php glass

সংসদীয় কমিটিকে মঈন উ আহমেদের চিঠি

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অবঃ) মঈন উ আহমেদ সংসদীয় কমিটিকে চিঠি পাঠিয়েছেন। কমিটির বৈঠক চলাকালে চিঠিটি এসে পৌছেছে। চিঠিতে তিনি সংসদীয় কমিটিকে জানিয়েছেন, দশ দিন আগে তার একটি অস্ত্রোপচার হওয়ার কারণে তিনি সংসদীয় কমিটিতে আসতে পারছেন না।

ঢাকা: সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অবঃ) মঈন উ আহমেদ সংসদীয় কমিটিকে চিঠি পাঠিয়েছেন। কমিটির বৈঠক চলাকালে চিঠিটি এসে পৌছেছে। চিঠিতে তিনি সংসদীয় কমিটিকে জানিয়েছেন, দশ দিন আগে তার একটি অস্ত্রোপচার হওয়ার কারণে তিনি সংসদীয় কমিটিতে আসতে পারছেন না।

তত্ত্বাবধায়ক আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সংঘটিত সেনা-ছাত্র সংঘর্ষের ঘটনায় মঈন উ আহমেদের সাক্ষ্য নেওয়ার জন্য দুই দফায় চিঠি পাঠিয়েছে সংসদীয় কমিটি। এরপরও যদি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক প্রধান ফখরুদ্দীণ আহমেদ ও সেনাপ্রধান মঈন উ আহমেদ কমিটির আহবানে সাড়া না দেন তাহলে কমিটি ঢাবিতে ছাত্র-শিক্ষক নির্যাতনের ঘটনায় তাদের দায়ী করে প্রতিবেদন দাখিল করবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কীত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ৫ নং উপ-কমিটির ৭ম বৈঠক শেষে এ কথা জানিয়েছেন কমিটির সভাপতি ও উপ-কমিটির আহ্বায়ক রাশেদ খান মেনন।

২০০৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে ছাত্র ও শিক্ষকদের সঙ্গে সেনা সদস্যদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। ওই ঘটনা তদন্তে সাক্ষ্য নেওয়ার জন্য গত ২৭ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন আহমদ ও সেনাপ্রধান মঈন উদ্দিন আহমেদকে তলবের সিদ্ধান্ত নেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ৫ নম্বর উপ-কমিটি।

রাশেদ খান মেনন বলেন, “দুজনের চিঠিই আমাদের কাছে আছে।” তিনি বলেন, তাদের চিঠি দেখে একটি বিষয় স্পষ্ট, তারা দুজনের কেউই ছাত্র নির্যাতনের দায় নিজের ওপর নিতে চাচ্ছেন না।

তিনি বলেন, তৎকালীন ডিজিএফআইর প্রধান মেজর জেনারেল গোলাম মোহাম্মদ ও রাজশাহী র‌্যাবের কর্মকর্তা বলেছেন, তারা সবকিছু উপরের নির্দেশে করেছেন।

মেনন বলেন, ‘তাদের চিঠিতে তারা এ কথা বোঝাতে চাচ্ছেন যে, ছাত্র নির্যাতনের বিষয়ে তারা কোনো নির্দেশ দেননি। তাদের এ কথার ভেতর স্ববিরোধিতা আছে।’

মেনন আরও জানান, ‘জেনারেল মঈন সংসদীয় কমিটির সঙ্গে ই-মেইল মারফত যোগাযোগের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।’

মেনন বলেন, ‘আগামীতে যদি এই দুজন কমিটির সঙ্গে যোগাযোগ না করেন তা হলে আমরা ধরে নেব ছাত্র নির্যাতনের ঘটনায় সর্বোচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তি হিসেবে তারা জড়িত। এছাড়া, শিক্ষকদের গ্রেপ্তারের বিষয়টিও তাদের পূর্ব পরিকল্পিত ছিল বলে মনে করা হবে।’

মেনন বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে তাদের সঙ্গে টেলিকনফারেন্স করা যায় কি না সে বিষয়ে কমিটি চিন্তা ভাবনা করছে।’

রোববারের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক সাইদুর রহমান খান, বর্তমান উপাচার্য আব্দুস সোবহান, অধ্যাপক মলয় কুমার ভৌমিক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, তৎকালীন ডিজিএফআইর কর্নেল শামসুল আলম প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ১৯ আগস্ট রাশেদ খান মেননকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের এই সংসদীয় উপ-কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি এরই মধ্যে ওই সংঘর্ষের পরে নির্যাতিত শিক্ষার্থী ও ছাত্র নেতাদের বক্তব্য নিয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ০৩১১, জুন ৫, ২০১১

মায়ের ওপর অভিমান, রাজধানীতে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা
নোয়াখালীতে ট্রাক-অটোরিকশা সংঘর্ষে প্রাণ গেলো দু’জনের
প্রণব মুখার্জি-খান আতার জন্ম
খালেদার মুক্তির জন্য স্বেচ্ছায় কারাভোগে রাজি ফেনী বিএনপি
‘মাথাপিছু আয় ৬০০০ ডলারের আগেই সবার কাছে গাড়ি থাকবে’


দলের জন্য সবটুকু অভিজ্ঞতা ঢেলে দেবেন গিবস
কর দিতে হয়রানি হলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা: অর্থমন্ত্রী
মিয়ানমারে গণহত্যার বিচার শুরু, সন্তুষ্ট রোহিঙ্গারা
বিশ্বসভ্যতার ইতিহাসই মানবাধিকার অর্জনের ইতিহাস
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নানা আয়োজন সিএমপির