ঢাকা, বুধবার, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, ১২ আগস্ট ২০২০, ২১ জিলহজ ১৪৪১

আন্তর্জাতিক

আটলান্টায় পুলিশের গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গ তরুণের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩২৬ ঘণ্টা, জুন ১৪, ২০২০
আটলান্টায় পুলিশের গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গ তরুণের মৃত্যু ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের আটলান্টা শহরে পুলিশের গুলিতে একজন কৃষ্ণাঙ্গ তরুণ নিহত হয়েছেন। এ ঘটনার পর ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু হলে নগরীর পুলিশ প্রধান পদত্যাগ করেন।

রোববার (১৪ জুন) আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি, রয়টার্স এ তথ্য জানায়।

শুক্রবার (১২ জুন) রাতে একটি ফাস্ট ফুড রেস্তোরাঁর কাছে পুলিশের গুলিতে ২৭ বছর বয়সী রেশার্ড ব্রুকস নিহত হন।

এ ঘটনার পর শনিবার আটলান্টার প্রধান একটি মহাসড়ক ‘ইন্টারস্টেট-৭৫’ বন্ধ করে দেন বিক্ষোভকারীরা ও ফাস্টফুড চেইন ওয়েন্ডিসের ওই রেস্তোরাঁটিতে আগুন ধরিয়ে দেন।

আটলান্টার মেয়র কেইশা ল্যান্স বটমস জানান, শনিবার (১৩ জুন) নগরীর পুলিশ প্রধান এরিকা শিল্ডস পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন।

২০১৬ সাল থেকে এ নগরীর পুলিশ প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন এরিকা এবং ২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে আটলান্টা পুলিশ বিভাগে কাজ করছেন। এবার পুলিশ বিভাগেই অন্য দায়িত্ব পালন করবেন তিনি।

গত ২৫ মে মিনিয়াপোলিসে এক শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্মকর্তার হাতে কৃষ্ণাঙ্গ মার্কিন নাগরিক জর্জ ফ্লয়েড নিহত হন। এ ঘটনার প্রতিবাদে তিন সপ্তাহ ধরে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে পুলিশি সহিংসতা ও বর্ণ বৈষম্যের বিরুদ্ধে ব্যাপক বিক্ষোভ চলছে। এ পরিস্থিতিতে নতুন করে পুলিশের গুলিতে আরেক কৃষ্ণাঙ্গ নিহত হলেন।

ব্রুকসের মৃত্যুর বিষয়টি তদন্ত করছে জর্জিয়া ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন্স (জিবিআই)। ওয়েন্ডিস রেস্তোরাঁর সিকিউরিটি ক্যামেরার ভিডিও এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের ধারণ করা ভিডিওর বরাত দিয়ে জিবিআই জানায়, ওয়েন্ডিস রেস্তোরাঁর সামনে গাড়ির লাইনে অপেক্ষা করার সময় গাড়িতেই ঘুমিয়ে পড়েন ব্রুকস। অভিযোগ পেয়ে পুলিশ সেখানে যায়। অ্যালকোহল পরীক্ষায় ব্যর্থ হওয়ায় তাকে গ্রেফতার করতে উদ্যত হয় পুলিশ এবং তিনি বাধা দেন।

সেসময় পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন ব্রুকস এবং পুলিশ তার পিছু নেয়। পরে তিনি এক পুলিশ কর্মকর্তার দিকে একটি টেজার (বৈদ্যুতিক অস্ত্র) তাক করেন। তখন ওই পুলিশ কর্মকর্তা গুলি ছুড়লে ব্রুকস গুলিবিদ্ধ হন।

একজন প্রত্যক্ষদর্শীর ধারণ করা এক ভিডিওতে দেখা গেছে, ওয়েন্ডিস রেস্তোরাঁর সামনে দুই পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে ধস্তাধস্তি করছেন ব্রুকস। তখন এক পুলিশ কর্মকর্তার টেজার ছিনিয়ে নেন তিনি এবং নিজেকে তাদের হাত থেকে মুক্ত করেন। সেসময় অন্য পুলিশ কর্মকর্তা তার ওপর টেজার ব্যবহার করেন। পরে গুলি ছোড়ার শব্দ শোনা যায় এবং ব্রুকস মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হলেও তিনি মারা যান। এ ঘটনায় ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তার একজন সামান্য আহত হওয়ায় তাকেও চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

ব্রুকসের পরিবারের প্রতিনিধিত্বকারী আইনজীবীরা সাংবাদিকদের বলেন, ব্রুকসের বিরুদ্ধে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করার অধিকার ওই পুলিশের কর্মকর্তার ছিল না, কারণ ব্রুকসের হাতে যে টেজার ছিল তা প্রাণঘাতী অস্ত্র নয়।

অ্যাটর্নি ক্রিস স্টুয়ার্ট বলেন, ‘আপনার দিকে বন্দুক তাক করার আগ পর্যন্ত আপনি কাউকে গুলি করতে পারেন না। ’

এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় জড়িত পুলিশ কর্মকর্তাদের নাম প্রকাশ করা হয়নি।

বাংলাদেশ সময়: ১৩২৫ ঘণ্টা, জুন ১৪, ২০২০
এফএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa