php glass

ইসলামে নির্বাচনের স্বরূপ

ইসলাম ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি : প্রতীকী

walton

রাসুল (সা.) আল্লাহ কর্তৃক নির্বাচিত ছিলেন। তিনি ইসলামের সর্বপ্রথম রাষ্ট্রনায়ক। মহান আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে পরামর্শভিত্তিক যেকোনো ধরনের কাজ সুষ্ঠুভাবে আঞ্জাম দিতে বলেছেন। এক হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, তোমরা যদি তিনজনও থাকো তবে একজনকে আমির বা নেতা নির্বাচন করে নাও।

তিনি আরো বলেছেন, স্বেচ্ছায় নেতৃত্ব গ্রহণ করো না। তাহলে তোমার উপর আল্লাহর রহমত থাকবে না। আরেক হাদিসে বলেছেন, যে নেতার উপর তার জনগণ অসন্তুষ্ট, তার ধ্বংস হওয়ার জন্য এটাই যথেষ্ট। (সুনানে দারেমি, হাদিস নং : ২৫৩)

অন্য হাদিসে বলেন, নেতা হবার যোগ্য সেই, যে সবচেয়ে ভালো কোরআন জানে, তারপর হাদিস জানে এবং সর্বোপরি সে হয় চরিত্রবান। যার সমাজ গঠনে ভূমিকা বেশি, সে অগ্রগণ্য। যে প্রবীণ, সে অগ্রগণ্য।

ইসলামের প্রথম চার খলিফা গ্রহণযোগ্যভাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। কিন্তু তাদের পরে অপ্রত্যাশিতভাবে রাজতন্ত্র শুরু হয়।

রাসুল (সা.) এর মৃত্যুর পর জনগণ হযরত আবু বকর (রা.)-কে নির্বাচিত করেন। আবু বকর (রা.) এর মৃত্যুকালে তিনি হজরত ওমর (রা.)-কে মনোনীত করেন এবং জনগণের কাছ থেকে এ সম্পর্কে মতামত নেন। জনগণ তার সঙ্গে একমত হলে তিনি ওমর (রা.)-কে খিলাফতের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন।

মৃত্যুকালে হজরত ওমর (রা.)-কে পরবর্তী খলিফা মনোনীত করতে বলা হয়, তিনি ছয়জনের একটি তালিকা দেন এবং যোগ্য লোককে জনসমর্থনভিত্তিতে নির্বাচিত করতে বলেন। তখন একটি নির্বাচন কমিশনের মতো কাজ করেন, আব্দুর রহমান ইবনে আউফ (রা.)। তিনি অধিকাংশ জনগণের মতামতের ভিত্তিতে হজরত ওসমান (রা.)-কে খলিফা নির্বাচিত করেন।

ওসমান (রা.) এর শাহাদতের পর জনগণের অনুরোধে হজরত আলী (রা.) খিলাফতের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

এখনকার দিনের মতো তখন পাঁচ বছর পরপর নির্বাচন হতো না। বরং একজন খলিফার মৃত্যুর পরই অন্যজন দায়িত্ব গ্রহণ করতেন। ইসলামের মূলনীতি হলো, আল্লাহ তাআলা তার রাসুল (সা.) যা করতে নিষেধ করেননি এবং শরিয়তের কোনো বিষয়ের সঙ্গে তা কোনো বিরোধও রাখে না, তা বৈধ ও জায়েজ।

সে দৃষ্টিকোণ থেকে ইসলামী বিশেষজ্ঞদের অনেকেই মনে করেন, নেতা নির্বাচনের বর্তমান পদ্ধতি বৈধ ও গ্রহণযোগ্য।

তবে তারা বিভিন্ন গবেষণা করে কিছু কিছু দিক পরিবর্তন করার কথা বলেছেন। যেমন-
* যারা স্বপ্রণোদিতভাবে নেতা হতে চায়, তাদের পরিত্যাগ করা।
* জনগণ সমর্থিত ও গ্রহণযোগ্যদের বাছাই করে নেওয়া।
* রাষ্ট্র, সমাজ ও অন্যান্য দায়িত্ব পালন ও পরিচালনা একটি আমানত। এসব পরিচালনার জন্য লালায়িত হওয়া যাবে না। বরং দায়িত্ব এসে পড়লে সুচারুভাবে পালন করা জরুরি।
* নির্বাচনে ব্যয়বাহুল্যতা না রাখা। জনগণের ভোট গ্রহণের ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন সব ধরনের ব্যয়ভার বহন করা। কেউ নির্বাচিত হওয়ার জন্য অনর্থক ব্যয় না করা।
* শক্তিশালী বিচারব্যবস্থা থাকা। যাতে সরকারের যেকোনো অন্যায় পদক্ষেপকে চ্যালেঞ্জ করা যায় এবং সরকারি যেকোনো কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসা যায়।
* নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ ও সৎ হওয়া।
* প্রার্থী অবশ্যই ধর্মীয় ও জাগতিক শিক্ষায় শিক্ষিত হওয়া।
* সর্বোপরি জনগণ সৎ এবং যোগ্য লোককে নির্বাচন করা এবং সততা, ধর্মপরায়ণতা ও নিষ্ঠার মাপকাঠিতে জনগণও উত্তীর্ণ হওয়া।

ইসলাম বিভাগে লেখা পাঠাতে মেইল করুন: [email protected]
বাংলাদেশ সময়: ১২১২ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৪, ২০১৮
এমএমইউ/

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ইসলাম
ছেলেধরা সন্দেহে নারীকে গণপিটুনি, রক্ষা করতে পুলিশ আহত
চিকিৎসা সংকট: দেশের স্বাস্থ্যসেবা মূলত শহরকেন্দ্রিক
দেশীয় ব্যবসায়ীদের সম্ভাবনাময়ী বাজার আমাজন
৭ নারী ব্যবসায়ী উদ্যোক্তাকে পুরস্কৃত করলো কালারস
মাদক থেকে শিক্ষার্থীদের দূরে থাকার আহ্বান বিজিবি ডিজির


প্রিয়া সাহার অভিযোগে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে
মহাকবি কায়কোবাদের প্রয়াণ
ইতিহাসের এই দিনে

মহাকবি কায়কোবাদের প্রয়াণ

প্রিয়া সাহার অভিযোগ সম্পূর্ণ অসত্য: বিপ্লব বড়ুয়া
ছেলেধরা সন্দেহে নারী হত্যা, ৫০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা
জামালপুরে বন্যায় ২ শিশুসহ ৫ জনের মৃত্যু