php glass

মইনের ঠিকানা খুঁজছে সংসদীয় কমিটি

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

তত্ত্বাবধায়ক আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) সংঘঠিত সেনা-ছাত্র সহিংসতার সাক্ষী হিসেবে সংসদীয় কমিটিতে হাজির হতে দ্বিতীয় দফা চিঠি পাঠানোর জন্য সাবেক সেনা প্রধান জেনারেল (অব.) মইন উ আহমেদের ঠিকানা খুঁজছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ৫নং উপ-কমিটি।

ঢাকা: তত্ত্বাবধায়ক আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) সংঘঠিত সেনা-ছাত্র সহিংসতার সাক্ষী হিসেবে সংসদীয় কমিটিতে হাজির হতে দ্বিতীয় দফা চিঠি পাঠানোর জন্য সাবেক সেনা প্রধান জেনারেল (অব.) মইন উ আহমেদের ঠিকানা খুঁজছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ৫নং উপ-কমিটি।

এর আগে জেনারেল মইনকে কমিটিতে হাজির করানোর বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে সশস্ত্র বাহিনী বিভাগকে চিঠি পাঠানো হয়েছিলো। কিন্তু গত বুধবার সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ থেকে সংসদীয় কমিটিকে জানানো হয়- জেনারেল মইন এখন দেশের বাইরে থাকায় তাকে চিঠি পৌঁছানোর দায়িত্ব তাদের নয়।

এ কারণে মইনকে সরাসরি চিঠি পাঠানোর সিদ্ধান্ত  নেয় কমিটি।

গত ২৬ এপ্রিল তাদের হাজিরা নিশ্চিত করতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও  সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও) বরাবর চিঠি পাঠানো হয়।

ইতিমধ্যে সাবেক প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন আহমদের যুক্তরাষ্ট্রে ঠিকানায় চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে সংসদ সচিবালয়কে জানিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

সংসদীয় কমিটির সভাপতি ও উপ-কমিটির আহ্বায়ক রাশেদ খান মেনন রোববার বাংলানিউজকে বলেন, ‘সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ কমিটিকে জানিয়েছে- দেশের বাইরে থাকায় জেনারেল মইনকে তারা চিঠি পৌঁছে দিতে পারবে না। এটা তাদের এক্তিয়ারেও নেই।’

মেনন বলেন, ‘একারণে আমরা সরাসরি তার (মইন) ঠিকানায় চিঠি পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের এই দুই কুশীলবের ই-মেইলে চিঠি পাঠানোর কথা থাকলেও রোববার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তা পাঠানো হয়নি।

সংসদ সচিবালয়ের কমিটি শাখা-৭ এর সিনিয়র সহকারী সচিব শাহ মাহমুদ সিদ্দিকী বাংলানিউজকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, এই গত ২৭ ফেব্রুয়ারি এই উপ কমিটির ৪র্থ বৈঠকে ফখরুদ্দিন ও মইনকে প্রথমবারের মতো তলবের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

২০০৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্র, শিক্ষক ও সেনা সদস্যের মধ্যে সৃষ্ট সহিংসতার ঘটনা তদন্তকারী এই উপ-কমিটির ১৮ এপ্রিলের পঞ্চম বৈঠকে ফখরুদ্দীন ও মইনকে সাক্ষ্য দিতে ডাকা হয়েছিলো।

সে সময় সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের এই দুই কুশীলব কমিটিতে হাজির না হয়ে  যুক্তরাষ্ট্র থেকে তাদের লিখিত বক্তব্য পাঠান।

সেই লিখিত বক্তব্যকে ‘অর্থহীন’ আখ্যা দিয়ে আবারো তাদের কমিটিতে হাজির করানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

রাশেদ খান মেননকে আহবায়ক করে গত বছরের ১৯ আগস্ট গঠিত ৪ সদস্যের এই উপ-কমিটিতে আরো আছেন- শাহ আলম, মির্জা আজম ও বীরেন শিকদার।

ইতিমধ্যেই ওই সহিংস ঘটনার বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করছে কমিটি।

আগামী  ১৯ মে উপ-কমিটির ষষ্ঠ বৈঠকে ওই সহিংস ঘটনায় নির্যাতিত ছাত্র নেতাদের সাক্ষ্য নেওয়া হবে। এজন্য ১২ ছাত্রনেতাকে চিঠিও পাঠানো হয়েছে বলে রাশেদ খান মেননের একান্ত সচিব নাঈমুল আজম খান বাংলানিউজকে জানিয়েছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩৮ ঘণ্টা, মে ১৫, ২০১১

আমলাতান্ত্রিক জটিলতা কমছে: ভূমিমন্ত্রী
৭ দফা দাবিতে আগরতলায় গণডেপুটেশন
খুলনায় কর মেলার শেষ দিনে ৮ কোটি ৭০ লাখ টাকা আদায়
মান্দায় বাসচাপায় ভ্যান চালকের মৃত্যু
চাঁদা না দেওয়ায় রাজস্থলীতে ৩ জনকে পিটিয়ে জখম


বিয়ে করেছেন শিহাব-মম, গোপন ছিল চার বছর 
সন্দ্বীপে হাত-পা বেঁধে যুবক ‘খুন’
৫৭০ কোটি টাকা আয়কর আদায় চট্টগ্রামের মেলায়
নেদারল্যান্ডের নাইটহুড খেতাব পেলেন ফজলে হাসান আবেদ
পাকিস্তান থেকে উড়ে এলো ৮২ টন পেঁয়াজ