বিমানের তদন্ত কমিটির হাতে বাপা’র সাধারণ সম্পাদক লাঞ্ছিত

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সাত বৈমানিক তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের ঘটনা তদন্তে গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্যের হাতে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হয়েছেন বাংলাদেশ এয়ারলাইন পাইলটস এসোসিয়েশনের (বাপা) সাধারণ সম্পাদক ক্যাপ্টেন বাসিত মাহতাব।

ঢাকা: বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সাত বৈমানিক তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের ঘটনা তদন্তে গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্যের হাতে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হয়েছেন বাংলাদেশ এয়ারলাইন পাইলটস এসোসিয়েশনের (বাপা) সাধারণ সম্পাদক ক্যাপ্টেন বাসিত মাহতাব।

বুধবার বিমানের পরিচালক (প্রকৌশল ও সম্ভার) উইং কমান্ডার (অব.) আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বাধীন কমিটির সামনে এ ঘটনা ঘটে। বিমানের একাধিক বৈমানিক ক্যাপ্টেন বাসিত মাহতাব নিজে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

মাহতাব বাসিত জানান, তদন্ত কমিটির সদস্য ওই ঘটনা রেকর্ড করেছে।  

তবে তদন্ত কমিটির প্রধান আসাদুজ্জামানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলানিউজকে বলেন, এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি।  

গত অক্টোবরে মাসে বিভিন্ন দাবিতে আন্দোলনকারী সাত বৈমানিককে বিভিন্ন অভিযোগে অভিযুক্ত করে এবং এসব অভিযোগের ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠি দেয় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ। গত ৬ জানুয়ারি বৈমানিকদের চিঠি দেওয়া হয়। চিঠিতে সাত বৈমানিকের বিরুদ্ধে বিমানের আর্থিক ক্ষতি, ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করাসহ একাধিক অভিযোগ আনা হয়।

বিমান সূত্রে জানা গেছে, ক্যাপ্টেন লুৎফরকে বাপার প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার পর মঙ্গলবার থেকে বক্তব্য নেওয়া শুরু করে তদন্ত কমিটি।

অভিযুক্ত সাত বৈমানিক বাংলাদেশ এয়ারলাইন পাইলটস অ্যাসোসিয়েশনের (বাপা) ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ক্যাপ্টেন জাকির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ক্যাপ্টেন বাসিত মাহতাব, জ্যৈষ্ঠ বৈমানিক ক্যাপ্টেন এসএম হেলাল, ক্যাপ্টেন মাকসুদ, ক্যাপ্টেন ইশতিয়াক আহমেদ, ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান ও ক্যাপ্টেন শাহ আলম মঙ্গলবার একযোগে তাদের বক্তব্য দেন। এ সময় তারা বাপাকে না জানিয়ে ক্যাপ্টেন লুৎফরকে বৈমানিকদের প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ করায় এ বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।

বিমান সূত্র জানায়, বুধবার পুনরায় আলাদা আলাদাভাবে বক্তব্য দেওয়ার জন্য ডাকা হয়। বাপার সাধারণ সম্পাদক বাসিত মাহতাব তার বক্তব্যের শুরুতেই বাপাকে জানিয়ে বৈমানিকদের প্রতিনিধি নিয়োগের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। এক পর্যায়ে মাহতাব বাসিত ব্যক্তিগতভাবেও ক্যাপ্টেন লুৎফরের বিতর্কিত ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। এক পর্যায়ে ক্যাপ্টেন লুৎফর তার আসন থেকে উঠে ক্যাপ্টেন মাহতাবকে সজোরে হাত দিয়ে ধাক্কা দেন। এ অবস্থায় তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরা জানান, মারার জন্য লুৎফর এটা করেননি। শান্তনা দিতে গিয়েছিলেন।    

বাপার আন্দোলনের প্রত্যাহারের পর বিমান কর্তৃপক্ষ পরিচালক (ফাইট অপারেশন) ক্যাপ্টেন নাসেরকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতে এই অভিযোগপত্র গঠন করা হয়েছে।

বৈমানিকদের অবসরের বয়সসীমা ৫৭ বছর থেকে বাড়িয়ে ৬২ করার অফিস আদেশ বাতিলসহ ৫ দফা দাবিতে অক্টোবরে আন্দোলন শুরু করে বাপা। টানা ৯ অচলাবস্থার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপে বৈমানিকরা আন্দোলন প্রত্যাহার করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী তাদের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না বলে জানিয়েছিলেন।   

বাংলাদেশ সময়: ২২০৬ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৬, ২০১১ 

‘ই-পাসপোর্ট ডিজিটাল জগতে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করবে’
সিএএ স্থগিত করতে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের অস্বীকৃতি
ঝালকাঠিতে ২ ‘মাদক ব্যবসায়ী’ আটক
কাউন্সিলর প্রার্থী সারোয়ারের প্রার্থিতা বাতিল চান তাবিথ
৬ মাসের মধ্যে শেষ হবে বিজিএমইএ ভবন ভাঙার কাজ


ধানের দামের অজুহাতে ফের বাড়ালো চালের দাম
সিআরবি জোড়াখুন মামলার প্রধান আসামি গ্রেফতার
দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে যা করবেন 
ভিকি কৌশল ও ক্যাটরিনা কাইফের লুকোচুরি
কর বাড়ানো নয়, সমন্বয় করা হবে: তাপস