php glass

বঙ্গোপসাগরে ২০ ট্রলারে ডাকাতি: মুক্তিপণের দাবিতে অপহৃত ২০ জেলে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

কুয়াকাটা সংলগ্ন দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে শনিবার রাতে অন্তত ২০টি মাছ ধরার ট্রলারে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।

কলাপাড়া (পটুয়াখালী): কুয়াকাটা সংলগ্ন দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে শনিবার রাতে অন্তত ২০টি মাছ ধরার ট্রলারে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।

সশস্ত্র ডাকাতদল অস্ত্রের মুখে জেলেদের জিম্মি করে জাল, মাছ, জ্বালানি, নগদ টাকাসহ অর্ধকোটি টাকার মালামাল লুট  শেষে মুক্তিপণের দাবিতে ৩টি ট্রলার ও ২০ জন জেলেকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে তারা।

এ ছাড়া যাওয়ার সময় তারা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে জেলেদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করে বলে ক্ষতিগ্রস্ত ট্রলার মালিকরা জানিয়েছেন।

ট্রলার মালিক সূত্রে জানা গেছে, সশস্ত্র ডাকাত দলের সদস্যরা রাঙ্গাবালী থানার মৌডুবী গ্রামের বশির মৃধার এফ.বি. মায়ের দোয়া ট্রলারের মাঝি হাবিল মাতুব্বর (২৮), রাঙ্গাবালী গ্রামের লিটু মিয়ার এফ.বি. নেটো-২ ট্রলারের মাঝি সোবাহান মোল্লা (৫০), বড়বাইশদিয়া গ্রামের লতিফ মৃধার মাছ ধরা ট্রলারের মাঝি ফজলু ফকিরকে (৩৫) মুক্তিপণের দাবিতে অপহরণ করে নিয়ে যায়। বাকিদের নাম তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

তারা জানান, এ সময় ডাকাতরা ট্রলার মালিকদের ফোন নম্বরে ফোন দিয়ে ০১৭৫৮২৮৪৮৪১ নম্বরটিতে যোগাযোগ করে নির্দেশিত স্থানে মুক্তিপণের টাকা দিতে বলা হয় এবং তা না হলে অপহৃত জেলেদের হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে।  

এবিষয়ে রাঙ্গাবালীর মৌডুবী গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত ট্রলার মালিক বশির মৃধা বাংলানিউজকে জানান, শনিবার গভীর রাতে ১৮ জন জেলে নিয়ে এফ.বি. মায়ের দোয়া কুয়াকাটার ২০/২৫ কি.মি. দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে জাল টেনে ট্রলারে মাছ তুলছিল।

এ সময় ১৫ জনের একদল সংঘবদ্ধ সশস্ত্র ডাকাত নামহীন দ্রুতগতির একটি ট্রলারে করে এসে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে এবং অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ট্রলার মাঝি হাবিল মাতুব্বরসহ মুক্তিপণের দাবিতে ট্রলারটি লুট করে। এরপর তারা অন্যান্য জেলেদের তুফানের চর এলাকায় ছেড়ে দিয়ে ০১৭৫৮২৮৪৮৪১ নম্বরে  যোগাযোগের নির্দেশ দেয়।  

ট্রলার মালিক বশির মৃধা আরো জানান, ডাকাতদলের নির্দেশিত মোবাইল ফোনে কথা বলে ভোলা জেলার চরফ্যাশন এলাকায় মুক্তিপণের টাকা পৌঁছে দিয়ে ট্রলার ও অপহৃত জেলেকে উদ্ধার করতে বলে নতুবা অপহৃত জেলেকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে।

অপরদিকে, রাঙ্গাবালী গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত ট্রলার মালিক লিটু মিয়া জানান, তার মালিকানাধীন এফ.বি. নেটো-২ ট্রলারের অপহৃত মাঝি সোবাহান মোল্লাকে এখনও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। এ ছাড়া ডাকাতদলের হুমকি-নিষেধাজ্ঞার কারণে দুর্ধর্ষ এ ডাকাতির বিষয়টি পুলিশ, নৌ-বাহিনী ও কোস্টগার্ডকে এখনও জানানো হয়নি।

এ ছাড়া অপহৃত বাকি জেলেদের বিষয়ে এখনো কিছু জানা সম্ভব হয়নি।

এবিষয়ে কলাপাড়া-রাঙ্গাবালীর উপকূলীয় এলাকায় টহলের দায়িত্বে নিয়োজিত কোস্টগার্ড দলের কন্টিনজেণ্ট কমান্ডার এম. এ. তালেব বাংলানিউজকে বলেন, ‘সমুদ্রে ডাকাতির এ বিষয়টি আপনার কাছেই কেবল জানলাম। ক্ষতিগ্রস্ত ট্রলারের কেউ-ই আমাদের এখন পর্যন্ত বিষয়টি জানায়নি।’

বাংলাদেশ সময়: ১৫২৫ ঘণ্টা, জুন ০৫, ২০১১

বিএনপি আইন-আদালত মানে না: নাসিম
ডিসি হিল সংস্কৃতিচর্চার জন্য উন্মুক্ত করার দাবি
বিশ্বকাপ নয়, আপাতত বিপিএল নিয়েই ভাবছেন সানি
ধরে নিয়ে যাওয়া ২ জেলেকে ফেরত দিলো বিএসএফ
মৌসুমের শুরুতেই ভোলায় জেঁকে বসেছে শীত


মঞ্চ প্রস্তুত, উদ্বোধনের অপেক্ষা
চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন মাহফুজুর রহমান খান
ঢাকায় তেল-গ্যাস রক্ষা কমিটির মহাসমাবেশ ৩ এপ্রিল
সন্তানকে বাঁচাতে পারলেও মারা গেলেন বাবা
বরিশালে ই-নামজারি বিষয়ক কর্মশালা