php glass

‘কিশোর এসএসসি’র ফল প্রকাশ

শিশুদের কাছে হারলো কিশোরদল

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

শিশু এসএসসি নামে পরিচিত পঞ্চম শ্রেণীর সমাপনী পরীক্ষার ফলের আনন্দের রেশ কাটতে না কাটতেই দেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত স্কুল ও মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণীর জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে।

ঢাকা: শিশু এসএসসি নামে পরিচিত পঞ্চম শ্রেণীর সমাপনী পরীক্ষার ফলের আনন্দের রেশ কাটতে না কাটতেই দেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত স্কুল ও মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণীর জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। পাসের হারে শিশুদের পেরিয়ে যেতে পারেনি কিশোর-কিশোরীর দল।

সমাপনী পরীক্ষার পাসের হার ৯২ দশমিক ৩৪ হলেও ‘কিশোর এসএসসি’ নামে পরিচিত জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় সার্বিক পাসের হার ৭৩ দশমিক ০৪ শতাংশ। যা শিশুদের তুলনায় ১৯ দশমিক ২৬ শতাংশ কম।

জেএসসির পাসের হার ৭১ দশমিক ৩৪ শতাংশ এবং জেডিসির পাসের হার ৮১ দশমিক ০৩ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮ হাজার ৫৫৬ জন। এর মধ্যে জেএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮ হাজার ৫২ জন এবং জেডিসির ৫০৪ জন।

বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় সচিবালয়ের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আনুষ্ঠানিক ফল প্রকাশ করেন। এ সময় শিক্ষা সচিব ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী, যুগ্মসচিব (মাধ্যমিক) খন্দকার রাকিবুর রহমান, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক নোমান-উর-রশীদ, ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ফাহিমা খাতুন, মাদ্রাসাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুন নুরসহ বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে সকাল ১০ টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে ফলাফল তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, সারাদেশের ২৭ হাজার ২৮৯টি স্কুল ও মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণীর ১৫ লাখ ৯ হাজার ৮৪৭ জন পরীক্ষার্থী তালিকাভুক্ত হলেও পরীক্ষায় অংশ নেয় ১৩ লাখ ৯৬ হাজার ৫৯৯ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ১০ লাখ ২০ হাজার ৪৭ জন। অনুপস্থিত ছিল এক লাখ ১৩ হাজার ২৪৮ জন। ফেল করেছে ৩ লাখ ৭৬ হাজার ৫৫২ জন।

আটটি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় তালিকাভুক্ত হয়েছিল ১২ লাখ ৩৪ হাজার ২৫৬ জন। এর মধ্যে পরীক্ষায় অংশ নেয় ১১ লাখ ৫২ হাজার ৫৩৬ জন। পাস করেছে ৮ লাখ ২২ হাজার ২৭৫ জন।

মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডের অধীনে জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষায় তালিকাভুক্ত হয়েছিল ২ লাখ ৭৫ হাজার ৫৯১ জন। এর মধ্যে পরীক্ষায় অংশ নেয় ২ লাখ ৪৪ হাজার ৬৩ জন। পাস করেছে এক লাখ ৯৭ হাজার ৭৭২ জন।

ফলাফল বিশ্লেষণে দেখো গেছে, পঞ্চম শ্রেণীর সমাপনী পরীক্ষার মতো এ পরীক্ষায় পাসের হারে নয় শিক্ষাবোর্ডের মধ্যে এগিয়ে রয়েছে বরিশাল শিক্ষা বোর্ড। সবচেয়ে খারাপ করেছে সিলেট শিক্ষাবোর্ড। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড। এরপর রয়েছে যথাক্রমে ঢাকা, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, যশোর ও দিনাজপুর।

৩ হাজার ২১৮টি জিপিএ-৫ নিয়ে এগিয়ে রয়েছে ঢাকা শিক্ষাবোর্ড এবং ২০৩ টি জিপিএ-৫ নিয়ে সবার নিচে অবস্থান করছে সিলেট শিক্ষাবোর্ড। এক হাজার ৫০৮টি জিপিএ-৫ পেয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাজশাহী বোর্ড। এরপর রয়েছে যথাক্রমে দিনাজপুর ৭৬৩টি, যশোর ৭৪০টি, কুমিল্লা ৬২৪টি, চট্টগ্রাম ৫১৮টি, মাদ্্রাসা ৫০৪টি ও বরিশাল ৪৭৮টি।

প্রতিবারের মতো এবারও শহরের স্কুলগুলোর ভালো ফল করার প্রবণতা অব্যাহত রয়েছে। জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় পাসের হারে ও জিপিএ-৫ এর ভিত্তিতে মেয়েদের চেয়ে ছেলেরা এগিয়ে রয়েছে।

৮৬৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষার্থীরা শতভাগ পাস করেছে। এর মধ্যে ঢাকা বোর্ডে রয়েছে ৩০৮টি, বরিশাল ২৩৮টি, কুমিল্লা ১২৫টি, যশোর ৭০টি, চট্টগ্রাম ৬৫টি, সিলেট ২৭টি, দিনাজপুর ১৬টি ও মাদ্্রাসা শিক্ষাবোর্ডে ২ টি প্রতিষ্ঠান।

একজনও পাস করেনি এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা সারাদেশে ৩৬৭টি। এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি দিনাজপুর বোর্ডে ১৩০টি। সবচেয়ে কম কুমিল্লা বোর্ডে ৩টি। এছাড়া ঢাকা বোর্ডে রয়েছে ১৪টি, বরিশালে ১৬টি, যশোরে ৩৬টি, চট্টগ্রামে ৪টি, সিলেটে ৬টি ও মাদ্্রাসা শিক্ষাবোর্ডে ৯৫ টি প্রতিষ্ঠান থেকে কেউই পাস করেনি।

এবার ঢাকা বোর্ডে পরীক্ষায় অংশ নেওয়া ৩ লাখ ৫৪ হাজার ৪৪২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২ লাখ ৮৫ হাজার ৫৯৬ জন উত্তীর্ণ হয়। এর মধ্যে ১ লাখ ৪১ হাজার ৩১৩ জন ছাত্র এবং ১ লাখ ৪৪ হাজার ২৮৩ জন ছাত্রী।

রাজশাহী বোর্ডে পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ৪৩ হাজার ৭০৩ জন। উত্তীর্ণ হয় ৯০ হাজার ৫৩৯ জন। এর মধ্যে ৪৬ হাজার ৬৩৫ জন ছাত্র এবং ৪৩ হাজার ৯০৪ জন ছাত্রী।

কুমিল্লা বোর্ডে ১ লাখ ৫০ হাজার ৬৮২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে উত্তীর্ণ হয় ১ লাখ ১০ হাজার ৮৪৭জন। এর মধ্যে ৫২ হাজার ১০৯ জন ছাত্র এবং ৫৮ হাজার ৭৩৮ জন ছাত্রী।

যশোর বোর্ডে ১ লাখ ৪ হাজার ৪৯২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৯০ হাজার ২৩৫ জন উত্তীর্ণ হয়। এর মধ্যে ৪৫ হাজার ৮০৩ জন ছাত্র এবং ৪৪ হাজার ৪৩২ জন ছাত্রী।

চট্টগ্রাম বোর্ডে এক লাখ এক হাজার ৫৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৭১ হাজার ৪ জন উত্তীর্ণ হয়। এর মধ্যে ৩৪ হাজার ৪১৫ জন ছাত্র এবং ৩৬ হাজার ৫৮৯ জন ছাত্রী।

বরিশাল বোর্ডে ৬৯ হাজার ৮৪৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৫৭ হাজার ১০২ জন উত্তীর্ণ হয়। এর মধ্যে ২৭ হাজার ৪৪৫ জন ছাত্র এবং ২৯ হাজার ৬৫৭ জন ছাত্রী।

সিলেট বোর্ডে ৬৬ হাজার ৭২৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪১ হাজার ৩৫১ জন উত্তীর্ণ হয়। এর মধ্যে ১৯ হাজার ৩৭৭ জন ছাত্র এবং ২১ হাজার ৯৭৪ জন ছাত্রী।

দিনাজপুর বোর্ডে ১ লাখ ২১ হাজার ৫৮২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৭৫ হাজার ৬০১ জন উত্তীর্ণ হয়। এর মধ্যে ৩৮ হাজার ৯৮০ জন ছাত্র এবং ৩৬ হাজার ৬২১ জন ছাত্রী।

এবার মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে পরীক্ষায় অংশ নেয় ২ লাখ ৪৪ হাজার ৬৩ জন পরীক্ষার্থী। এর মধ্যে ১ লাখ ৯৭ হাজার ৭৭২ জন উর্ত্তীণ হয়েছে। এর মধ্যে ছাত্র ৯৫ হাজার ১৪৫ জন এবং ছাত্রী এক লাখ ২ হাজার ৬২৭ জন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩০, ২০১০

বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীরের ৪৮তম শাহাদতবার্ষিকী
সাস্ট ক্লাবে প্রাণবন্ত পিঠা উৎসব
মানিকগঞ্জে শুরু হয়েছে বিজয় মেলা
১৪ ডিসেম্বর বান্দরবান মুক্ত দিবস
ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার


বিক্ষোভের মুখে শিলং যাত্রা বাতিল অমিতের
বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড
ইতিহাসের এই দিনে

বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস শনিবার
পর্দা নামলো ১৫তম স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসবের
ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী হাসপাতালে