সরকারি স্কুলে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ না দেওয়ায় সংসদে শিক্ষামন্ত্রীর ক্ষোভ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

সরকারি স্কুলগুলোতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগের জন্য সরকারি কর্মকমিশনকে (পিএসসি) বারবার তাগাদা দিয়েও কোনো কাজ হচ্ছে না বলে সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

সংসদ থেকে: সরকারি স্কুলগুলোতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগের জন্য সরকারি কর্মকমিশনকে (পিএসসি) বারবার তাগাদা দিয়েও কোনো কাজ হচ্ছে না বলে সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

রোববার স্বত্যন্ত্র সংসদ সদস্য ফজলুল আজিমের এক সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী জানিয়েছেন, দেশের ৩১৭টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধিকাংশতেই প্রধান শিক্ষক সংকট রয়েছে। এসব পদে নিয়োগ দেওয়ার দায়িত্ব পিএসসির। কিন্তু এক্ষেত্রে তাদের বারবার অনুরোধ করলেও তারা তেমন কিছুই করছেন না।’

মন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষক নিয়োগের এই অসহযোগিতা অব্যাহত থাকলে প্রয়োজনে বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।’

সংসদকে তিনি আরও জানান, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দক্ষ ও যোগ্য শিক্ষক নিয়োগের জন্য শিগগিরই একটি কমিশন গঠন করা হবে। জাতীয় শিক্ষানীতিতে এটা রয়েছে। সরকার ও সংসদ এই শিক্ষানীতি অনুমোদন দিয়েছে।

বিদ্যমান শিক্ষক নিয়োগের পদ্ধতিটি ঠিক নয় বলেও মন্তব্য করেন নুরুল ইসলাম নাহিদ।

তিনি বলেন, ‘এসব স্কুলে শিক্ষক নিয়োগের কর্তৃপক্ষ হচ্ছে পরিচালনা পরিষদ। কিছু কিছু জায়গায় নিয়োগের ক্ষেত্রে নানা অসাধু পন্থা অবলম্বন করা হয়ে থাকে। যোগ্য ও দক্ষ শিক্ষক না পাওয়ার ক্ষেত্রে এটিও একটি প্রতিবন্ধকতা।’

বেগম শাহিনা মনোয়ার হকের এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী সংসদকে জানান, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে ‘মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে আইসিটি শিক্ষার প্রাসার’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ১২৮টি উপজেলায় আইসিটি ট্রেনিং অ্যান্ড রিসোর্স সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে ২ লাখ ৮০ হাজার শিক্ষককে কম্পিউটার ও ইন্টারনেট প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

এছাড়া শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের মধ্যে কম্পিউটার প্রযুক্তি সম্প্রসারিত করতে দেশের ৭শ’ বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ১৪শ’ ল্যাপটপ দেওয়া হয়েছে বলেও সংসদকে জানান শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

এদিকে এমপিওভুক্তি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রশ্ন করেন সংসদ সদস্য কে এম খালিদ এবং ধীরেন্দ্রনাথ শম্ভু।

এ বিষয়ে সরকারের স্থায়ী পরিকল্পনা বিষয়ে মন্ত্রীর কাছে জানতে চান তারা। তাদের প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে কয়েকজন সংসদ সদস্য টেবিল চাপড়ে সমর্থন জানান।

এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এমপিওভুক্তি বিষয়ে এই সরকারের সদিচ্ছা রয়েছে। কিন্তু জোট সরকারের শেষ কয়েক বছরে ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে কোনো স্কুল এমপিওভুক্ত না হওয়ায় ইতিমধ্যে ৭ হাজার স্কুলের জট তৈরি হয়েছে। এর পরিপ্র্রেক্ষিতে একটি নির্বাচনী এলাকা থেকে তিনটির বেশী স্কুলকে এমপিওভুক্ত করা সরকারের পক্ষে সম্ভব নয়।’
 
নাহিদ জানান, ইতিমধ্যে সব সদস্যের কাছ থেকে তালিকা নিয়ে প্রস্তুতি শেষ করেছেন তারা। এখন অর্থমন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দ পেলেই তারা কাজ শুরু করতে পারবেন। তবে সব প্রস্তুতির পরেও বরাদ্দ না পাওয়া গেলে তাদের পক্ষে আর কিছুই করা সম্ভব হবে না।

এক বছরের বাজেটে এমপিওভুক্তি বাবদ কোটি কোটি টাকার দায় সরকারের ওপর দেওয়া সম্ভব নয় বলেও জানান তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০০ ঘণ্টা, মে ২২, ২০১১

যুক্তরাষ্ট্রে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়ালো
শ্রমিকদের ব্যাংক হিসাব খোলার শেষ সময় ২০ এপ্রিল
সিলেটে আইসোলেশনে বৃদ্ধার মৃত্যু
সংগীতজ্ঞ রবিশঙ্করের জন্ম
ইতিহাসের এই দিনে

সংগীতজ্ঞ রবিশঙ্করের জন্ম

করোনা চিকিৎসায় চীনের সাফল্য তুলে ধরলো হুয়াওয়ে


চট্টগ্রামে ৭টার পর থেকে বন্ধ দোকান, প্রবেশ মুখে চেকপোস্ট
মঙ্গলবার থেকে পটুয়াখালী শহরের প্রবেশ বন্ধ
সন্ধ্যা ৬টার পর রাজশাহীতে ওষুধ ছাড়া সব দোকান বন্ধ
১৬ এপ্রিলের মধ্যে শ্রমিকদের বেতন পরিশোধের অনুরোধ
এবার বাংলাদেশ ছাড়লো রাশিয়ার নাগরিকরাও