বাংলাদেশিদের ফিরতে সহায়তা করবে দূতাবাস, রাজ্যে আক্রান্ত ১৫

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কলকাতায় অবস্থিত বাংলাদেশ উপ-দূতাবাস

walton

কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গে আরও পাঁচজন করোনা আক্রান্ত হলেন শুক্রবার (২৭ মার্চ)। রাজ্যে একদিনে এটিই সর্বোচ্চ করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। আক্রান্ত হওয়া পাঁচজনের মধ্যে রয়েছে একজন এগারো বছরের বালক, বাকি চারজনই নারী। এদের মধ্যে একটি নয় মাসের শিশুকন্যার দেহেও মিলেছে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ।

ফলে রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ১৫ জনে এবং একজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া আক্রান্তর মধ্যে আরও একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। ভারতজুড়ে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত ২১ দিনের লকডাউন চলছে।

কলকাতায় অবস্থিত বাংলাদেশ উপ-দূতাবাস থেকে জানানো হয়েছে, অনেক বাংলাদেশি কলকাতাসহ ভারতের বিভিন্ন জায়গায় আটকে আছেন। তারা বাংলাদেশে ফিরতে চান। অনেকেই সংশ্লিষ্ট এলাকার বাংলাদেশ দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে কলকাতায় অবস্থিত বাংলাদেশ উপ-দূতাবাসের প্রথম সচিব (প্রেস) ড. মোফাকখারুল ইকবাল জানান, কলকাতায় অবস্থানরত বাংলাদেশিরা দেশে ফিরতে চাইলে তাদের সহযোগিতা করবে দূতাবাস। এ বিষয়টি একটি মিটিংয়ে আলোচনা হয়েছে।

প্রয়োজনে বর্ডার পর্যন্ত পৌঁছে ভারতীয় সীমান্ত পার করে দেবেন দূতাবাসের কর্মকর্তারা। তবে উপ-দূতাবাসের সঙ্গে নির্দিষ্ট বিষয়বস্তু নিয়ে যোগাযোগ করতে হবে। এ দূতাবাসের পক্ষে কনস্যুলার বিভাগ থেকে সম্পূর্ণ বিষয়টা দেখভাল করছেন শেখ শাফিন।

সবশেষ তথ্য অনুযায়ী পশ্চিমবঙ্গের ১৫ জনসহ ভারতে ৭৩০ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৬৬ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন এবং ১৮ জন মারা গেছেন। অন্যদিকে, নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়িয়ে ১৪ এপ্রিল করেছে ভারত। এর আগে ৩১ মার্চ পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল।

বাংলাদেশ সময়: ০৫১২ ঘণ্টা, মার্চ ২৭, ২০২০
ভিএস/ওএইচ/

Nagad
সোনাইমুড়ীতে চাঁদাবাজির প্রতিবাদ করায় আ'লীগ নেতাকে গুলি
ঘরের মাঠে ফিরেই জয় পেল চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল
গুলশানে ট্রাক চাপায় বাইসাইকেল চালকের মৃত্যু
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়
করোনায় মারা গেলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক ডিজি


করোনায় মারা গেলেন ফেনীর সাংবাদিকতার বাতিঘর করিম মজুমদার
অক্সিমিটারসহ ১০০ অক্সিজেন  সিলিন্ডার দিল সাইফ পাওয়ারটেক
বগুড়ায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ৩ জনের মৃত্যু
ইয়াবা বিক্রি করতে এসে র‌্যাবের হাতে আটক
বর্ষাকালে ইচ্ছে আমার | শাহজাহান সিরাজ