php glass

চারুকলায় প্রস্তুতি দেখে বোঝা যায় বৈশাখ আসছে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

চৈত্রের খর রোদে হঠাৎ আকাশ কালো করে ঝুম বৃষ্টি। উন্মত্ত ঝড়ে কাল বৈশাখীর চিরচেনা রূপে প্রকৃতিতে বৈশাখের পদধ্বনি শোনা যাচ্ছে। কেবল প্রকৃতি কেন, চারুকলা ইনস্টিটিউটে বর্ষবরণের প্রস্তুতি দেখেও যে কেউই বুঝে যাবেন দুয়ারে বৈশাখ কড়া নাড়ছে।

ঢাকা: চৈত্রের খর রোদে হঠাৎ আকাশ কালো করে ঝুম বৃষ্টি। উন্মত্ত ঝড়ে কাল বৈশাখীর চিরচেনা রূপে প্রকৃতিতে বৈশাখের পদধ্বনি শোনা যাচ্ছে। কেবল প্রকৃতি কেন, চারুকলা ইনস্টিটিউটে বর্ষবরণের প্রস্তুতি দেখেও যে কেউই বুঝে যাবেন দুয়ারে বৈশাখ কড়া নাড়ছে।

প্রকৃতির উš§ত্ততা, খর রোদ কিংবা হঠাৎ বৃষ্টি কোনও কিছুই চারুকলার শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের দমিয়ে রাখতে পারছে না। পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রা আয়োজনে ব্যস্ত দশম ব্যাচের চঞ্চল, রাজু, সেবা, রফি। ওদের দেখভাল করছেন শিক্ষকরা।

রাজধানীতে বর্ষবরণের হাজারো আয়োজনের মাঝেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের ঐতিহ্যবাহী এ মঙ্গল শোভাযাত্রার আবেদন ভিন্ন।

১৯৮৯ সালে চারুকলার শিক্ষার্থী, শিক্ষক, শিল্পী, সাংস্কৃতিক কর্মী সবাই মিলে প্রথমবারের মতো মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করেন। এরপর বিগত প্রায় দুই যুগ ধরে মঙ্গল শোভাযাত্রা হয়ে উঠেছে বৈশাখ উদযাপনের প্রধান অনুষঙ্গ।

মাঝে দু’বছর মঙ্গল শোভাযাত্রা বাণিজ্যিক পৃষ্ঠপোষকের খপ্পরে পড়ে অনেকটাই ম্লান হয়ে যায়। এতে অসন্তোষ দেখা দেয় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে। তাই বিজ্ঞাপনের অর্থ বাদ দিয়ে নিজেরাই অর্থের সংস্থানে নেমে পড়েন। তারা প্রমাণ করেছেন, প্রকৃতির বাধাই যেখানে তুচ্ছ সেখানে টাকার অভাবে মঙ্গল শোভাযাত্রার কাজ থেমে থাকবেÑএটা হতেই পারে না।

জ্যেষ্ঠ কয়েকজন শিক্ষার্থী বাংলানিউজকে জানালেন, বাণিজ্যিক পৃষ্ঠপোষক ও তাদের বিজ্ঞাপনের আধিপত্যে মঙ্গল শোভাযাত্রায় প্রাণের ছোঁয়ায় ঘাটতি দেখা দেয়। বেনিয়া প্রতিষ্ঠানের দ্বারস্থ হয়ে বিপুল অর্থ ব্যয়ে মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজনে জৌলুস থাকলেও প্রাণ থাকে না।

তাই পৃষ্ঠপোষক ছাড়াই নিজেদের টাকায় শোভাযাত্রা আয়োজনে আবারও প্রাণের ছোঁয়া ফিরে এসেছে বলে দাবি করেন তারা।

এবারও নিজেদের শ্রম আর শুভানুধ্যায়ীদের সহযোগিতায় মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন চলছে।

তারা প্রমাণ করেছেন, আন্তরিকতা থাকলে অর্থ কোনও বাধা হতে পারে না।

শিক্ষার্থীরা রং তুলি নিয়ে বসেছেন। কেউ রং তুলি নিয়ে ছবি আঁকছেন। কেউ মাটির সরায় শিল্পকর্ম ফুটিয়ে তুলছেন। কেউবা মুখোশ তৈরি করছেন। আর সেগুলো বিক্রিও করছেন নিজেরাই। আর সন্তুষ্ট চিত্তে এসব শিল্পকর্ম কিনে সমর্থন দেওয়ার শুভানুধ্যায়ীরও অভাব হয়নি। এভাবে অনায়াসেই শোভাযাত্রার সাজসজ্জার অর্থ জোগাড় হচ্ছে।

এবারও ছবি আর সরা বিক্রি করে পাওয়া টাকায় মঙ্গল শোভাযাত্রা হবে বলে জানালেন রাজু।

নিজেদের টাকায় মঙ্গল শোভাযাত্রা আয়োজনের কাজ পুরোদমে এগিয়ে যাওয়ায় শিক্ষার্থীদের চোখে মুখে তৃপ্তির ছাপ স্পষ্ট।

সেবা গর্বের সঙ্গে বললেন, ‘আমরা নিজেরাই সব করছি। টাকাও জোগাড় করছি নিজেরাই।’

বাংলাদেশ সময়: ১৮১৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ১১, ২০১১

ময়মনসিংহে হত্যা মামলার দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার
ফরিদপুরে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু
‘দুর্নীতিবাজদের ঠিকানা হবে খালেদা জিয়ার পাশের কারাগারে’
রাজস্ব ও জন্ম নিবন্ধন অফিসে ছদ্মবেশে দুদকের অভিযান
বরিশালে জাল-ইলিশসহ ২২জেলে আটক


ওঠানামা করছে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা
শক্তিশালী ভূমিকম্পে কাঁপলো ফিলিপাইন
চরভদ্রাসনে ৪ জেলের কারাদণ্ড, ইউএনও আহত
দামুড়হুদায় কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় ধান ব্যবসায়ী নিহত
মাইকেল জ্যাকসন মানসিকভাবে অসুস্থ ছিলেন: এলটন জন