রাজধানীতে ফলের অবৈধ আড়ৎ উচ্ছেদ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

রাজধানীতে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ক’টি ফলের আড়ৎ সোমবার উচ্ছেদ করেছে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন (ডিসিসি)। দুপুরে ডিসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খলিল আহমেদের নেতৃত্বে এই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়।

ঢাকা: রাজধানীতে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ক’টি ফলের আড়ৎ সোমবার উচ্ছেদ করেছে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন (ডিসিসি)। দুপুরে ডিসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খলিল আহমেদের নেতৃত্বে এই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়।

প্রথম অভিযানটি চালানো হয় এলিফ্যান্ট রোডের বাটা সিগনাল বটতলায়।

অবশ্য অভিযানের খবর পেয়ে আগেই পালিয়ে যান আড়ৎদার। পরে আড়ৎদারবিহীন আড়তের বাঁশ ও ত্রিপলে তৈরি ছাউনিটি উচ্ছেদ করেন ডিসিসির উচ্ছেদকর্মীরা।

এরপর উচ্ছেদ অভিযান চলে ধানম-ি খেলার মাঠে গড়ে ওঠা বিশাল ফলের আড়তে।

মিরপুর রোড সংলগ্ন মাঠের পূর্বপাশের পুরো এলাকা জুড়ে গড়ে ওঠা ইসমাইল চিশতীর আড়ৎ বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়।

এ সময় ইসমাইলকে আটক করা হলেও পরে একদিনের মধ্যে সকল স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার শর্তে ছেড়ে দেওয়া হয়।

সর্বশেষ অভিযান চলে কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের মাঠে।

এ সময় সিটি কর্পোরেশনের অনুমোদন ছাড়া স্থাপনা গড়ার অভিযোগে আবুল হোসেন, আক্কাস, আলি আহমেদ ও খোকন শেখকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। ভেঙ্গে দেওয়া হয় তাদের স্থাপনা।

অভিযান সম্পর্কে খলিল আহমেদ বাংলানিউজকে বলেন, ‘ফল ব্যবসায়ীরা প্রভাবশালীদের সহায়তায় এসব স্থাপনা গড়ে তুলে ব্যবসা করছিলেন। কিন্তু ডিসিসির জায়গায় বা সম্পত্তিতে কোনো স্থাপনা গড়তে হলে অনুমোদনের প্রয়োজন হয়। তারা তা নেয়নি।’

অপরদিকে কলাবাগান মাঠে এক মাস আড়ৎ পরিচালনার জন্য ক্লাবের উন্নয়ন ফান্ডে ২০ হাজার টাকা দিয়ে ব্যবসা শুরু করেছেন বলে বাংলানিউজের কাছে দাবি করেছেন ফল ব্যবসায়ী আবুল হোসেন।

তবে কাকে টাকা দিয়েছেন, তা বলতে পারেননি তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০২ ঘণ্টা, মে ২৩, ২০১১

ডিএনসিসির পরিচ্ছন্নতা-মশক নিধনকর্মীদের গ্লাভস-জুতা বিতরণ
সিলেটে রাস্তার পাশে পড়ে থাকা বিদেশি নাগরিক আইসোলেশনে
বশেফমুবিপ্রবিতে প্রস্তুত হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ 
নওগাঁয় মেয়েকে হত্যার অভিযোগে মা আটক
করোনা আতঙ্কে কষ্টে দিন কাটছে ছিন্নমূল মানুষের


ট্রাকে যাত্রী বহন করায় ১১ চালককে জরিমানা
করোনা: ডেমরায় পুলিশের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ
হাসপাতালে রাধিকা আপ্তে!
সাবেক ক্রিকেটার দুর্জয়ের পিপিই-মাস্ক-হ্যান্ডগ্লাভস বিতরণ
‌পোশাক খাতের শীর্ষ দুই সংগঠনকে ধন্যবাদ দিল ইউএফজিডব্লিউ