php glass

সাক্ষ্য দিতে আদালতে নুসরাতের দুই বান্ধবী 

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

নুসরাত জাহান রাফি।

walton

ফেনী: আদালতে সাক্ষ্য দিতে উপস্থিত হয়েছেন ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির দুই বান্ধবী ও সহপাঠী নিশাত সুলতানা ও নাসরিন সুলতানা ফূর্তি। সোমবার (০১ জুলাই) সকাল সাড়ে ১১টায় ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদের আদালতে তাদের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। 

প্রথমে নিশাত সুলতানার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। এরপর সাক্ষ্য দেবেন নাসরিন সুলতানা ফূর্তি। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও পাবলিক প্রসিকিউটর হাফেজ আহাম্মদ সাংবাদিকদের জানান, সাক্ষ্যগ্রহণের তৃতীয়দিন আদালতের কাঠগড়ায় এ মামলার ১৬ আসামিকে হাজির করা হয়েছে। 

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) মামলার বাদী নুসরাতের বড় ভাই মাহমুদুল হাসান নোমানকে জেরা করেন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা। যা শেষ হয় রোববার (৩০ জুন)।

বাদীপক্ষের আইনজীবী শাহজাহান সাজু বলেন, সহপাঠী নিশাত সুলতানাকে মারধর করা হচ্ছে- এমন খবর দিলে মাদ্রাসার ছাদে যান নুসরাত। পরে তার শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। আর আরেক সহপাঠী নাসরিন সুলতানা ফূর্তিকেও যৌন হয়রানি করেছে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ-দৌলা। 

এর আগে গত ২৭ জুন অভিযোগ গঠনের ছয়দিনের মাথায় ৯২ জন সাক্ষীর মধ্যে বাদীপক্ষের তিনজন সাক্ষীকে আদালতে তাদের সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য উপস্থাপন করা হয়। ২০জুন সাক্ষ্যগ্রহণের এই আদেশ দেন আদালত। 

এ মামলার চার্জশিট জমা দেওয়ার আগে সাতজন সাক্ষী আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

গত ৬ এপ্রিল ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় আলিম পরীক্ষা কেন্দ্রে গেলে নুসরাতকে ছাদে ডেকে নিয়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। 

মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার বিরুদ্ধে করা শ্লীলতহানির মামলা তুলে না নেওয়ায় তাকে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে; যা মৃত্যুশয্যায় নুসরাত বলে গেছেন। ১০ এপ্রিল ঢাকার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নুসরাতের মৃত্যু হয়।

পরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) ফেনীর পরিদর্শক মো. শাহ আলম আদালতে মোট ১৬ জনকে আসামি করে অভিযোগপত্র জমা  দেন।

অভিযোগপত্রের ১৬ আসামি হলেন- মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলা, নূর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন শামীম, সোনাগাজীর পৌর কাউন্সিলর মাকসুদ আলম, সাইফুর রহমান মোহাম্মদ জোবায়ের, জাবেদ হোসেন ওরফে সাখাওয়াত হোসেন জাবেদ, হাফেজ আব্দুল কাদের, আবছার উদ্দিন, কামরুন নাহার মনি, উম্মে সুলতানা ওরফে পপি ওরফে তুহিন ওরফে শম্পা ওরফে চম্পা, আব্দুর রহিম শরীফ, ইফতেখার উদ্দিন রানা, ইমরান হোসেন ওরফে মামুন, মোহাম্মদ শামীম, মাদ্রাসার গভর্নিং বডির সহ সভাপতি রুহুল আমীন ও মহিউদ্দিন শাকিল। 

এ মামলায় মোট ২১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। তদন্তে সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় অন্য পাঁচজনকে অব্যাহতি দেওয়ার সুপারিশ করে পিবিআই। আদালত তা অনুমোদন করে।

এ ঘটনায় তিন পুলিশ সদস্যের দায়িত্বে অবহেলার প্রমাণ মিলেছে। 

এছাড়া যৌন হয়রানির মামলার পর নুসরাতের জবানবন্দি গ্রহণের সময় তার ভিডিও ধারণ করে তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে সাইবার আইনে মামলা হওয়ার পর সোনাগাজী থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বর্তমানে তিনি কারাগারে। 

বাংলাদেশ সময়: ১২৫৪ ঘণ্টা, জুন ৩০, ২০১৯
এসএইচডি/এমএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: নুসরাত হত্যা
৩ বছরে ২৫ হাজার ‘ডিজিটাল ল্যাব’ প্রতিষ্ঠা করা হবে: পলক
সিলেটে খালিদ হত্যায় ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা
আমি কখনও ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খুলিনি: মির্জা ফখরুল
ফিলিস্তিনি বাড়িঘর ধ্বংসে বাংলাদেশের নিন্দা
‘বাচ্চাদের কোনোমতে পান্তাভাত দিয়ে ভুলিয়ে রেখেছি’


শাহজালাল (র.) এর ওরস, ৭শ’ বছরের ইতিহাস
রুপগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩
চট্টগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২
রাজধানীর খামারবাড়িতে বোমা সদৃশ বস্তুর সন্ধান
প্রিয়া সাহা ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান জানান মিলার