php glass

প্যাকেটজাত আমদানিকৃত মাংস খাওয়া জায়েজ?

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি : প্রতীকী

walton

প্রশ্ন: আমি কাতার প্রবাসী। কাতারের হোটেলগুলোতে প্যাকেটজাত আমদানিকৃত মুরগীর মাংস খাওয়ানো হয়, যেগুলোর গায়ে (Product of Brazil) লেখা থাকে। দামে সস্তা হওয়ায় হোটেলকর্তৃপক্ষ এসব প্যাকেটের মাংস হোটেলগুলোতে পরিবেশন করে। জানার বিষয় হলো, এসব মাংস খাওয়া আমাদের জন্য জায়েজ হবে?

উত্তর: বিশ্বব্যাপী প্যাকেটজাত গোশতের ব্যাপক বাজার রয়েছে। বাংলাদেশে কম হলেও বিদেশে এর চাহিদা অনেক বেশি। সাধরণত মানুষ বিভিন্ন শপ থেকে প্যাকেটজাত গোশত কিনে খেয়ে থাকেন।

কিন্তু প্যাকেটজাত মাংসের ক্ষেত্রে—জন্তু হালাল কিনা, জন্তুর জবাইকারী মুসলিম নাকি অন্য ধর্মাবলম্বী, জন্তু জবাইয়ের সময় আল্লাহর নাম নেওয়া হয়েছে কিনা—এগুলো অজানা রয়ে যায়।

ইসলামী শরিয়তে হালাল জন্তুর বিবরণ দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জন্তু হালাল করার প্রক্রিয়াও বলে দিয়েছে। এজন্য প্যাকেটজাত মাংসের ব্যাপারে যদি জানা থাকে, এই মাংস শরিয়তসম্মত পদ্ধতিতে মুসলিমের হাতে জবাইকৃত হালাল প্রাণির মাংস, তাহলে সেই মাংসগুলো খেতে কোনো অসুবিধা নেই।

কিন্তু প্যাকেটকৃত মাংসের ব্যাপারে যদি নিশ্চিতভাবে জানা না যায়, এটা মুসলিম নাকি অন্য ধর্মাবলম্বীর জবাইকৃত জন্তুর মাংস, তাহলে এমন অবস্থায় প্যাকেটজাত মাংস না খাওয়া জরুরি।

আরো সংক্ষেপে বললে, যদি নিশ্চিতভাবে জানা যায় প্যাকেটজাত মাংস কোনো কাফের বা মুশরিকের জবাইকৃত জন্তুর, তাহলে এমন প্যাকেটজাত মাংস খাওয়া কোনোভাবেই বৈধ নয়।

অনুরূপভাবে কোনো মুসলমান বা প্রকৃত আহলে কিতাব (আসমানি কিতাবের অনুসারী) জবাই করে, কিন্তু শরিয়তসম্মত মাধ্যমে আল্লাহর নাম নিয়ে ধারালো চাকু বা এজাতীয় কিছু দিয়ে জবাই করা হয়নি; বরং মেশিনে বা এই জাতীয় কোনো পন্থায় আল্লাহর নাম নেওয়া ছাড়া জবাই করা হয়েছে, তাহলে এমন প্যাকেটজাত মাংসও খাওয়া জায়েজ হবে না।

উল্লেখ্য আহলে কিতাব (আসমানি কিতাবের অনুসারী) বলতে শুধু আদম শুমারিতে হলে হবে তা নয়। বরং বাস্তবে ইহুদি-খ্রিস্টান হলে এবং তারা আল্লাহর নামে হালার প্রাণী জবাই করলে সেই প্রাণির মাংস খাওয়া জায়েজ হবে।

কিন্তু বাস্তবতা হলো, বর্তমানে তারা প্রকৃত আহলে কিতাব নয়। তাই তাদের জবাইকৃত জন্তুর প্যাকেটজাত গোশত খাওয়ার ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন জরুরি।

আপনার প্রশ্নকৃত অবস্থায় এমন মাংস না খাওয়াই বাঞ্ছনীয় ও বাস্তবতানির্ভর। 

(তথ্যসূত্র: সুরা আনআম, আয়াত: ১২; বুখারি, হাদিস নং: ১/২৭৫; নিজামুল ফতাওয়া: ১/১৮৭; ফতোয়ায়ে রাহমানিয়া: ২/৩৮১)

প্রশ্নটি করেছেন: আতাউর রহমান, কাতার প্রবাসী।

ইসলাম বিভাগে জীবনঘনিষ্ঠ ও ইসলামবিষয়ক প্রশ্ন পাঠাতে মেইল করুন: [email protected]

বাংলাদেশ সময়: ২১১২ ঘণ্টা, মার্চ ২৭, ২০১৯
এমএমইউ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ইসলাম
তুরস্কের রুশ অস্ত্র কেনা নিয়ে দ্বিমতে ট্রাম্প-এরদোগান
সবার জান-মালের হেফাজত করা আমাদের কর্তব্য: শ ম রেজা
জেএসসির কেন্দ্রের পাশে ড্রাইভিং লাইসেন্সের পরীক্ষা!
সব স্থাপনা থেকে স্বাধীনতাবিরোধীদের নাম বদলের নির্দেশ
ফিফার নতুন দায়িত্বে ‘দ্য প্রফেসর’ ওয়েঙ্গার


ডায়াবেটিস আক্রান্তের জন্য ডায়েট
বগুড়ায় শিল্প যন্ত্রপাতি ও উৎপাদন সরঞ্জাম প্রদর্শনী
অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার তৈরি, ২ বেকারিকে জরিমানা
সিগন্যাল মানার গরজ নেই যানবাহন চালক ও পথচারীদের
চলন্ত বাসে হার্ট অ্যাটাকে চালকের মৃত্যু