php glass

ডিসিসির ২১৭১ কোটি টাকার বাজেট

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

চলতি অর্থবছরে নিজস্ব পরিচালন ব্যয় এবং বিভিন্ন উন্নয়ন ও অনুন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য ২ হাজার ১৭১ কোটি ৩৪ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা করেছে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন।

ঢাকা: চলতি অর্থবছরে নিজস্ব পরিচালন ব্যয় এবং বিভিন্ন উন্নয়ন ও অনুন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য ২ হাজার ১৭১ কোটি ৩৪ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা করেছে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন।

গত অর্থবছরের মূল বাজেটের চেয়ে যা ৭৬০ কোটি টাকা ও সংশোধিত বাজেটের চেয়ে ১২শ’ কোটি টাকা বেশি।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর নাট্যমঞ্চে মেয়র সাদেক হোসেন খোকা এক জণাকীর্ণ সাংবাদিক সম্মেলনে এ বাজেট ঘোষণা করেন।

ঢাকা মহানগরীর সব ওয়ার্ড কমিশনার ও ডিসিসি’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে মেয়রের সঙ্গে ওয়ার্ড কমিশনারদের এক দীর্ঘ বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে এ বাজেট অনুমোদিত হয়।
 
বাজেটে ডিসিসি’র মোট রাজস্ব আয় ৭০৪ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ও অন্যান্য খাতে সাড়ে ৭ কোটি টাকা আয় ধরা হয়েছে।

অর্থাৎ বাজেটে মোট ঘাটতির পরিমাণ ১ হাজার ৪৫৯ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

এর মধ্যে সরকারি অনুদান (থোক বরাদ্দ) ও বিশেষ অনুদান বাবদ ১৫০ কোটি টাকা এবং পিপিপি ও বৈদেশিক সাহায্যপুষ্ট প্রকল্প খাতে বাকি ১ হাজার ২৫৪ কোটি ৪৯ লাখ টাকা পাওয়া যাবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে।
 
অন্যদিকে, বাজেটে রাজস্ব (অনুন্নয়ন) খাতে ৩৭১ কোটি ৮৫ লাখ টাকা ও অন্যান্য খাতে ৯ কোটি টাকা ব্যয়ের খাত দেখানো হয়েছে। এছাড়া উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৭৩৫ কোটি ৪৯ লাখ  টাকা।

শতকরা হিসেবে মোট বাজেটের ৮০ শতাংশই ব্যয় হবে উন্নয়ন খাতে।

অন্যদিকে, ডিসিসি’র মোট রাজস্ব আয়ের অর্ধেকেরও বেশি ব্যয় হবে সংস্থার নিজস্ব কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ও অন্যান্য খাতে।

নতুন বাজেটে করের হার বাড়ানো হয়নি বরং কর আদায় প্রক্রিয়াকে গতিশীল ও কর বহির্ভূত খাতের আওতা বাড়িয়ে রাজস্ব আয় বাড়ানোর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে মেয়র সাদেক হোসেন খোকা জানান।  

চলতি অর্থবছরের (২০১০-১১) বাজেট ঘোষণার পাশাপাশি সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরের (২০০৯-১০) সংশোধিত বাজেটও ঘোষণা করেন মেয়র।

গত অর্থবছরে ডিসিসি’র মূল বাজেটের আকার ছিল ১ হাজার ৪১১ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। সংশোধিত বাজেটে তা কমিয়ে ৯৭০ কোটি ৫৬ লাখ টাকা করা হয়েছে।
 
মূল বাজেট ও সংশোধিত বাজেট পর্যালোচনা করে দেখা যায়, কোনো খাতেই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে পারেনি ডিসিসি।

গত বছর ডিসিসি’র রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬০৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা। এর বিপরীতে আয় হয়েছে ৪৯৩ কোটি ৪৫ লাখ টাকা।

একইভাবে ২শ’ কোটি টাকার সরকারি অনুদানের প্রত্যাশার বিপরীতে পাওয়া গেছে মাত্র ২৬ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। সেইসঙ্গে বিভিন্ন সাহায্যভিত্তিক প্রকল্প খাতে ৫৪০ কোটি ৭৮ লাখ টাকার বিপরীতে ২৯৭ কোটি ১৮ লাখ টাকা পাওয়া গেছে।
 
গত অর্থ বছরের ঘোষিত বাজেট যথাযথ বাস্তবায়িত না হওয়া এবং অর্থায়নের ক্ষেত্রে নতুন বাজেটের প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ ঘাটতি থাকলেও এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ঘোষিত বাজেটকে ‘বাস্তব সম্মত’ দাবি করেছেন মেয়র খোকা।
    
বাজেট বক্তৃতায় মেয়র সাদেক হোসেন খোকা ডিসিসি’র প্রাতিষ্ঠানিক ক্ষমতা ও সক্ষমতা বাড়ানো ও ঢাকার উন্নয়নে জাতীয় বাজেটে কমপক্ষে ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার দাবি জানিয়ে বলেন, ‘বিদ্যমান সুযোগ-সুবিধা দিয়ে ক্রমবিকাশমান মহানগরীকে বাসযোগ্য হিসেবে ধরে রাখা যাচ্ছে না।’

তিনি বলেন, ‘ভবিষ্যত বংশধরদের কথা চিন্তা করে আগামী ৫০ বছর পর ঢাকার চেহারা কেমন হবে- এ চিন্তা মাথায় রেখে বুড়িগঙ্গা থেকে শীতলক্ষ্যার পাড় ঘেঁষে কেরাণীগঞ্জ থেকে সাভার হয়ে জয়দেবপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত ঢাকা শহরকে বিস্তৃত করার একটি মাস্টার প্ল্যান তৈরির কাজ এখনই শুরু করা দরকার।’   

বাংলাদেশ সময় : ১৮৪১ ঘন্টা , ০৮ জুলাই, ২০১০

দর্শক প্রশংসিত নাটক ‘ড্রিম গার্ল’
ভবনের নকশাকারসহ তিনজনকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা
লংগদুতে ছাত্রলীগের ৪ নেতাকে অব্যাহতি
পাস্তুরিত দুধ: তিন সংস্থার প্রতিবেদন হাইকোর্টে
গুজবে কান না দেওয়ার আহ্বান রেনুর বোন নাজমার


গাজীপু‌রে বা‌স দুর্ঘটনায় নিহত ২
পানি নিষ্কাশনে বাধা সৃষ্টি, ৫০টি দোকান উচ্ছেদ
নীলফামারীতে ট্রেনে কাটা পড়ে কলেজছাত্রের মৃত্যু
দ. কোরিয়ান নির্মাণ সংস্থার সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি
বানভাসি মানুষের ঘরে ঘরে খাদ্য পৌঁছে দেবে সরকার