বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী যন্ত্র কিনতে শিল্পখাতে স্বল্প সুদে ঋণ

মফিজুল সাদিক, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বিদ্যুৎ ‍ইউনিট (ফাইল ফটো)

walton

ঢাকা: বিদ্যুৎ সাশ্রয় হয় এমন যন্ত্রপাতি কিনলেই শিল্প কারখানাগুলোকে ৪ শতাংশ সুদে দীর্ঘমেয়াদী ঋণ দেবে সরকার। স্বল্প সুদে ঋণ দেয়ার পাশাপাশি এ জন্য প্রয়োজনীয় ও দক্ষ জনবলও তৈরি করবে সরকার।

দেশে বর্তমানে যে পরিমাণে বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে সচেতনভাবে তা ব্যবহার করলে অতিরিক্ত ১৫ শতাংশ গ্রাহকের ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়া সম্ভব বলে মনে করে বিদ্যুৎ বিভাগ।  

এ লক্ষ্যে জ্বালানি সাশ্রয়,সংরক্ষণ ও জ্বালানি সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিতকরণ ও ভবিষ্যত কর্মপরিকল্পনার আলোকে নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সরকার।  ইতোমধেই পরীক্ষামূলকভাবে এর আওতায় বিভিন্ন শিল্প কারখানায় ২০০ কোটি ঋণ দেয়া হয়েছে।

পরীক্ষামূলক এই কর্মসূচিতে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে ব্যাপক সফলতা এসেছে বলে মনে করে বিদ্যুৎ বিভাগ।
 
এই সফলতার ধারাবাহিকতায় আরও বৃহ‍ৎ পরিসরে ঋণ দেয়ার লক্ষ্যে বিদ্যুৎ বিভাগের প্রস্তাবনায় ‘এনার্জি ইফিসেয়েন্সি অ্যান্ড কনজারভেশন প্রোমোশন ফিন্যান্সিং’ প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। এই প্রকল্পের আওতায় সারা দেশের শিল্প কারখানাগুলোকে স্বল্প ‍সুদে ঋণ দেয়া হবে।

বিশাল এই প্রকল্প বাস্তবায়নে দেশব্যাপী উদ্যোক্তা ও সংশ্লিষ্টদের প্রশিক্ষণ ও সচেতনতার জন্য ব্যয় করা হবে ১২৮ কোটি টাকা। যার মধ্যে ৮৩ কোটি ৩৩ লাখ টাকা অনুদান হিসেবে দেবে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্নয়ন-সহযোগী জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা)।

পরবর্তীতে এই খাতে ৩শ’ থেকে ৪শ’ কোটি ডলার ঋণ দেবে জাপান।  এই অর্থ ব্যাংকগুলোর প্রচলিত ঋণদান পদ্ধতি অনুসরণ করে শিল্প কারখানাগুলোকে প্রদান করা হবে। ইতোমধ্যেই দশমিক শূন্য ১ শতাংশ হারে ১০ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ৪০ বছরে এ ঋণ পরিশোধ করার শর্তে  এ ব্যাপারে জাইকার সঙ্গে চুক্তি করেছে বাংলাদেশ।
 
বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী যন্ত্রপাতি কিনতে শিল্প কারখানাগুলোকে স্বল্প সুদে ঋণ দেয়া প্রসঙ্গে বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড.আহমদ কায়কাউস বাংলানিউজকে বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদনের পাশাপাশি সাশ্রয়কে আরও গুরুত্ব দিতে হবে। ইতোমধ্যেই বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী যন্ত্রপাতি কিনতে প্রায় ২০০ কোটি টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে বিভিন্ন কলকারখানাকে। তারা এই ঋণে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী যন্ত্রপাতি কিনছে। এটা আমাদের পাইলট প্রকল্প ছিলো। ভালো সফলতা পেয়েছি।’
 
এরই ধারাবাহিকতায় বড় পরিসরে ঋণ দেয়ার মাধ্যমে কল কারখানাগুলোকে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী যন্ত্রপাতি কিনতে বাধ্য করা হবে। এ জন্য আমরা ৩ থেকে ৪ বিলিয়ন জাপানি ঋণ পাবো।’

বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্র আরও জানায়, ইতোমধ্যেই ‘এনার্জি ইফিসেয়েন্সি অ্যান্ড কনসারভেশন মাস্টার প্ল্যান আপ টু ২০৩০’ প্রস্তুত হয়েছে। এই মহাপরিকল্পনা অনুযায়ী উৎপাদন, সরবরাহ ও ব্যবহারিক পর্যায়ে আগামী ২০২০ সালের মধ্যে ১৫ শতাংশ এবং ২০৩০ সালের মধ্যে ২০ শতাংশ জ্বালানি সাশ্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হলে ২০৩০ সালের মধ্যে ৮৫ মিলিয়ন টন অয়েল সমতুল্য জ্বালানি সাশ্রয় হবে যার আর্থিক মূল্য প্রায় ৫১ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ সময়: ০৯০৪ ঘণ্টা, জুলাই ১৫, ২০১৬
এমআইএস/আরআই

করোনা: বেলারুশ প্রিমিয়ার লিগ বন্ধ করবে না কর্তৃপক্ষ
সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় সৈয়দপুরে ২ নৈশকোচ জব্দ 
শেবাচিমে করোনা সন্দেহে ২৪ ঘণ্টায় ৮ রোগী ভর্তি
কমলনগরে ৬ জেলের জরিমানা
যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্যে রেকর্ড মৃত্যু, কমেছে স্পেনে


নোয়াখালীতে সন্ত্রাসী হামলায় একই পরিবারের ৪জন গুলিবিদ্ধ
করোনায় গুজব: ২০ দিনে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার ৭
করোনা মানুষের সঙ্গে চলে: ডা. মুজিবুর রহমান
হিজড়া সম্প্রদায়কে অর্থ সহায়তা দিল গণসংহতি আন্দোলন
নাটোরে সেনাবাহিনীর চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম