php glass

দিনাজপুর শিাবোর্ডে জেএসসি পরীক্ষার্থীদের অকৃতকার্য হওয়ার কারণ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের অধীনে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় ৩৭.৮২ শতাংশ পরীক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছে। অকৃতকার্য হওয়ার পেছনে শিক্ষকদের অবহেলা এবং পড়াশোনার নিম্ন মানকেই দোষ দিচ্ছে শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপ।

দিনাজপুর: দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের অধীনে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় ৩৭.৮২ শতাংশ পরীক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছে। অকৃতকার্য হওয়ার পেছনে শিক্ষকদের অবহেলা এবং পড়াশোনার নিম্ন মানকেই দোষ দিচ্ছে শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপ।

দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিাবোর্ডের অধীনে এবারে ১ লাখ ২১ হাজার ৫৮২ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। এরমধ্যে ৭৫ হাজার ৬০১ জন পরীক্ষার্থী উর্ত্তীণ হয়। অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৪৫ হাজার ৯শ ৮১ জন।

এ ব্যাপারে দিনাজপুর শিাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তসলিমা আখতার বানু বাংলানিউজকে জানান, ‘দিনাজপুর শিাবোর্ডের  অধিকাংশ শিাপ্রতিষ্ঠানই গ্রামাঞ্চলে অবস্থিত। শহরে যে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে, সেগুলোর ফলাফল অনেক ভালো। কিন্তু গ্রামাঞ্চলে শিার মান খারাপ হওয়ার কারণে ফলাফল খারাপ হয়েছে।’

তিনি জানান, ‘তবে আগামীতে যাতে এ রকম না হয়, সে দিকে নজর রাখা হবে। এছাড়াও শিকরা শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার দিকে ভালো নজর না রাখায় ফলাফল খারাপ হতে পারে।’
 
বোর্ডের পরীা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক পিয়ার উদ্দিন আহম্মদ জানান, ‘যেসব শিাপ্রতিষ্ঠানের ফলাফল খারাপ সেসব প্রতিষ্ঠানে কেন ফলাফল খারাপ হয়েছে, তা খতিয়ে দেখা হবে। এ ছাড়া শিাবোর্ডের অধীনে রংপুর বিভাগের ৮টি জেলার ৩ হাজার ৩৫টি বিদ্যালয়ের মধ্যে ৬৩টি বিদ্যালয়ের কোনো পরীক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়নি। জেএসসি পরীক্ষায় শতভাগ অকৃতকার্য হওয়া ৬৩টি বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে বোর্ড কর্তৃপ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

অপরদিকে পরীক্ষার ফলাফলে তৃতীয় স্থানে থাকা চিরিরবন্দর আমেনা বাকী স্কুলের প্রধান শিক মিজানুর রহমান বাংলানিউজকে জানান, ‘শিকদের আন্তরিকতা ও অভিভাবকদের সহযোগিতাই আমাদের প্রতিষ্ঠানের ফলাফল ভালো হওয়ার কারণ।’

তিনি জানান, ‘শিকরা ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি আন্তরিক হলে এবং তাদের মূল্যায়ন করলে অবশ্যই ছাত্র-ছাত্রীরা ভালো ফলাফল করবে। শিার্থীদের অবহেলা করলে কখনোই তারা ভালো ফলাফল করবে না।’

যেসব প্রতিষ্ঠানের ফলাফল খারাপ, সে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘শিার্থীদের পড়াশোনায় উৎসাহিত করতে হবে। তাদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক করতে হবে। তাহলেই তারা ভালো ফলাফল করবে।’
 
দিনাজপুর শিা বোর্ডের অধীনে পরীক্ষায় শীর্ষ ১৫তম স্থানে থাকা দিনাজপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক (ভারপ্রাপ্ত) শেখর চন্দ্র বাংলানিউজকে জানান, ‘ভালো ফল করার পেছনে এ স্কুলের শিকদের অবদান রয়েছে। পরীক্ষার্থীরা যাতে ভালো ফল করতে পারে, সেজন্য মডেল টেস্ট নেওয়া হয়েছে।’

তিনি জানান, ‘এছাড়াও যারা মডেল টেস্টে খারাপ ফল করেছিল, তাদের প্রত্যেকের অভিভাবককে বিদ্যালয়ে ডেকে নিয়ে এসে ব্যাপারটি জানানো হয়েছিল এবং পড়াশোনা ভালো করার প্রতি নজর রাখতে বলা হয়েছিল।’

বাংলাদেশ সময়: ১৮২৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩০, ২০১০

পেঁয়াজ ছাড়া রান্না হলে, আ’লীগ ছাড়াও দেশ চলবে: রাঙ্গা
‘তথ্য বিভ্রাট ও গোপন করাই দুর্নীতির কারণ ও উন্নয়নে বাধা’
ডাকসু নেতাদের কর্মকাণ্ড ভালো লাগে না: রাষ্ট্রপতি
‘অজয় রায় আমাদের জন্য পথ তৈরি করেছিলেন’
জাতীয় কৃষক পার্টির সভাপতি সাহিদুর, সম্পাদক লিয়াকত 


বিডিওয়াইইএ’র বার্ষিক সাধারণ সভা
৮ হাজার ইয়াবাসহ দুইজন গ্রেফতার
শাজাহান খানের বক্তব্যে সরকার বিপদে পড়বে না: কাদের
লঙ্কানদের হারিয়ে সৌম্য-শান্তদের স্বর্ণ জয়
গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর ডিজিটাল সেবায় জিপি-সৃজনী-ফেরাটম গ্রুপ