন্টারভিউয়ের দিনও তাকে আপত্তিকর প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করেন।’  

বাংলানিউজের হাতে আসা তাকাহাসির অভিযোগপত্র থেকে আরও জানা যায়, তিনি এই অভিযোগপত্র জাপানে কর্মরত অন্য দেশের রাষ্ট্রদূতদের কাছেও তা পাঠিয়েছেন।

২০১০ সালের ১৩ আগস্ট জাপানে রাষ্ট্রদূত হিসেবে যোগ দেন মজিবুর রহমান ভুঁইয়া।

দূতাবাসের সোস্যাল সেক্রেটারি পদটি শূণ্য থাকায় তা নিয়োগের বিজ্ঞাপন দেন রাষ্ট্রদূত। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়।

১০ ফেব্রুয়ারি এ কে এম মজিবুর রহমান চাকরি প্রার্থীদের ইন্টারভিউ নেন।

তাকাহাসি অভিযোগ করেন, ইন্টারভিউয়েই রাষ্ট্রদূত তাকে আপত্তিকর প্রশ্ন করে জিজ্ঞাসা করেন, তিনি তাকাহাসিকে চুমু খেতে পারবেন কী না।

এরপর ১৪ ফেব্রুয়ারি আবারও তাকাহাসিকে ইন্টারভিউয়ে ডাকা হয়। সেদিন রাষ্ট্রদূত তাকে ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে প্রশ্ন করেন, যার ধরণ খুবই আপত্তিকর ছিল বলে তাকাহাসি উল্লেখ করেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো অভিযোগপত্রে তাকাহাসি বলেন, ‘শারীরিক সম্পর্কের দিকেই ইঙ্গিত ছিল রাষ্ট্রদূতের।’

তাকাহাসির বলেন, ‘দূতাবাসে প্রথম যোগ করার দিন ২৫ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রদূত তার কক্ষে ডেকে নেন এবং কক্ষে প্রবেশের পর আমাকে জড়িয়ে ধরে আপত্তিকর অবস্থায় যেতে চান।’

তিনি বলেন, ‘২৬ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রদূত অফিসের কাজ ফেলে আমাকে নিয়ে টোকিও শহরতলীর একটি নদীর তীরে বেড়াতে যান। সেখানে তিনি আবারও আমার সঙ্গে আপত্তিকর কাজের প্রস্তাব দেন। যা আমার পক্ষে মেনে নেওয়া সম্ভব হয়নি। তিনি জোরজবরদস্তি করলে স্থানীয় একজন বাঙালি দূর থেকে আমাদের ছবি তোলেন। যা রাষ্ট্রদূততে ভীত করে তোলে।’   

তাকাহাসি অভিযোগ করেন এরপর প্রায়ই রাষ্ট্রদূত আমার সঙ্গে অনৈতিক কাজের প্রস্তাব দিতে থাকেন।

তাকাহাসির কাছে প্রত্যাশা অনুযায়ী সাড়া না পেয়ে রাষ্ট্রদূত মার্চ মাসের শেষ দিকে তাকাহাসিকে বরখাস্ত করেন।

স্থানীয় বাংলাদেশি কমিউনিটিতেও বিষয়টি মুখরোচক আলোচনার জন্ম দেয়।

এরপরই তাকাহাসি দূতাবাসের স্থানীয় কর্মকর্তাদের পরামর্শে ঢাকায় অভিযোগপত্র পাঠান।

তাকাহাসি অভিযোগপত্রে আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ সরকার যদি আমার অভিযোগের সুরাহা না করে, তবে জাপানের আদালতে মামলা করবো।’

তাকাহাসির অভিযোগ পাওয়ার পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়টি নিয়ে শাঁখেরকরাতে পড়ে যায়। বিশেষত, একদিকে বিদেশে দেশের সম্মান, অপরদিকে দেশেও নেতিবাচক আলোচনা।

তবে শেষ পর্যন্ত বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে যায়। এরপর সিউলের রাষ্ট্রদূত শহীদুল ইসলামকে টোকিও গিয়ে তদন্তের আদেশ দেওয়া হয়।

মুজিবুর রহমান ১৯৮৬ বিসিএসের মাধ্যমে ১৯৮৯ সালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগদান করেন।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন মুজিবুর রহমান।

চাকরি জীবনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন অণুবিভাগে চাকরি ছাড়াও তিনি টোকিও, তেহরান, নয়াদিল্লির বাংলাদেশ মিশনে বিভিন্ন পদে চাকরি করেন।

টোকিওতে রাষ্ট্রদূত হওয়ার আগে তিনি ভুটানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, ‘মানসিক অসুস্থ’ স্ত্রীকে ঢাকায় রেখে মুজিবুর রহমান গত আগস্ট থেকেই টোকিও রয়েছেন।   

বাংলাদেশ সময়: ০১০৬ ঘণ্টা, জুন ০৬, ২০১১

শাহজাদপুরে সরকারি ও ভারতীয় ওষুধ উদ্ধার, আটক ১
মিলিকের হ্যাটট্রিকে শেষ ষোলোয় নাপোলি
চিত্রকর্মে বর্ণিল থানা প্রাঙ্গণ
গ্রুপ সেরা হয়ে শেষ ষোলোয় লিভারপুল
যুক্তরাষ্ট্রের কালো তালিকায় মিয়ানমার সেনাপ্রধানসহ চারজন


সিলেটে অস্ত্রসহ শহীদ ডাকাত গ্রেফতার
হবিগঞ্জ আ’লীগের সম্মেলনে ৭০০০ কর্মীর জন্য বিরিয়ানি
ক্রেতাদের বাজেট অনুযায়ী পোশাক তৈরি করছে ‘সারা’
মায়ের ওপর অভিমান, রাজধানীতে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা
নোয়াখালীতে ট্রাক-অটোরিকশা সংঘর্ষে প্রাণ গেলো দু’জনের