ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৭ কার্তিক ১৪২৭, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

লাইফস্টাইল

করপোরেট দুনিয়া ছেড়ে তাঁতের শাড়িতে পরিচিত নিগার

লাইফস্টাইল ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৯৪৭ ঘণ্টা, মার্চ ৮, ২০২০
করপোরেট দুনিয়া ছেড়ে তাঁতের শাড়িতে পরিচিত নিগার নিগার ফাতেমা।

আমার  নাম   নিগার ফাতেমা।  আমি  ঢাকায় বড় হয়েছি। আমার  পরিচয়  আমি একজন দেশীয় পণ্যের উদ্যোক্তা।

আমার বরাবরই বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি বিষয় নিয়ে আগ্রহ ছিল আর সেই  ইচ্ছা অনুযায়ী আমি ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং সাবজেক্ট নিয়ে অনার্স এবং মাস্টার্স করেছি একটি স্বনামধন্য প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে। স্বপ্ন ছিল করপোরেট জগতে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার।

আমি চাকরি করেছিলাম অস্ট্রেলিয়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের গণিত বিভাগের শিক্ষিকা হয়ে। পরবর্তীতে নেসলে বাংলাদেশ লিমিটেড কোম্পানিতে চাকরি করেছি।  

স্বপ্ন গড়ার পথে থাকতেই  আমি কন্যা সন্তানের জননী হই। সংসার এবং সন্তানকে সময় দিতে গিয়ে নিজের স্বপ্ন গড়ার পথ থেকে পেছনে চলে আসি কিন্তু মনের একটি কোনায় লুকিয়ে ছিল কিছুও হবার স্বপ্ন। ২০১৭ এর শেষের দিকে যৌথভাবে একটি অনলাইন পেইজ দিয়ে শুরু করি আমার উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প।

আমার যাত্রার শুরুতে পারিবারিকভাবে খুব বেশি সাপোর্ট পাইনি, কারণ  ঘরে বসে আয় করা সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য ছিল না। আমি খুব ধীর গতিতে আগাচ্ছিলাম। মূলত আমার কাস্টমার ছিল আমার পরিবার এবং বন্ধুদের মধ্যে। এক সময় মনে হলো নিজের স্বপ্ন নিজেই গড়ি এবং তাই নিজের পেইজ আরিয়াস কালেকশন নিয়ে শুরু করলাম আমার নিজের একান্ত যাত্রা। দেশীয় ঐতিহ্যবাহী টাঙ্গাইল শাড়ি নিয়ে আমার কাজ। যদিও আমাকে অনেকের প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছিল কেন দেশীয় পণ্য নিয়ে কাজ করছি? এই প্রশ্নের উত্তর সকলকে বুঝাতে কষ্ট হলেও নিজে একজন উদ্যোক্তা হয়ে বুঝতে পেরেছিলাম টাঙ্গাইল শাড়ি নিয়ে আমার জানা আছে অনেক এবং এই পণ্যের প্রতি আমার আগ্রহ এবং ভালোবাসা রয়েছে। আর এই ভালোবাসা জন্মায় ছোটবেলা আম্মার কাছ থেকে। আর তাই কাজের প্রতিটি স্তরে শক্ত মনোবলের সঙ্গে এগিয়ে যেতে পেরেছি।  

টাঙ্গাইলের খেস শাড়ি, তাঁতের শাড়ি, হাফ সিল্ক, জুম, চুমকি ও মাসলাইস শাড়ি নিয়ে কাজ করি। সফলতার ঝুঁড়ি ক্রমাগত বাড়ছে। আমার স্বপ্নের গণ্ডি ছিল নিজেকে নিয়ে এখন স্বপ্ন দেখি বাংলাদেশের ই-কমার্স ইন্ডাস্ট্রি আরও শক্ত হবে।

আমি আজ বিশ্বাস করি একজন ই-কমার্স ইন্ডাস্ট্রির  উদ্যোক্তাই  পারেন নিজের প্রতিভা এবং বুদ্ধি কাজে লাগিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে। আর তাই আমার ছোট ছোট স্বপ্নগুলো বাস্তবায়ন করতে আমি প্রতিনিয়তই চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমার স্বপ্ন বাংলাদেশের প্রতিটি জেলার মানুষ  টাঙ্গাইলের সকল প্রকারের শাড়ি চিনবে। তের পার্বণে আনন্দ উদযাপন করতে টাঙ্গাইল শাড়িকেই বেছে নেবে। স্বপ্ন দেখি বিশ্ব বাজারের চাহিদা মেটাতে আরিয়াস কালেকশন এগিয়ে যাবে নতুনভাবে।  

বাংলাদেশ সময়: ০৯৪৬ ঘণ্টা, মার্চ ০৮, ২০২০
এসআইএস 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa