php glass

তিন হাসপাতাল থেকে প্রত্যাখ্যাত হয়ে বৃদ্ধের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

প্রতীকী ছবি

walton

ঢাকা: জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভোগা এক রোগীকে তিনটি হাসপাতাল থেকে ফিরিয়ে দেওয়ার পর তিনি মারা গেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। 

গত বুধবার (৫ জুন) ভারতের কেরালা প্রদেশের ইড্ডুকি জেলায় এ ঘটনা ঘটে। 

স্বজনদের দাবি, এদিন দুপুরে ৬২ বছর বয়সী জ্যাকব থমাসকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় দুপুর ২টার দিকে কোট্টায়াম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (কেএমসিএইচ) নেওয়া হয়। কিন্তু হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাকে ভর্তি করাতে রাজি হননি। হাসপাতালটিতে অ্যাম্বুলেন্স দাঁড়ানো থাকা স্বত্ব্বেও রোগীকে সেটাও ব্যবহার করতে দেওয়া হয়নি। পরে জ্যাকবকে আরও দুইটি হাসপাতালে নেওয়া হলে, তারাও ফিরিয়ে দেয়। এভাবে কয়েক ঘণ্টা ঘোরাঘুরির পর তিনি মারা যান।

তবে, অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কেএমসিএইচ-এর আবাসিক মেডিক্যাল কর্মকর্তা ডা. রঞ্জন। তিনি বলেন, হাসপাতালের সব ভেন্টিলেটর (কৃত্রিম শ্বাসযন্ত্র) ব্যবহৃত হচ্ছে শুনে তারা (স্বজন) রোগীকে নিয়ে চলে যান।

স্বজনরা জানান, দুই দিন আগে জ্যাকবকে জ্বর ও শ্বাসকষ্টের কারণে ইড্ডুকির কাট্টাপ্পানার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে কেএমসিএইচ-এ রেফার্ড করে। কিন্তু তারা তাকে ভর্তি করাতে রাজি হয়নি।

কেএমসিএইচ জানিয়েছে, বিকেল ৪টার দিকে জ্যাকবকে যখন ফের হাসপাতালে আনা হয়, ততক্ষণে তিনি মারা গেছেন।

স্বজনদের অভিযোগ, কেএমসিএইচ কর্তৃপক্ষ জ্যাকবকে মৃত ঘোষণা করতেও অস্বীকার করে। 

এ ঘটনায় কেএমসিএইচকসহ অন্য দু’টি হাসপাতালের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তারা।

এদিকে, ঘটনা তদন্ত করে মেডিক্যাল শিক্ষা পরিচালককে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার।

দায়িত্বে অবহেলার প্রমাণ পেলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শাইলাজা।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৩ ঘণ্টা, জুন ০৬, ২০১৯
একে

চট্টগ্রামে নগরে হচ্ছে ‘আইয়ুব বাচ্চু চত্বর’
শচীনের পাশে সাকিব, সামনে শুধু স্মিথ
ডিএনসিসিতে সাড়ে ৫ লাখ শিশু খাবে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল
মাদারীপুরে বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ২
আমিরাতকে কৃষি শিল্পে বিনিয়োগের আহ্বান শাহরিয়ার আলমের


মাঠ ভেজা থাকায় টসে বিলম্ব প্রোটিয়া-কিউই ম্যাচে
ইংল্যান্ডকে এখনই ট্রফি দিতে বললেন পিটারসেন!
রণবীরের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর ক্যাটরিনা কী করতেন?
শরণার্থী বিষয়ে মনোভাব বদলে শিল্পের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ
এমপিকে হত্যার হুমকি, ব্যবসায়ীকে ফাঁসানোর চেষ্টা