পবিত্র শবেবরাত

আল্লাহর কাছে চাওয়ার রাত, তার দরবারে কাঁদার রাত

ইসলাম ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: সংগৃহীত

walton

হজরত মুয়াজ ইবনে জাবাল রাযিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘আল্লাহতায়ালা অর্ধ শাবানের রাতে (শাবানের চৌদ্দ তারিখ দিবাগত রাতে) সৃষ্টির দিকে (রহমতের) দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ পোষণকারী ব্যতিত সবাইকে ক্ষমা করে দেন।’

হজরত মুয়াজ ইবনে জাবাল রাযিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘আল্লাহতায়ালা অর্ধ শাবানের রাতে (শাবানের চৌদ্দ তারিখ দিবাগত রাতে) সৃষ্টির দিকে (রহমতের) দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ পোষণকারী ব্যতিত সবাইকে ক্ষমা করে দেন।’ -ইবনে হিব্বান, হাদিস- ৫৬৬৫

আরেক হাদিসে বলা হয়েছে, হজরত আলা ইবনুল হারিছ (রহ.) থেকে বর্ণিত, উম্মুল মুমিনীন হজরত আয়েশা (রা.) বলেন, একবার হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) রাতে নামাজে দাঁড়ালেন এবং এত দীর্ঘ সেজদা করলেন যে, আমার আশঙ্কা হলো- তার হয়তো ইন্তেকাল হয়ে গেছে। আমি তখন উঠে তার বৃদ্ধাঙ্গুলি নাড়া দিলাম। তার বৃদ্ধাঙ্গুলি নড়ল। যখন তিনি সেজদা থেকে উঠলেন এবং নামাজ শেষ করলেন তখন আমাকে লক্ষ করে বললেন, হে আয়েশা! অথবা বলেছেন, ও হুমায়রা! তোমার কি এই আশঙ্কা হয়েছে যে, আল্লাহর রাসূল তোমার হক নষ্ট করবেন? আমি উত্তরে বললাম, না, ইয়া রাসূলুল্লাহ! আপনার দীর্ঘ সেজদা থেকে আমার আশঙ্কা হয়েছিল, আপনি মৃত্যুবরণ করেছেন কি না। নবী (সা.) জিজ্ঞাসা করলেন, তুমি কি জান এটা কোন রাত? আমি বললাম, আল্লাহ ও তার রাসূলই ভালো জানেন। তিনি তখন বললেন, এটা হলো- অর্ধ শাবানের রাত। (শাবানের চৌদ্দ তারিখের দিবাগত রাত)। আল্লাহতায়ালা অর্ধ শাবানের রাতে তার বান্দাদের প্রতি রহমতের দৃষ্টি প্রদান করেন, ক্ষমা প্রার্থনাকারীদের ক্ষমা করেন এবং অনুগ্রহপ্রার্থীদের প্রতি অনুগ্রহ করেন। আর বিদ্বেষ পোষণকারীদের ছেড়ে দেন তাদের অবস্থাতেই। -শুআবুল ঈমান অধ্যায়, বায়হাকি- ৩/৩৮২,৩৮৩

এ রাতকে অন্য সব সাধারণ রাতের মতো মনে করা এবং এ রাতের ফজিলতের ব্যাপারে যত হাদিস এসেছে তার সবগুলোকে ‘মওজু’, ‘যয়িফ’- দূর্বল মনে করা যেমন ভুল; তেমনি এ রাতকে শবেকদরের মতো বা তার চেয়েও বেশি ফজিলতপূর্ণ মনে করাও একটি ভিত্তিহীন ধারণা। শবেবরাত নিয়ে বাড়াবাড়ি-ছাড়াছাড়ি কোনোটিই উচিত নয়। যতটুকু ফজিলত প্রমাণিত এ রাতকে ততটুকুই গুরুত্ব দেওয়া উচিত এবং এ কেন্দ্রিক সকল রসম-রেওয়াজ পরিহার করা উচিত।

শবেবরাতে আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে মোমিন-মুসলমানরা বিভিন্ন আমল করে থাকেন। আলেমরা শবেবরাতে যে সব আমলের কথা বিশেষভাবে বলেছেন, সেগুলো হলো—

নফল নামাজ : শবেবরাতের অন্যতম আমল হলো নফল নামাজ আদায় করা। তবে শবেবরাতের নফল নামাজের কোনো বাঁধাধরা নিয়ম নেই। অন্য সময়ের মতোই নফল নামাজ দুই রাকাত দুই রাকাত করে যত রাকাত ইচ্ছা এবং যে কোনো সূরা দ্বারা আদায় করতে পারবেন।

কোরআন তেলাওয়াত : শবেবরাতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করা। হাদিসে বলা হয়েছে কোরআন তেলাওয়াত হচ্ছে সর্বোত্তম জিকির। নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, লোহায় পানি লাগলে যেমন মরিচা পড়ে, তেমনি গুনাহ করতে করতে মানুষের অন্তরে কালো কাল দাগ পড়ে যায়। নবী (সা.)-এর এ উক্তি শ্রবণ করে সাহাবাদের মধ্য থেকে একজন আরজ করলেন, হে আল্লাহর রাসূল। কীভাবে অন্তরের সে দাগগুলো বিদূরিত করা হবে? উত্তরে তিনি (সা.) বললেন, মৃত্যুকে খুব বেশি করে স্মরণ করা আর কোরআন শরিফ তেলাওয়াত করা। এছাড়া কোরআন শরিফ তেলাওয়াতের সওয়াবও অসীম।

তওবা-ইস্তেগফার : শবেবরাতে জীবনের কৃত গোনাহের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করা। হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, নফসের প্রলোভনে ও শয়তানের ধোঁকায় পড়ে কোনো বান্দাহ গোনাহের কাজ করে ফেলার পর যদি আল্লাহর দরবারে লজ্জিত ও অনুতপ্ত হয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করে, তাহলে মহান আল্লাহ তাকে ক্ষমা করে দেন। ফলে সে এরূপ হয়ে যায়, যেন সে আদৌ কোনো পাপ করেনি। পবিত্র এ রাতে তাই আমাদের বেশি বেশি তওবা-ইস্তেগফার পড়তে হবে।

কবর জিয়ারত : কবরস্থানে গিয়ে মৃত আত্মীয়-স্বজনের কবর জিয়ারত করা এবং তাদের পরকালীন কল্যাণ কামনা করে দোয়া করা। হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) স্বয়ং এ আমল করেছেন। হজরত আয়েশা সিদ্দিকা (রা.)-এর সূত্রে বর্ণিত হাদিসে আমরা পাই যে, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) শবেবরাতে জান্নাতুল বাকি নামক কবরস্থানে তাশরিফ নিয়ে মৃতদের মাগফিরাতের জন্য দোয়া করেছেন।

হজরত আয়েশা সিদ্দিকা (রা.) ও হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, তারা উভয় বলেন, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, যদি এমন কোনো ব্যক্তি মৃতের কবরের পাশে উপস্থিত হয় (যার সঙ্গে মৃতের জীবিত থাকা অবস্থায় পরিচয় ছিল) এবং তাকে সালাম জানায় তাহলে মৃত ব্যক্তি তখনও তাকে চিনতে পারে এবং তার সালামের উত্তর দিয়ে থাকে। এমনকি দুনিয়ায় তার সঙ্গে পরিচয় না থেকে থাকলেও তার এ জিয়ারতে মৃত সন্তুষ্ট হয়।

হাদিসের ভাষ্যমতে এটা স্পষ্ট যে, আজকের রাত হচ্ছে আল্লাহর কাছে পাওয়ার রাত, চাওয়ার রাত। এ রাত হচ্ছে আল্লাহর দরবারে কাঁদার রাত। এ রাতে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন গোনাহ মাফ করার জন্য প্রস্তুত থাকেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৪৩ ঘন্টা, মে ২২, ২০১৬
এমএ/
** পবিত্র শবে বরাত: ইবাদত-বন্দেগি ও তওবার রাত

Nagad
‘করোনা অনুপ্রবেশকারীদের চেনার সুযোগ করে দিয়েছে’
শূন্য ১৮০ পদ, বন্ধের পথে রেলওয়ের অপারেশন কার্যক্রম
আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার শেখ হাসিনা
পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত আত্মঘাতী
ঢাকায় ৭ জুলাই থেকে ফ্লাইট চালাবে মালিন্দ এয়ার


দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ষসেরা ক্রিকেটার ডি কক
কাউকেই অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে হবে না: সচিব
ডিএসইর চেয়ে বেশি লেনদেন সিএসইতে
সৈয়দপুরে করোনায় আরও একজনের মৃত্যু
না’গঞ্জে করোনায় মারা যাওয়া মুক্তিযোদ্ধার দাফনে খোরশেদ