হারিয়ে যাচ্ছে ‘বাঘব্রত’

সুদীপ চন্দ্র নাথ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

‘বাঘব্রত’-ছবি-বাংলানিউজ

walton

আগরতলা: অতীতে বাংলার গ্রামাঞ্চলে ‘বাঘব্রত’ নামে একটি সামাজিক অনুষ্ঠান ছিল। সিলেট অঞ্চলে এই ব্রতকে ‘বাঘাই’ পূজা বলা হতো। বনের বাঘকে সন্তুষ্ট করতেই মানুষ পূজা দিতেন। এখন বাঘব্রত আর হয় না বললেই চলে। নতুন প্রজন্মের বেশিরভাগই এই ব্রতের সঙ্গে অপরিচিত।

চলিত বিশ্বাস মানুষের ওপর ক্ষুব্ধ হয়েই বাঘ গ্রামে হামলা করতো। তাই বাঘের হাত থেকে বাঁচতে মানুষ বাঘব্রত চালু করে।

মাঘ-ফাল্গুন মাস এলে গ্রামবাসীরা ধানের খড় দিয়ে একটি বাঘ তৈরি করতেন। খড়ের বাঘটিকে সঙ্গে নিয়ে কীর্তন করে বাড়ি বাড়ি গিয়ে চাঁদা তুলতেন। চাঁদা তোলা শেষ হলে গ্রামের সবাই মিলে খড়ের বাঘটিকে সঙ্গে নিয়ে গভীর জঙ্গলে চলে যেতেন। সেখানে খিচুড়ি, পায়েস রান্না করে তা দিয়ে বাঘকে পূজা করতেন। এরপর সবাই মিলে প্রার্থনা করতেন যাতে বাঘ গ্রামের মানুষের কোনো ক্ষতি না করে।

এখন জঙ্গল নেই, বাঘও নেই। বাঘের সঙ্গে হারিয়ে গেছে বাঘব্রতও। তবে এখনও ত্রিপুরার পশ্চিম জেলার সীমনা এলাকার মানুষ বাঘব্রতের আয়োজন করে।

সীমনার বাসিন্দা বিষ্ণু দেব বাংলানিউজকে বলেন, এখন আর বাঘ নেই। তবুও গ্রামীণ এই সংস্কৃতিকে ধরে রাখতে প্রতিবছর আমরা এই ব্রত পালন করি।

আগরতলার পশুপ্রেমী প্রবীর দেব বলেন, এখন বাঘ না থাকলেও লোকজ এই প্রথার প্রয়োজন আছে। আগে প্রচুর বাঘ ছিলো। এগুলি গৃহপালিত প্রাণীসহ মানুষদের শিকার করতো। এখন বাঘ বিপন্ন, তারপরও বাঘ লোকালয়ে চলে এলে মানুষ এদের হত্যা করে। প্রাচীন এই সামাজিক প্রথাকে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে কাজে লাগাতে হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৭
এসসিএন/আরআর/এমজেএফ

কেশবপুরে নেওয়া হচ্ছে ইসমাত আরা সাদেকের মরদেহ 
যৌন হয়রানির অভিযোগে কলেজশিক্ষক বরখাস্ত
নীলফামারীতে ফের মৃদু শৈত্যপ্রবাহে জনজীবন বিপর্যস্ত
কৃষি জমির মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়, ফসল-সড়কের ক্ষতি
ঈশ্বরগঞ্জে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত


রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় এক ব্যক্তি নিহত
কেরানীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪
আক্কেলপুরে ট্রেনের ধাক্কায় ব্যবসায়ী নিহত
না’গঞ্জে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে জখম
যশোরে গৃহবধূ ধর্ষণে সেই এসআইয়ের সম্পৃক্ততা পায়নি পিবিআই