php glass

গোদাগাড়ীর ৫০ বিঘা ধান নিয়ে বিএসএফ’র সঙ্গে জটিলতা কাটেনি

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

রাজশাহীর গোদাগাড়ী সীমান্তে ৫০ বিঘা জমির ধান কাটা নিয়ে জটিলতার নিরসন হয়নি। বিরাজমান পরিস্থিতিতে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ’র বাধার মুখে কৃষকরা নিজেদের ঘাম ঝড়া কষ্টে ফলানো ধান ঘরে তুলতে পারছেন না।

রাজশাহী: রাজশাহীর গোদাগাড়ী সীমান্তে ৫০ বিঘা জমির ধান কাটা নিয়ে জটিলতার নিরসন হয়নি। বিরাজমান পরিস্থিতিতে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ’র বাধার মুখে কৃষকরা নিজেদের ঘাম ঝড়া কষ্টে ফলানো ধান ঘরে তুলতে পারছেন না।

এ ব্যাপারে কৃষকরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
 
জেলার গোদাগাড়ীর খরচাকা গ্রামের কৃষক আনোয়ার হোসেন জানান, রাত জেগে জমিতে বীজ বুনে, সেচ দিয়ে, কীটনাষক প্রয়োগসহ সব ধরনের পরিচর্যা করেছেন। কিন্তু এখন তারা সেই ধান কেটে ঘরে তুলতে পারছেন না। ধান পেকে মাঠেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘যখন ধান চাষ শুরু করি, তখন বিএসএফ কিছু বলেনি।’

কিন্তু ধান পেকে যখন ঘরে তোলার সময় হয়েছে তখন বিএসএফ দাবি করছে তাদের ভূ-খ-ে ধান চাষ করা হয়েছে- তাই এ জমিতে উৎপন্ন ধান তাদের। এর আগে গত বোরো আবাদের সময় একই জমিতে বাংলাদেশি কৃষকরা ধান চাষ করেছেন। কিন্তু সেবারের ধান কাটার সময় বিএসএফ বাধা দেয়নি।

কিন্তু এবার বিএসএফ বাধা দেওয়ার কৃষকরা এখন রাত জেগে ধান পাহারা দিচ্ছেন।

খরচাকা সীমান্ত এলাকার কৃষক নেতা তরিকুল ইসলাম জানান, তারা বিষয়টির সুষ্ঠু সমাধানের জন্য বিভাগীয় কমিশনার ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বরাবর গত সপ্তাহে স্বারকলিপি প্রদান করেছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত কার্যকর কোনও সাড়া মেলেনি। তাই পরিস্থিতি যে অবস্থাতে ছিল, সেভাবেই আছে।

ফলে দিশেহারা কৃষকরা এখন দিনরাত ধানের দিকে চেয়ে সময় পার করছেন। অপরদিকে, বিএসএফর পাহাড়ায় ভারতীয়রা রাতের আধারে ধান কেটে নিয়ে যাচ্ছে।

স্থানীয় কৃষক নেতা তরিকুল ইসলাম জানান, তারা পৈত্রিক আমল থেকে ওই জমিতে ধান চাষ করছেন। কখনও শুনেননি এ জমি ভারতীয় ভূ-খ-ের অংশ। কিন্তু এখন হঠাৎ করে বিএসএফ কেন জমির দাবি করছে তারা বিষয়টি ভেবে কিনারা করতে পারছেন না।

বিষয়টি সমাধানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতার দ্রুত  হস্তক্ষেপ কামনা করছেন তারা।

খরচাকা সীমান্তের বিজিবি (বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ) কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার আলী হোসেন জানান, সীমান্তে ধান রোপন ও কর্তনের বিষয়টি নিয়ে সীমানাগত জটিলতা রয়েছে। পুরো ব্যাপারটি নির্ভর করেছে দুই দেশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ওপর। তারা কেবল স্থানীয় কৃষকদের নিরাপত্তার বিষয়টি দেখছেন যাতে করে ধান কাটা নিয়ে কোনও ক্ষয়-ক্ষতির ঘটনা না ঘটে।

বিজিবির সঙ্গে গোদাগাড়ী মডেল থানা পুলিশও কাজ করছে বলে তিনি জানান।

তবে যোগাযোগ করা হলে বিজিবি রাজশাহী-৩৭ ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার (সিও) লে. কর্নেল গাজী মোহাম্মদ খালিদ হোসেন বলেন ভিন্ন কথা। তিনি জানান, ‘ওই সীমান্তের কৃষকরা জেনে শুনেই ভারতীয় ভূ-খ-ে ধান চাষ করেছেন। তারা ভেবেছিলেন, ধান চাষ করে ঘরে তুলে আনতে পারবেন। কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি। কারণ বিএসএফ তা করতে দেয়নি।’
 
এক প্রশ্নের জবাবে লে. কর্নেল খালিদ বলেন- ‘যা সত্য, তা সত্যই বলতে হবে। আর যা মিথ্যা, তা মিথ্যা।’

তিনি জানান, প্রকৃতপক্ষে কৃষকরা ভারতীয় ভূ-খ-ের মধ্যেই ধান চাষ করেছেন। এখন তারা চাইছে বিজিবি বা সরকার তাদের সেই ধানগুলি নিয়ে আসার সুযোগ সৃষ্টি করে দিক। কিন্তু নিজস্ব সীমানার মধ্যে না হওয়ায় তা সম্ভব হয়নি।

তিনি বলেন, এরপরেও বিজিবি চেষ্টা করছে ধান কাটা নিয়ে দেশের কৃষকদের যেন জানমালের কোনও ক্ষতি না হয়। সেজন্য কৃষকদের নিজস্ব সীমানার মধ্যে সতর্ক অবস্থানে থাকতে বলা হয়েছে। তাদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য বিজিবি সদস্যরা সতর্ক রয়েছেন।

প্রসঙ্গত, গত ২৭ মে শুক্রবার কৃষকরা ওই সীমান্তের ৫০ বিঘা জমির ধান কাটতে গেলে বিএসএফ বাধা দেয়।

বিএসএফের দাবি, বাংলাদেশি কৃষকরা যে জমিতে ধান চাষ করেছে তা ভারতীয় সীমান্তের মধ্যে। এ নিয়ে সীমান্তে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে বিজিবি সদস্যরা ও গোদাগাড়ী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কৃষকদের নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে আনে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭১২ ঘণ্টা, ০৫ জুন, ২০১১

রাজশাহীর ‘টিপু রাজাকারে’র রায় বুধবার
গাজীপুরে পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি, ৪০ লাখ টাকার স্বর্ণ লুট
বাকলিয়ায় ওষুধের দোকানে আগুন
শীতে পুরুষের ত্বকেরও যত্ন প্রয়োজন
শেষবারের মতো নিজ বাসায় অজয় রায়


জেনে নিন বিপিএলের টিকিটের মূল্য
তদারকির অভাবে পশ্চিম রেলে বেহাল দশা, ঘটছে দুর্ঘটনা
টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদকবিক্রেতা নিহত
আমরণ অনশনে পাটকল শ্রমিকেরা
বাবা হলেন জনপ্রিয় কৌতুকাভিনেতা-উপস্থাপক কপিল শর্মা