php glass

এপ্রিল থেকে রাত ৮টায় দোকান-মার্কেট বন্ধের নির্দেশ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

বিদ্যুৎ ঘাটতি মোকাবেলায় ১ এপ্রিল থেকে আবারও রাত আটটার পর দোকান ও মার্কেট বন্ধের সিদ্ধান্ত কার্যকর হচ্ছে। বুধবার সচিবালয়ে বিদ্যুৎ বিভাগে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

ঢাকা : বিদ্যুৎ ঘাটতি মোকাবেলায় ১ এপ্রিল থেকে আবারও রাত আটটার পর দোকান ও মার্কেট বন্ধের সিদ্ধান্ত কার্যকর হচ্ছে। বুধবার সচিবালয়ে বিদ্যুৎ বিভাগে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এছাড়া সেচ পাম্পগুলো রাত এগারোটা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাবে বলেও সিদ্ধান্ত হয়েছে।  

সভা শেষে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী এনামুল হক এসব কথা জানান।

গ্রীষ্মকালে সেচে অগ্রাধিকারভিত্তিতে বিদ্যুৎ সরবরাহ, এইচএসসি পরীক্ষা ও সামগ্রিক লোডশেডিং ব্যবস্থাপনার জন্য এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান।

আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে আলোচনার কথা জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বিদ্যুৎ সাশ্রয় কর্মসূচি কার্যকর ও মনিটর করতে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

সাড়ে ৬ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ চাহিদার বিপরীতে ঘাটতির পরিমাণ প্রায় ১৮০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের ঘাটতি রয়েছে বলে সভায় জানানো হয়।

দেশের উত্তরাঞ্চলে সেচ কাজে কৃষকদের জন্য ডিজেল সরবরাহ নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনকেও নির্দেশ দিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী।

সভায় সিদ্ধান্ত হয়, সেচ পাম্পগুলো রাত ১১টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত টানা বিদ্যুৎ পাবে। এ সময়ের বাইরে পাম্প চালানো বন্ধের বিষয়টিও মনিটরিং করবে সংশ্লিষ্টরা।  

বিদ্যুৎ উৎপাদন নিরবচ্ছিন্ন রাখতে এর আগে সার কারখানাগুলোতে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে সরকার।

বৈঠকে কৃষি মন্ত্রণালয় জানায়, বর্তমানে চালু ২ লাখ ৪৬ হাজার বিদ্যুৎ চালিত পাম্পের জন্য ১ হাজার ৬৬৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্রয়োজন।

বিদ্যুৎচালিত পাম্পের পাশাপাশি দেশে ১৩ লাখ ডিজেল পাম্প সেচের কাজে ব্যবহার হয় বলে কৃষি মন্ত্রণালয় জানায়।

কৃষি মন্ত্রণালয় বিদ্যুৎচালিত পাম্পের বিদ্যুতের প্রয়োজনের তথ্য জানালেও বিদ্যুৎ বিতরণকারী সংস্থাগুলোর কাছে এর সর্বশেষ তথ্য নেই বলেও বৈঠকে জানানো হয়। এজন্য ক্ষোভও প্রকাশ করেন বিদ্যুৎ সচিব।

সংশ্লিষ্ট বিদ্যুৎ বিতরণকারী সংস্থাগুলোকে পরবর্তী সাত দিনের মধ্যে এ সংক্রান্ত তথ্য বিদ্যুৎ বিভাগের কাছে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয় বলেও বৈঠক সূত্র জানায়।
 
বিপিসির পক্ষ থেকে বৈঠকে জানানো হয়, চলতি মৌসুমে প্রায় ৩ লাখ ৬৫ হাজার মেট্রিক টন ডিজেল সরবরাহ করা হয়েছে। গত বছর এর পরিমাণ ছিল ৩ লাখ ৩৭ হাজার মেট্রিক টন।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে জ্বালানি তেল সরবরাহ করা হয় ৩ লাখ ৩৭ হাজার মেট্রিক টন এবং ফেব্রুয়ারিতে সরবরাহ করা হয় ৩ লাখ ৯ হাজার মেট্রিক টন।

বিপিসি সরকারের বিদ্যুৎ সাশ্রয় পরিকল্পনায় সহায়তার জন্য অফপিক আওয়ারে কৃষকদেরকে পানির পাম্প চালাতে উদ্বুদ্ধ করতে সচেতনতা কর্মসূচি পরিচালনার জন্য প্রস্তাব করে।

বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্র জানায়, চলতি বছর সেচের জন্য পিডিবির কাছে বিদ্যুৎ সংযোগের চাহিদা ছিল ২৯ হাজার, সংযোগ দেয়া হয়েছে প্রায় ২৬ হাজার।

পল্লী বিদ্যুতের (আরইবি) কাছে আবেদন করা প্রায় আড়াই লাখের মধ্যে চলতি মৌসুমে সংযোগ দেওয়া হয়েছে প্রায় দুই লাখ।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী এনামুল হকের সভাপতিত্বে বৈঠকে অংশ নেন বিদ্যুৎ সচিব আবুল কালাম আজাদ, জ্বালানি সচিব মেজবাউল হকসহ যোগাযোগ, কৃষি, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সংস্থার প্রতিনিধিরা।

বাংলাদেশ সময়: ১৯২০ ঘণ্টা, মার্চ ৩০, ২০১১

ksrm
‘এ শিক্ষা আমরা অন্যদের মাঝেও ছড়িয়ে দেবো’
সফলতা যদি সত্যি চান...
ছাগল পালন করে স্বাবলম্বী করিম
মঠবাড়িয়ায় গৃহকর্মীকে গণধর্ষণে থানায় মামলা
মাল্টা চাষে স্বাবলম্বী ঘোড়াঘাটের আবু সায়াদ


ঝালমুড়ি খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে শিশুকে ধর্ষণ!
সিরিজ ড্র করল ইংল্যান্ড, ট্রফি অস্ট্রেলিয়ারই
মারাঠি সিনেমার গানে অনুপম রায়
রাজবাড়ীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৮ মামলার আসামি নিহত
বাংলানিউজে কাজের সুযোগ