php glass

পরিবেশ দূষণ: ভালুকায় টেক্সটাইল মিলের সোয়া ২ কোটি টাকা জরিমানা

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

পরিবেশ দূষণের অভিযোগে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় এক্সপেরিয়েন্স টেক্সটাইল মিলস লিমিটেডেট কর্তৃপকে সোয়া ২ কোটি টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর। একইসঙ্গে পরিবেশ রার স্বার্থে ওই মিলের ডাইং অংশের উৎপাদন বন্ধ রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ময়মনসিংহ: পরিবেশ দূষণের অভিযোগে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় এক্সপেরিয়েন্স টেক্সটাইল মিলস লিমিটেডেট কর্তৃপকে সোয়া ২ কোটি টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর। একইসঙ্গে পরিবেশ রার স্বার্থে ওই মিলের ডাইং অংশের উৎপাদন বন্ধ রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

পরিবেশ অধিদপ্তর মিল কর্তৃপক্ষকে জরিমানার অর্থ আগামী ৫ জানুয়ারির মধ্যে পরিশোধ করার নির্দেশ দিয়েছে।

উল্লেখ্য, পরিবেশ অধিদপ্তরের ইতিহাসে দেশে পরিবেশ দূষণের দায়ে কোনো প্রতিষ্ঠানকে এটাই সবচেয়ে বড়ো অঙ্কের অর্থদণ্ড।

বুধবার দুপুরে পরিবেশ অধিদপ্তরের মনিটরিং অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট বিভাগের পরিচালক মোহাম্মদ মুনীর চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি বিশেষ টিম ওই মিলে অভিযান চালিয়ে পরিবেশ দূষণের প্রমাণ পেয়ে এ জরিমানার আদেশ দেন।

এ সময় পরিবেশ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান, সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন ও আব্দুল আজিজ উপস্থিত ছিলেন।

অধিদপ্তর সূত্র জানায়, পরিবেশ অধিদপ্তরের মনিটরিং অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট টিম উপজেলার ভরাডোবা এক্সপেরিয়েন্স টেক্সটাইল মিলস লিমিটেডেটের চারপাশ সরজমিন ঘুরে তাৎক্ষণিক রাসায়নিক পরীার মাধ্যমে ওই মিলের বর্জ্যে পরিবেশের জন্য মারাত্মক তিকর রাসায়নিক ডিও-৩.৭৮ মিলিগ্রাম/লিটার, ইসি ৪৭৩০, মাইক্রোসিমেন্স/সেন্টিমিটার টিডিএস ২৩৭০ মিলিগ্রাম/লিটার পায়।

এসব বর্জ্য সরাসরি কৃষি জমিতে গিয়ে ধান ও মৎস্য সম্পদের মারাত্মক তি করায় অভিযান পরিচালনাকারী দলের নেতা মুনীর চৌধুরী বাংলাদেশ পরিবেশ সংরণ আইন-১৯৯৫-এর ৭ ধারা মোতাবেক ওই মিল কর্তৃপকে ২ কোটি ২৪ লাখ ৬৪ হাজার টাকা জরিমানা করেন। পাশাপাশি মিলে স্থাপিত ইটিপি কার্যকর ও ত্র“টিমুক্ত না হওয়া পর্যন্ত উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন।

তিগ্রস্ত কৃষক আব্দুর রহমান ও আঃ খালেক বাংলানিউজকে জানান, মিলটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর গত দেড় বছর ধরে তাদের মিলের বর্জ্য পরিশোধন না করে সরাসরি ফসলি জমিতে ফেলে দেয়। ফলে গত দেড় বছরে এলাকার ২ শতাধিক একর জমির ফসলের তি হয়েছে।

তারা আরও জানান, বীজতলা নষ্ট হওয়ায় চলতি বোরো মওসুমে ফসল ফলানো সম্ভব হচ্ছে না।

এর প্রতিবাদে তিগ্রস্তরা একাধিকবার আন্দোলন করে স্থানীয় প্রশাসনকে স্মারকলিপি দেওয়াসহ বিক্ষোভ মিছিল, প্রতিবাদসভা, মহাসড়ক অবরোধসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করলেও সংশিষ্ট মিল কর্তৃপ বর্জ্য নিক্ষেপ বন্ধের ব্যাপারে কোনো পদপে নেয়নি।

বাংলাদেশ সময়: ২৩১০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৯, ২০১০

ক্রেতাদের বাজেট অনুযায়ী পোশাক তৈরি করছে ‘সারা’
মায়ের ওপর অভিমান, রাজধানীতে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা
নোয়াখালীতে ট্রাক-অটোরিকশা সংঘর্ষে প্রাণ গেলো দু’জনের
প্রণব মুখার্জি-খান আতার জন্ম
খালেদার মুক্তির জন্য স্বেচ্ছায় কারাভোগে রাজি ফেনী বিএনপি


‘মাথাপিছু আয় ৬০০০ ডলারের আগেই সবার কাছে গাড়ি থাকবে’
দলের জন্য সবটুকু অভিজ্ঞতা ঢেলে দেবেন গিবস
কর দিতে হয়রানি হলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা: অর্থমন্ত্রী
মিয়ানমারে গণহত্যার বিচার শুরু, সন্তুষ্ট রোহিঙ্গারা
বিশ্বসভ্যতার ইতিহাসই মানবাধিকার অর্জনের ইতিহাস