হাসিতে সুখ-সুস্থতা

লাইফস্টাইল ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

হাসিতে সুখ-সুস্থতা

সুন্দর হাসি দিয়ে খুব সহজে সবার মন জয় করে নেয়া যায়। তেমনি সুস্থ থাকতেও প্রয়োজন প্রাণ খোলাহাসি। 

কারণ, হার্ট সুস্থ রাখতে হাসিকে বলা হয় মহৌষধ। হাসি সংক্রামক। একজনকে হাসতে দেখলে অন্যদেরও হাসি পায়। ফলে সবার মনই ভালো থাকে আর চারপাশের পরিবেশও হয়ে যায় উচ্ছল-প্রাণবন্ত। ফলে নিজেকে সুখী মনে হয়। 

সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, মানুষ সাধারণত প্রাণখোলা হাসির প্রতি বেশি সাড়া দেয়। হাসি আমাদের স্মৃতিশক্তি বাড়াতেও সাহায্য করে। এছাড়া হাসার সময় আমাদের মুখের অনেকগুলো মাসল কাজ করার ফলে রক্ত সঞ্চালন বেশি হয় এবং এর ফলে মুখের ত্বক উজ্জ্বল হয়। হাসলে মানসিক চাপ কমে। 

লাইভ সাইন্সের তথ্য অনুযায়ী, চাপা হাসি বা মুচকি হাসির ক্ষেত্রে কণ্ঠনালী অনুরণিত হয় না, কারণ এরকম হাসির সময় নিঃশ্বাস নাক দিয়ে বের হয়ে যায়।

মনোবিজ্ঞানী ড. ডানিয়েল কারলেট বলেছেন, শুধু রসিকতার ক্ষেত্রেই নয়, হাসি সমাজে পারস্পরিক মিথষ্ক্রিয়ার ক্ষেত্রেও খুবই ইতিবাচক।    

তাই মনকে প্রফুল্ল রাখতে সব সময় হাসুন। হাসি যেমন আপনার হার্ট ভালো রাখবে, তেমনি পারস্পরিক সম্পর্ক অটুট রাখবে। 

আজকাল সুস্থ থাকতে লাফিং-ক্লাব খোলা হচ্ছে, প্রায়ই সকালে পার্কে প্রাত ভ্রমণে এসে বয়স্কদের দল বেঁধে হাসতে দেখা যায়। এই দলে যোগ দিতে পারেন তরুণরাও। 

তবে সাবধান, হাসি দিয়ে যেমন সবার মন জয় করা যায়, তেমনি এমনভাবে হাসা যাবে না যা কাউকে ছোট করতে পারে বা ‍তাচ্ছিল্য করা বোঝাবে। 
 

টিবি হাসপাতালে রোগী বৃদ্ধির সঙ্গে বাড়ছে অব্যবস্থাপনা
বাগেরহাটে ছুরিকাঘাতে কিশোর নিহত
ভোটগ্রহণের ৫ ঘণ্টা আগে স্থগিত নাইজেরিয়ার নির্বাচন
সেই গাপটিলেই আটকে গেলেন মাশরাফিরা
খুলনায় মাদক বিক্রেতাসহ গ্রেফতার ৯৪


আত্মসমর্পণে প্রস্তুত ১০২ ইয়াবা কারবারি
বিশ্ব ইজতেমা: চলছে হেদায়েতি বয়ান
বিশ্ব ইজতেমা: ময়দানমুখী জনস্রোত
যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ৫
প্রস্তুত মঞ্চ, এখন শুধু আত্মসমর্পণের পালা