মধ্য কলকাতার টিপু সুলতান মসজিদ

ভাস্কর সরদার, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

টিপু সুলতান শাহী মসজিদ। ছবি: বাংলানিউজ

কলকাতা: নাখোদা মসজিদের পর কলকাতায় একই নামে দুটি বিখ্যাত মসজিদ আছে। আসল নাম টিপু সুলতান শাহী মসজিদ। লোকমুখে টিপু সুলতান মসজিদ। কালের ইতিবৃত্তে বাদ পড়েছে ‘শাহী’ শব্দটি।

প্রথমটি মধ্য কলকাতার পার্কস্ট্রিট সংলগ্ন এসপ্ল্যানেড অঞ্চলে, দ্বিতীয়টি দক্ষিণ কলকাতার টালিগঞ্জে। প্রথম মসজিদটি কেবল ধর্মীয় কারণে নির্মিত হলেও দ্বিতীয়টি তা নয়। এটার সঙ্গে একটি মিউজিমায়ের পরিকল্পনাও ছিলো। যে মিউজিয়ামের নাম রাখা হয়েছিল ‘টাইগার অফ মহীশূর’।

ঐতিহাসিক এ দুটি মসজিদের নথি জোগাড় করা খুবই দুষ্কর। মসজিদের ইমাম-মুয়ায়াজ্জিনরাও পরিপূর্ণ ইতিহাস জানেন না।

গোলাম প্রিন্স শাহ (টিপু সুলতানের পরিবার) ট্রাস্টির তথ্য বলছে, টিপু সুলতানের ১১তম ও সবচেয়ে কনিষ্ঠ পুত্র মোহাম্মদ গোলাম প্রিন্স শাহ তার বাবা টিপু সুলতানের স্মরণে মসজিদটি দুটি নির্মাণ করেন। মধ্য কলকাতার এসপ্ল্যানেড অঞ্চলে ১৮৩২ খ্রিস্টাব্দে জমি কিনে প্রথম মসজিদটি নির্মাণ করেন তিনি। যা শেষ হয় ১৮৪২ সালে।

১৯৮০-র দশকে মাটির তলা দিয়ে কলকাতায় মেট্রোরেল নির্মাণের সময় মসজিদটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। মেরামত করার জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়। পরবর্তীতে মসজিদ সুরক্ষা ও কল্যাণ কমিটি এবং মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ যৌথভাবে মসজিদটিকে মেরামত করে।টিপু সুলতান শাহী মসজিদ। ছবি: বাংলানিউজএরপর ফের ২০০৪ সালে কলকাতার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া সুনামি ঝড়ে মসজিদটি আবারও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং মসজিদ কমিটিকে ২১ হাজার ৫শ’ ডলার কেন্দ্রীয় তহবিল থেকে সহযোগিতা করেন। বারবার ক্ষয়ক্ষতি ও মেরামতের ফলে মসজিদটির আসল স্থাপত্য ও সাংস্কৃতিক অবলুপ্তি ঘটে।

১০টি গম্বুজ ও ৪টি বড় মিনার ও ১২টি ছোট মিনার দ্বারা মসজিদটি নির্মিত। এ মসজিদে একসঙ্গে ১৫শ’ মানুষ নামাজ পড়েতে পারেন। মসজিদটিতে রমজান ও ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এটি কলকাতার স্থাপত্য ও সংস্কৃতিক ঐতিহ্যের একটি অন্যতম বড় নিদর্শন।

এ মসজিদের অপর বৈশিষ্ট্য হলো এর প্রাঙ্গণে বিভিন্ন জাতের কবুতরের দীর্ঘদিনের বসবাস। নামাজিরা নামাজে পর নিয়মিত কবুতরদের খেতে দেন। কেউ চাইলে গোটা রমজান এখানেই কাটাতে পারেন। বর্তমানে অনেকেই শুয়েবসে কোরান পাঠের মধ্য দিয়ে মসজিদ প্রাঙ্গণে দিন কাটাচ্ছেন। রমজান মাসে ব্যবস্থা থাকে ইফতারের। মসজিদটি নামাজ পরিচালনার জন্য একজন ইমাম ও মুয়াজ্জিন ছাড়াও দেখভালের জন্য রয়েছেন বেশ কয়েকজন।

বাংলাদেশ সময়: ১৭০৭ ঘণ্টা, জুন ০৫, ২০১৮
এমজেএফ

আগরতলায় অনুষ্ঠিত হলো বাউল উৎসব
সিরাজগঞ্জে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে অটোরিকশা চালক খুন
অধ্যাপক শ্যামল বড়ুয়া আর নেই
ভারতীয় হাইকমিশনারের সঙ্গে বৈঠক করবেন বি. চৌধুরী
সঞ্জীব চৌধুরীর মৃত্যু
ইতিহাসের এই দিনে

সঞ্জীব চৌধুরীর মৃত্যু

মালয়েশীয় অভিবাসন নীতির জটিলতায় ক্ষতিগ্রস্ত বাংলাদেশিরাই
রূপগঞ্জে কাভার্ডভ্যানের চাপায় নিহত একজন 
ভোট চাইতে হবে কেন: শামীম ওসমান
পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে বিশেষ বৈঠকে বসছে নির্বাচন কমিশন
সুন্দরগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস খাদে, আহত  ১০