বর্তমানে কোনো সাংবাদিক নিহত হয়নি: তথ্যমন্ত্রী

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

মহাজোট সরকার মিডিয়া বন্ধব। পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে বর্তমান সরকারের সময় কোনো সাংবাদিক সরকারের কোনো কার্যক্রমের কারণে নিহত বা নির্যাতিত হননি।

ঢাকা : মহাজোট সরকার মিডিয়া বন্ধব। পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে বর্তমান সরকারের সময় কোনো সাংবাদিক সরকারের কোনো কার্যক্রমের কারণে নিহত বা নির্যাতিত হননি।

সোমবার জাতীয় সংসদে অনুষ্ঠিত প্রশ্নোত্তর পর্বে এ তথ্য জানান তথ্য মন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ।

ডেপুটি স্পিকার কর্নেল (অব.) শওকত আলীর সভাপতিত্বে সংসদের বেঠক শুরু হয়। প্রশ্নোত্তর পর্বে সংসদ সদস্যদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী আরও জানান, আপাতত আর কোনো বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলকে লাইসেন্স দেওয়া হবে না। এ সরকারের সময়ে ১২টি টিভি চ্যানেলকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তবে বিদ্যুত পরিস্থিতির কারণে অধিকাংশ চ্যানেল এখনও সম্প্রচারে আসতে পারেনি।

মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেনের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী সংসদকে জানান, ২০০১-২০০২ থেকে গত নয়টি অর্থ বছরে বিটিভি লাইসেন্স ও বিজ্ঞাপন বাবদ ৮৭৫ কোটি ছয় লাখ টাকা আয় করেছে। এরমধ্যে লাইসেন্স খাতে আয়ের পরিমাণ হচ্ছে ১৪৩ কোটি ৭১ লাখ টাকা। অবশিষ্ট ৭৩১ কোটি ৩৫ লাখ টাকা এসেছে বিজ্ঞাপন খাতে।
 
ওয়ারেসাত হোসেন বেলালের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সরকার ১২টি চ্যানেল সম্প্রচারের জন্য অনাপত্তি দিয়েছে। এরমধ্যে মাই টিভি, এটিএন নিউজ ও মোহনা টিভি সম্প্রচার হচ্ছে। কয়েকটি চ্যানেল পরীক্ষামূলক সম্প্রচার করছে। অন্যান্য চ্যানেলগুলো অচিরেই সম্প্রচার শুরু করবে। বিদ্যুৎ úরিস্থিতির কারণে ওই চ্যানেলগুলো সম্প্রচারে আসতে পারেনি। এখন বিদ্যুৎ পরিস্থিতি আগের চেয়ে ভালো।’

মমতাজ বেগমের প্রশ্নে তথ্যমন্ত্রী জানান, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্প্রচার কার্যক্রম চালাতে না পারলে অনুমতির শর্ত অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তাছাড়া নতুন করে টিভি চ্যানেলের অনুমোদন দেওয়ার কোনো পরিকল্পনা নেই।

সংসদ অধিবেশনে অনুপস্থিত বিএনপির সংসদ সদস্য এবিএম আশরাফ উদ্দিন নিজানের লিখিত প্রশ্নের জবাবে তথ্য মন্ত্রী সংসদকে জানান, তথ্য মন্ত্রণালয় টিভি চ্যানেলগুলোর বিষয়ভিত্তিক কোনো টক শো এবং কোনো চ্যানেল বন্ধ করেনি।  

বিএনপির অনুপস্থিত সংসদ সদস্য জাফরুল ইসলাম চৌধুরীর লিখিত প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী সংসদকে জানান, বেতার ও বিটিভির স্বায়ত্বশাসন প্রদানের বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য যুগ্ম সচিবের সভাপতিত্বে কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিষয়টি কমিটিতে পরীক্ষাধীন রয়েছে।

আওয়ামী লীগের নাছিমুল আলম চৌধুরীর লিখিত প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী সংসদকে জানান, ২০০০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত মিডিয়া তালিকভুক্ত পত্রিকার সংখ্যা হচ্ছে ১৪১টি।

জামায়াতে ইসলামীর এএইচএম হামিদুর রহমান আযাদের লিখিত প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, দেশের জেলা ও উপজেলায় তালিকাভুক্ত সাপ্তাহিক পত্রিকা হচ্ছে ১২৬ এবং মাসিক ৩০টি।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১১

Nagad
বান্দরবানের রাজগুরু বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ আর নেই
রাজধানীর পথে-ঘাটে ভেজাল সুরক্ষা পণ্যের কারবার
বনানী কবরস্থানে সাহারা খাতুনের মরদেহ
নীলফামারীতে তিস্তার পানি বিপৎসীমার ৩৫ সেন্টিমিটার উপরে
ছোটপর্দায় আজকের খেলা


করোনা সম্পর্কিত নতুন রোগ বাংলাদেশেও
বরিশাল বিভাগে করোনা শনাক্ত ৩৯৪৪ জনের, মৃত্যু ৮২
শিরোপার সুবাস পাচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদ
করোনায় বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমির মহাপরিচালকের মৃত্যু
করোনা: চট্টগ্রামে নতুন আক্রান্ত ১৯২ জন