শ্রীরাম চন্দ্র : ইন্ডিয়ান আইডল ফাইভ

31 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

‘হাম রাহে ইয়া না রাহে কাল, কাল ইয়াদ আয়েঙ্গে ইয়ে পাল...’ এই টাইটেল গান দিয়ে সনি টেলিভিশনে ২০০৫ সালে শুরু হয় প্রথম ‘ইন্ডিয়ান আইডল’। ভারতীয় স্যাটেলাইটের ইতিহাসের সবচেয়ে জনপ্রিয় ট্যালেন্ট হান্ট রিয়েলিটি শো ইন্ডিয়ান আইডল।

php glass

‘হাম রাহে ইয়া না রাহে কাল, কাল ইয়াদ আয়েঙ্গে ইয়ে পাল...’ এই টাইটেল গান দিয়ে সনি টেলিভিশনে ২০০৫ সালে শুরু হয় প্রথম ‘ইন্ডিয়ান আইডল’। ভারতীয় স্যাটেলাইটের ইতিহাসের সবচেয়ে জনপ্রিয় ট্যালেন্ট হান্ট রিয়েলিটি শো ইন্ডিয়ান আইডল। আমেরিকান আইডলের অনুকরণে তৈরি এই অনুষ্ঠানটি ভারতে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। ১৫ থেকে ৩০ বছর বয়সী প্রতিযোগীদের নিয়ে তৈরি এ অনুষ্ঠানটিকে ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় শিল্পী বাছাই অনুষ্ঠানও বলা যেতে পারে। কেননা ‘ইন্ডিয়ান আইডল’এর কিছু সময় পরে শুরু হওয়া ‘ফেম গুরুকুল’ নামের অনুষ্ঠানটি প্রথম পর্বের পরই বন্ধ হয়ে যায়। ইন্ডিয়ান আইডলের জনপ্রিয়তার কাছাকাছিও সেটি পৌছাতে পারেনি।

‘ইন্ডিয়ান আইডল’-এর প্রথম পর্বে অভিজিৎ সাওয়ান্ত, দ্বিতীয় পর্বে ইন্ডিয়ান সন্দ্বীপ আচারিয়া, তৃতীয় পর্বে বিজয়ী প্রশান্ত তামাং এবং চতুর্থ বছর প্রথম মেয়ে হিসেবে সুরভী দেববর্মা বিজয়ী হন। গত চার পর্বেও ব্যাপক সাফল্যের ধারাবাহিকতায়  আবারও সফল সমাপ্তি হয়েছে ‘ইন্ডিয়ান আইডল ফাইভ’-এর। হাজার হাজার প্রতিযোগী থেকে ১০০। সেখান থেকে ৪০, এরপর ১৬, অত:পর ১৩। এই ১৩ জন চূড়ান্ত প্রতিযোগীর মধ্য থেকে প্রতি সপ্তাহে একজন করে বিদায় নিয়ে শেষ পযর্ন্ত চলে আসে সেরা তিন। চরম উৎকণ্ঠা আর টানটান উত্তেজনায় গত ১৫ আগষ্ট রোববার মুম্বাইয়ের ফিল্মিস্তান স্টুডিওতে চূড়ান্ত পর্বে  ঘোষণা করা হয় ‘ইন্ডিয়ান আইডল ফাইভ’ এর বিজয়ীর নাম। তখন মঞ্চে উৎকণ্ঠার প্রহর গুনছিলেন সর্বশেষ তিন প্রতিযোগী শ্রীরাম, রাকেশ ও ভূমি ত্রিবেদী। ঠিক শেষ মুহূর্তে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি অমিতাভ বচ্চন ঘোষণা করলেন বিজয়ীর নাম।

হ্যাঁ, এবারের ইন্ডিয়ান আইডল ফাইভ হয়েছেন শ্রীরাম। এ কথাটি বিশ্বাস করতে শ্রীরামের কয়েক মুহূর্ত লাগে। হায়দরাবাদের ছেলে শ্রীরাম চন্দ্র তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, দেশের মানুষ আমাকে এত ভালোবাসে, আমি জানতাম না। সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। অনুষ্ঠানে অমিতাভ বচ্চন সহ আরও উপস্থিত ছিলেন ছিলেন কারিনা কাপুর, কৈলাস খের, রিচা শর্মা, আলিশা চিনয় ও শংকর মাহাদেবন। প্রতিযোগিতায় ২৪ বছর বয়সী শ্রীরামের প্রতিপ ছিলেন আগ্রার রাকেশ মাইনি ও বরোদার ভূমি ত্রিবেদি। এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার আগে শ্রীরাম কয়েকটি দক্ষিণী ছবিতে প্লে­ব্যাক করেছেন।

পুরস্কার হিসেবে শ্রীরাম পেয়েছেন নগদ পাঁচ লাখ টাকা, সনি বিএমজির সঙ্গে এক বছরের চুক্তি, একটি টাটা উইংগার গাড়ি। এ ছাড়া আরও পাবেন যশরাজ ফিল্মের ব্যানারের ছবিতে গান করার সুযোগ।

এবারের ইন্ডিয়ান আইডলে বিচারকের দায়িত্ব পালন করেছেন আনু মালিক, সুনিধি চৌহান ও সোলায়মান। এ নিয়ে পাঁচ পর্বেই আনু মালিক বিচারকার্য পরিচালনা করলেন। এক হিসেবে বলা যায় ইন্ডিয়ান আইডলের সবচেয়ে সফল বিচারক আনু মালিক। বাকি সবার বেলায়ই অদল বদল হয়েছে। প্রথম পর্বে আনু মালিকের সঙ্গে ছিলেন সনু নিগাম ও ফারাহ খান। দ্বিতীয় ও তৃতীয় বছরে বিচারক হিসেবে আনুর সঙ্গে ছিলেন জাভেদ আখতার, উদিত নারায়ণ ও আলিশা। সিজন চারে অর্থাৎ চতুর্থ বছরে আলিশার বদলে আসেন সোনালি বেন্দ্রে এবং উদিত নারায়ণের জায়গায় কৈলাশ খের। এবারের পর্বে আয়োজকরা শ্রেয়া ঘোশালকেও বিচারকের আসনে বসানোর চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু তিনি রাজি হননি।

ইন্ডিয়ান আইডল সিক্স-এর অপেক্ষায় শেষ হয় চলতি বছরের আয়োজন।

বাংলাদেশ স্থানীয় সময় : ২০৩০, আগস্ট ১৭, ২০১০

বগুড়ায় বসুন্ধরা ও কিং ব্র্যান্ড সিমেন্টের ইফতার মাহফিল
নীলফামারীতে মানবতাবিরোধী মামলার আসামি নূর গ্রেফতার
বাজেটে বিড়ির দাম কমানোর দাবি
 কবি হায়াৎ সাইফের প্রয়াণে স্মরণসভা
চুয়াডাঙ্গায় বাড়িতে ট্রাক ঢুকে গৃহকর্তা নিহত


ছত্তিশগড়ে জিপ-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৬
নতুন কর্মস্থলে যোগ দিলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী
ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে ৩ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে  মামলা
সাভারে সেপটিক ট্যাংকে পড়ে নারীর মৃত্যু
সহকারী শিক্ষকদের থেকেই পদোন্নতি দিয়ে প্রধান শিক্ষক