php glass

ছেলেকে ‘ফিরে পাওয়ার’ শর্ত দিলেন মীর কাসেম

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

ছেলে ব্যারিস্টার মীর আহমেদ বিন কাসেমকে ‘ফিরে পাওয়ার’ পর তার সঙ্গে কথা বলে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়েছেন মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলী

গাজীপুর: ছেলে ব্যারিস্টার মীর আহমেদ বিন কাসেমকে ‘ফিরে পাওয়ার’ পর তার সঙ্গে কথা বলে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়েছেন মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলী। কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এ তার সঙ্গে কথা বলে এসে এ কথা জানান মীর কাসেমের স্ত্রী খোন্দকার আয়শা খাতুন।   

এ কারাগারের কনডেম সেলে বন্দি আছেন দেশের শীর্ষ এই যুদ্ধাপরাধী।

বুধবার (৩১ আগস্ট) দুপুর পৌনে তিনটার দিকে কারাগারের গেটে আসেন মীর কাসেমের পরিবারের দশজন সদস্য। পরে কারা কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করেন তারা।

মীর কাসেমের স্ত্রী খোন্দকার আয়শা খাতুন ছাড়াও দুই  মেয়ে সুমাইয়া রাবেয়া ও তাহেরা তাসনিম, দুই পুত্রবধূ শাহেদা তাহমিদা ও তহমিনা আক্তার এবং ভাতিজা মো. হাসান জামান খানসহ এ দলে ছিল নাতনিসহ চারজন শিশু।

প্রায় সোয়া এক ঘণ্টা সাক্ষাত শেষে চারটার দিকে কারাগারের বাইরে বের হয়ে আসেন তারা।

কারাগেটে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন খোন্দকার আয়শা খাতুন। তিনি দাবি করেন, ‘আমাদের ছেলে ব্যারিস্টার মীর আহমেদ বিন কাসেম ‘নিখোঁজ’ আছেন। তাকে ২০-২২ দিন আগে ‘সাদা পোশাকধারী লোকজন ধরে নিয়ে যায়’। এরপর থেকে আমাদের ছেলে ‘নিখোঁজ’ রয়েছেন। আমার স্বামী মীর কাসেম আলী বলেছেন, ছেলে ‘ফিরে না পাওয়া’ পর্যন্ত তিনি কোনো সিদ্ধান্ত নেবেন না। তিনি শুধু আমাদের ছেলেই নন, আইনজীবীও। তাই ছেলে ‘ফিরে এলে’ তার সঙ্গে কথা বলেই প্রাণভিক্ষা চাইবেন কি-না, সে সিদ্ধান্ত নেবেন’।

ছেলেকে ‘কাছে পাওয়াই’ এখন তাদের একমাত্র লক্ষ্য বলেও দাবি করেন মীর কাসেমের স্ত্রী।   

আয়েশা খাতুন সাংবাদিকদের বলেন, ‘মীর কাসেম আলী রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার ব্যাপারে পরামর্শের জন্য তার ছেলে ও আইনজীবী ব্যারিস্টার মীর আহমেদ বিন কাসেমের অপেক্ষায় আছেন। রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার ব্যাপারে মীর আহমেদ বিন কাসেমের সঙ্গে আলোচনা করা খুবই দরকার। আমরা ছেলের অপেক্ষায় আছি। তাকে ‘ফিরে পেলে’ প্রাণভিক্ষার ব্যাপারে পরামর্শ করে তা জানানো হবে’।

বুধবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ফাঁসি বহাল রেখে রিভিউ মামলার পূর্ণাঙ্গ রায় কাশিমপুর কারাগারের ভেতর পড়ে শোনানো হয় মীর কাসেম আলীকে। এ সময় প্রাণভিক্ষার ব্যাপারে জানতে চাইলে, তিনি ভাবার জন্য কিছু সময় চান।

এরপর মীর কাসেম আলীর সঙ্গে দেখা করতে কারাগারে যান তার পরিবারের সদস্যরা। রাষ্ট্রপতির কাছে মীর কাসেমের প্রাণভিক্ষা চাওয়ার বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত নিতে এ সাক্ষাত করেন তারা।

কাশিমপুর কারাগার-২ এর জেলার নাসির আহমেদ জানান, ‘মীর কাসেম আলীর পরিবারের সদস্যদের কারা কর্তৃপক্ষ ডাকেনি। তারা স্বেচ্ছায় কারাগারে এসেছেন। শুনেছি, রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাওয়া না চাওয়ার বিষয়ে মীর কাসেমের সঙ্গে কথা বলেন তারা’।

জেলার জানান, বুধবার দুপুরে মীর কাসেমের পরিবারের শিশুসহ ১০ সদস্য তার সঙ্গে দেখা করতে কারাগারে আসেন। পরে সাক্ষাতের জন্য আবেদন জানালে কারাগারের ভেতর একটি কক্ষে তাদের সাক্ষাতের সুযোগ দেওয়া হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৩ ঘণ্টা, আগস্ট ৩১, ২০১৬
এএসআর

‘ফেনী নদী থেকে পানি তুললে বাংলাদেশ অংশে ক্ষতি হবে না’
‘অ্যাভেঞ্জার্স: এন্ডগেম’র চেয়েও জনপ্রিয় ‘কবির সিং’!
আসাম-ত্রিপুরায় বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ
আশুগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা
রশিদ খানের জায়গায় আবারও আসগর


চুনারুঘাটে সাহিত্য-সংস্কৃতি উৎসব শুরু ১৭ ডিসেম্বর
শফিউল্লাহর মৃত্যুতে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীর শোক
‘ভাই আমাকে বাঁচান, আমি পুড়ে শেষ হয়ে যাচ্ছি’
কেরানীগঞ্জে অগ্নিকাণ্ড: অনুমোদন ছিল না ওই কারখানার
এবি ব্যাংকের অর্থ আত্মসাৎ: নাজিম উদ্দিনের জামিন বাতিলে রুল