php glass

সরকারের গ্রিন সিগন্যাল না পাওয়ায় ডিসিসি নির্বাচন হচ্ছে না

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও সরকারের গ্রিন সিগন্যাল না পাওয়ায় ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচন দিতে পারছে না নির্বাচন কমিশন। কবে নির্বাচন হবে সে ব্যাপারেও কিছু বলতে পারছেন না কমিশনের কর্মকর্তারা।

ঢাকা: প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও সরকারের গ্রিন সিগন্যাল না পাওয়ায় ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচন দিতে পারছে না নির্বাচন কমিশন। কবে নির্বাচন হবে সে ব্যাপারেও কিছু বলতে পারছেন না কমিশনের কর্মকর্তারা।

ডিসিসি এলাকায় গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি ও জরাজীর্ণ রাস্তাঘাটসহ নানা সংকট রয়েছে। এই মুহূর্তে নির্বাচন দিলে সরকারি দলের ভরাডুবি হতে পারে। এই আশঙ্কায় রাজধানীতে বিরাজমান নাগরিক সঙ্কটের উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত সরকার ডিসিসি নির্বাচন দিতে চাচ্ছে না। সরকারের একটি দায়িত্বশীল সূত্র বাংলানিউজকে এ কথা জানায়।

ডিসিসি নির্বাচন সম্পর্কে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) সাখাওয়াত হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, ‘আমাদের কাছে ডিসিসি নির্বাচনের ‘চ্যাপ্টার কোজড্’। এখন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আদেশ জারি হলে নির্বাচনের আয়োজন করা হবে।’

তিনি জানান, যতোদিন সরকার চাইবে না, ততোদিন নির্বাচনও হবে না।

নির্বাচন কমিশন জানায়, তিন বছর আগেই ডিসিসি নির্বাচনের মেয়াদ পেরিয়ে গেছে। আগামী এপ্রিল মাসে নির্বাচনের উদ্যোগ নেওয়া হতে পারে। মূলত সরকারদলীয় প্রার্থীর সুবিধার্থেই সরকারের পক্ষ থেকে এ উদ্যোগটি নেওয়া হয়ে থাকত পারে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

নির্বাচনী আইনে উল্লেখ আছে, কোনো প্রার্থী বা দলের সুবিধা-অসুবিধা চিন্তা করে নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণের চেষ্টা করা হলে তা আইন পরিপন্থি কাজ হিসেবে গণ্য হবে। মেয়াদ শেষ হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যেই সব স্থানীয় সরকার সংস্থার নির্বাচন হতে হবে। বড় ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছাড়া নির্বাচন পেছানোর বিধান নেই।

অবশ্য এর আগেও মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পর ডিসিসি নির্বাচন হওয়ার নজির রয়েছে। এ সময়ের মেয়র সাদেক হোসেন খোকার মতো প্রয়াত মেয়র মোহাম্মদ হানিফও আট বছর এই পদে বহাল ছিলেন।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে মেয়াদোত্তীর্ণ অন্যান্য সিটি করপোরেশনের নির্বাচন হলেও ডিসিসির নির্বাচন হয়নি।

এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন অনেক আগেই প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। কিন্তু সরকারের সম্মতি না থাকায় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করতে পারছে না।

সূত্র জানায়, এর আগে কয়েক দফা নির্বাচনের সম্ভাব্য সময় ঘোষণা করেও পেছানোর পর সর্বশেষ নির্বাচন কমিশন বলেছিল চলতি বছরের ডিসেম্বরে নির্বাচন হবে। এরপর রাজনৈতিক দলগুলো প্রার্থী বাছাইয়ের কাজও শুরু করে। কিন্তু গত ১৩ অক্টোবর স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রীর সংস্থাপন বিষয়ক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ড. এটিএম শামসুল হুদার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ডিসিসি নির্বাচন বিষয়ে সরকারের মনোভাব জানান।

ডিসিসি নির্বাচন সম্পর্কে উপ-নির্বাচন কমিশনার বিশ্বাস লুৎফর রহমান বলেন, ‘এরই মধ্যে ভোটার তালিকাসহ নির্বাচন আয়োজনের জন্য প্রয়োজনীয় সবকিছুর ব্যবস্থা করা হয়েছে। এখন কেবল সরকারের নির্দেশ পেলে নির্বাচন দেওয়া সম্ভব।’

বাংলাদেশ সময়: ১১৫০ ঘণ্টা, ০২ ডিসেম্বর, ২০১০

ksrm
নিউইয়র্ক পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
দেবীগঞ্জে কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ
রাবির শিক্ষার্থী রাজু নিখোঁজ
বেনজেমার গোলে কষ্টার্জিত জয় পেল রিয়াল মাদ্রিদ
আগরতলায় চট্টগ্রামের শিল্পীদের আঁকা ছবির প্রদর্শনী


পা দিয়ে ছবি এঁকে জাতীয় প্রতিযোগিতায় মোনায়েম
আটকের পর টিনুর বাসায় র‍্যাবের অভিযান, অস্ত্র-গুলি উদ্ধার
দশজন নিয়ে অ্যাস্টোন ভিলাকে হারালো আর্সেনাল
বরিশালে জুয়ার আসর থেকে আটক ৮
রেকর্ড গড়ার ম্যাচে চেলসিকে হারালো লিভারপুল