php glass

বরিশালে চলছে অঘোষিত বাস ধর্মঘট

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

র‌্যাব ও পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষের ঘটনায় বরিশালের বিভিন্ন রুটে বাস চলাচল নিয়ে সৃষ্ট অচলাবস্থা এখনও কাটেনি।

বরিশাল: র‌্যাব ও পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষের ঘটনায় বরিশালের বিভিন্ন রুটে বাস চলাচল নিয়ে সৃষ্ট অচলাবস্থা এখনও কাটেনি।

টার্মিনাল সূত্র বাংলানিউজকে জানায়, সেদিনের সংঘর্ষের ঘটনায় দায়ের মামলার আসামি শ্রমিকরা পালিয়ে থাকায় অঘোষিত বাস ধর্মঘট চলছে এখন বরিশালে।

সূত্র জানায়, বরিশাল কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল নথুলাবাদ থেকে দূরপাল্লা ও অভ্যন্তরীণ রুটের বাস চলাচল স্বাভাবিক করার জন্য শ্রমিক নেতা আফতাব বিরোধীরা চেষ্টা করলেও সফল হচ্ছেন না।

বর্তমানে টার্মিনালে অবস্থানকারী আফতাব হোসেন বিরোধী শিবিরের এবং মহানগর যুবলীগের বহিস্কৃত নেতা জাকির হোসেন ডলার বলেন, ‘পুলিশের মামলার কারণে বাস শ্রমিকদের অধিকাংশই পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। ফলে চালক-শ্রমিকদের অনুপস্থিতিতে বাস চলাচল মুরু করা যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, ‘তারপরও দুরপাল্লার রুটের ঈগল পরিবহনের দু’টি এবং অভ্যন্তরীণ বানরীপাড়া ও স্বরুপকাঠি রুটের দু’টি বাস আজ ছেড়েছে। এছাড়া গৌরনদী ও বাবুগঞ্জ রুটের জন্য সিটি সার্ভিসের দুটি বাসও যাত্রী নিয়ে চলাচল করেছে।’

ঈগল পরিবহনের কাউন্টার ব্যবস্থাপক ফরিদ জানান, তাদের ও চাকলাদার পরিবহনের চারটি বাস ছেড়ে গেছে।  ঢাকা থেকেও দুটি বাস বরিশালের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসছে।

বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন জানান, মালিক প এখনও বাস চলাচল শুরু করেননি। জেলা প্রশাসক উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে তাদের সঙ্গে বৈঠকের কথা বললেও এখন পর্যন্ত বসেনি।

তবে আজ (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যায় আইনশৃংখলা রাকারী বাহিনী তাদের সঙ্গে সভা করবে বলে জানান তিনি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, টার্মিনালে অবস্থিত ৩২টি বাস কাউন্টারের মধ্যে সিংহভাগ বন্ধ রয়েছে।  তবে বরিশাল-ঢাকা রুটের ঈগল ও চাকলাদার পরিবহনের দুটি বাস ছাড়ার অপোয় রয়েছে। আর বাস বন্ধ থাকায় ঠেকায় পড়া যাত্রীদের নিয়ে মাইক্রোবাস ও টেম্পোচালকরা ব্যস্ত সময় পার করছে। এ সুযোগে মাইক্রো ও টেম্পু-স্কুটার চালকরা অনন্যোপায় যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি দু’পয়সা কামিয়ে নিচ্ছে।

যাত্রীরা অভিযোগ করেন, তারা  মাত্রাতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে।

এদিকে বিপুল সংখ্যক র‌্যাব ও পুলিশ বাস টার্মিনাল এলাকায় অবস্থান করছে।

উল্লেখ্য, পরিবেশ দূষণের দায়ে জরিমানা করাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার দুপুরে বাস শ্রমিক ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে সাংবাদিক-পুলিশসহ অন্তত ৫০ জন আহত হন।

সংঘর্ষের ঘটনায় মালিক ও শ্রমিকরা ওইদিন দুপুর ২টার দিকে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়।

রাতে বরিশাল জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি, বাস মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ এবং আটক ১৯ শ্রমিকসহ ৫শ’ জনকে আসামি করে বিমানবন্দর থানার ওসি এবং জেলা পুলিশের এক উপ-পরির্দশক বাদি হয়ে পৃথক দুটি মামলা করেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৫২ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০৩, ২০১১

সৈয়দপুরে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধা নিহত
লোকসানের বোঝা মাথায় নিয়ে আমন চাষ
‘সোনার চর’ ঘিরে হচ্ছে এক্সক্লুসিভ পর্যটন কেন্দ্র
নির্ধারিত সময়েই সম্মেলনের প্রস্তুতি নিচ্ছে আওয়ামী লীগ
মেসিকে খুশি রাখতেই নেইমার ‘নাটক’!


'১১ দিনের বাচ্চা নিয়ে রাস্তায়-রাস্তায় ঘুরছি'
ফতুল্লায় অটো ও ব্যাটারির দোকানে অগ্নিকাণ্ড
ত্রিপুরায় ১৫ লাখ রুপির মাদক জব্দ
বেনাপোলে সাড়ে ১৭ লাখ ভারতীয় রুপিসহ আটক ১
নেতাজির ‘মৃত্যুদিন’ উল্লেখ করল পিআইবি, বিতর্ক ভারতজুড়ে