হঠাৎ শুনলেন সব ব্যাংক লুটেরা করোনায় আক্রান্ত

নঈম নিজাম | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

নঈম নিজাম

walton

না, কোনো খারাপ খবর শুনতে চাই না। বাংলাদেশকে আল্লাহ হেফাজত করুন। তবু ধরুন হঠাৎ খবর ছড়াল বাংলাদেশে করোনা আঘাত হেনেছে। আর আক্রান্ত সবাই একই ঘরানার। কেউ ব্যাংক ডাকাত, ঋণখেলাপির নামে অর্থ পাচারকারী, শেয়ার লুটেরা, আবার আছেন সন্ত্রাসী-জঙ্গিরাও। 

মাদক ডিলার ও ইয়াবা ব্যবসায়ীরাও বাদ যাননি। রাজনীতির নামে পতিতা ব্যবসার সর্দারনিদের সঙ্গে চাঁদাবাজ, ক্যাসিনোর হোতারাও আক্রান্ত হয়েছেন। হাসপাতালে তাদের নেওয়া হলো। ডাক্তাররা ঘোষণা দিলেন, চিকিৎসা করবেন না। এ ধরনের মানুষদের চিকিৎসা করা ঠিক নয়। তদন্ত কমিটি হলো, কী করে শুধু নির্দিষ্ট একটি গোষ্ঠীই শুধু আক্রান্ত! সাংবাদিকরা খোঁজ নিতে থাকলেন। সবাই জানলেন, ব্যাংক লুটেরারা একসঙ্গে একটা বৈঠকে ছিলেন। জনসমাগম বা একসঙ্গে না হওয়ার নির্দেশ তারা মানেননি। আসলে একটু আনন্দন্ডউৎসব মুডেই ছিলেন সবাই। 

একজন বিদেশে গিয়েছিলেন ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে রেখে আসতে। তিনি ভীষণ দাপুটে মানুষ। দেশে ফিরে যোগ দিলেন বৈঠকে। এই লোকটি জানতেন না, তার শরীরে করোনাভাইরাস ছিল। বৈঠকে এসেই সবার সঙ্গে কোলাকুলি করলেন। হাত মেলালেন। একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়াও করলেন। ব্যস, আর যায় কোথায়? বৈঠকে যোগদানকারী সবাই একযোগে, একসঙ্গে আক্রান্ত! শুধু এই গ্রুপ নয়, আরও অনেক বিতর্কিত ব্যক্তি আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ঠাঁই নিয়েছেন। সে তালিকায় ঘুষ, দুর্নীতিবাজ, টেন্ডার বাণিজ্যর হোতারা রয়েছেন। তাদেরও রেহাই মেলেনি। চোরে চোরে মাসতুতো ভাই! ওদের সঙ্গে এদের দেখা না হলেও কী করে যেন ভাইরাসটা ছড়িয়ে গেল। সবাই যার যার মতো হাসপাতালে গেছেন। 

কিন্তু সমস্যা তৈরি করলেন ডাক্তার, নার্সেরা। তারা এই রোগীদের ধারেকাছে ঘেঁষছেন না। সিন্দুক থেকে বস্তা বস্তা টাকাও আসছে হাসপাতালে। এ টাকা অনেক দিন সিন্দুকে থাকার কারণে করোনাভাইরাসের জীবাণু আছে- এ প্রচার আগেই হয়ে গেছে। তাই কেউই টাকার ধারেকাছে ঘেঁষছেন না। এমনকি হাসপাতালের আয়া-বুয়ারাও না। ডাক্তারদের মাঝে বিশেষজ্ঞরাও আছেন। তাদের একজন বললেন, ‘আমরা চিকিৎসা বুঝি, কিন্তু হাসপাতালে পর্যাপ্ত আধুনিক যন্ত্রপাতি নেই।’ আয়া-বুয়া, নার্স-ব্রাদার সবাই এর সঙ্গে একমত হলেন। রোগীদের একজন বললেন, ‘আমরা সবাই এখন এখানে রোগী। আমাদের অন্য কোনো পরিচয় নেই। চিকিৎসা দেওয়া আপনাদের দায়িত্ব।’ 

একজন নার্স জানালেন, ‘আমাদের দায়িত্ব, এটা সত্য। কিন্তু এ হাসপাতালে যেসব ইকুইপমেন্ট সাপ্লাই দেওয়া হয়েছিল সব চাইনিজ মাল। চীন থেকে নেওয়া হয়েছে জার্মানি। সেখানে জার্মানির স্টিকার বসিয়ে বাংলাদেশে আনা হয়েছে। দেশের সব হাসপাতালের একই চিত্র। ইকুইপমেন্টের একটাও কাজ করছে না। তা ছাড়া হাসপাতালগুলোয় মেডিসিন নেই। সব মেয়াদোত্তীর্ণ। এমনকি করোনা পরীক্ষার যন্ত্রপাতিও নেই।’ এবার সবাই চিৎকার করে বলছেন, ‘যত টাকা লাগে দেব। চিন্তা নেই। দরকার হয় নতুন যন্ত্রপাতি আনুন। বিশেষ বিমান পাঠান। তার পরও আমাদের চিকিৎসা করুন।’ জবাব এলো- ‘প্লেন চলছে না। সব দেশের ফ্লাইট বন্ধ। এমনকি ভারত যাওয়ারও সুযোগ নেই।’ দূর থেকে একজন নার্স বললেন, ‘টাকা দিয়ে এখন কী করবেন? এখানে কেউ টাকা নেবে না। আপনাদের টাকায় করোনাভাইরাস! এগুলো ব্যাংক লুট, ঘুষ বা ক্যাসিনোর টাকা। অবৈধ টাকা সিন্দুকে রেখে দিয়েছিলেন বস্তায় ভরে। সেসব বস্তার এখন দুই পয়সা দাম নেই। বিদেশে বড় বড় বাড়ি কিনেছেন, মার্কেট কিনেছেন, পাঁচ তারা হোটেল কিনেছেন কোনো কাজে আসছে না। ফ্লাইট বন্ধ। কেউ যেতে পারবেন না। আসতে পারবেন না। এখানেই সবাইকে মরতে হবে। মরার পর লাশ নিয়ে আমরা চিন্তায় আছি। কারণ, করোনার ভয়ে কেউ লাশ নিতে আসবে না। আত্মীয়-পরিজনও না।’

পরিবেশ পরিস্থিতি বুঝে হাসপাতালে অসহায়ের মতো বসে আছেন ব্যাংক লুটেরা, শেয়ার কেলেঙ্কারির নায়ক, রাজনীতির গডফাদার, ইয়াবা-মাদকের ডিলার, সন্ত্রাসী, ধর্মের নামে বাড়াবাড়ি করা জঙ্গিরা। একজন বিদেশে ফোন করলেন এয়ার অ্যাম্বুলেন্সের জন্য। জবাব এলো, ‘সব ভিসা জব্দ। এয়ার অ্যাম্বুলেন্স আসবে না। পাইলটও কোনো করোনাযাত্রী তুলবে না।’ 

এতক্ষণ যা বললাম, লিখলাম পুরোটাই কাল্পনিক। বাস্তবে এমন কোনো ঘটনা বাংলাদেশে নেই। হবেও না। সবাই ভালো আছেন। ভালো থাকবেন সে কামনাই করি। চিরশত্রুরও এমন রোগ হোক, চাই না। আল্লাহ বাংলাদেশের সব মানুষকে রক্ষা করুন। আর এই খারাপ মানুষগুলোর করোনা হলে তা পুরো দেশে ছড়িয়ে পড়বে। তাই আরও বেশি করে প্রার্থনা করছি, বাংলাদেশ যেন রক্ষা পায়। পাশাপাশি দেশের সব নাগরিকের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি- সবাই যেন এই মহামারী নিয়ে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে থাকেন। 

৩৬০ আউলিয়ার এই দেশ বিভিন্ন সময় অনেক বড় বিপদ থেকে রক্ষা পেয়েছে। এবারও পাবে। দেশের মানুষকেও থাকতে হবে ধৈর্য নিয়ে। মৃত্যু অবধারিত। তবে সবাই একসঙ্গে মোকাবিলা করলে রক্ষা পাব এই মহামারী থেকে। কিন্তু দেশের অর্থনীতির খলনায়করা একবারও কি ভেবেছেন, এমন রোগ হলে পরিণতি কী হবে? কেউই পাশে আসবে না। দাফনেও থাকবে না। তাহলে কী কারণে এত লোভ-লালসা? এত লুটপাট? এ সমাজের মানুষ এখন লুটেরাদের নাম নেয় ঘৃণায়। বিদেশ গিয়েও নিস্তার নেই। কানাডায় তাদের বিরুদ্ধে প্রতিদিন মিছিল হচ্ছে। সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, দুবাইতে সাধারণ বাংলাদেশি শ্রমিকরা আঙ্গুল দিয়ে দেখায়- এই ভবনটি অমুক লুটেরার! 

মানুষ এই লোকগুলোকে দুই চোখে দেখতে পারে না। তার পরও কীসের নেশায় সবকিছু শেষ করছেন আপনারা? ভীষণ কষ্ট লাগে। দুঃখ হয়। হতাশায়ও মন ভরে যায়। সৎপথে আয়ের একটা গৌরব থাকে। সৎ ব্যবসায়ীরা বুক উঁচু করে এই সমাজে চলছেন। মানুষ তাদের সম্মান দিচ্ছে। শ্রদ্ধা করছে। আর লুটেরাদের কোনো জগৎ নেই। তারা দেশে চলেন লুকিয়ে, আর বিদেশে থাকেন পালিয়ে। স্বাভাবিক জীবন কোথাও নেই।

আসলে বুঝতে হবে প্রকৃতির সহ্যের একটা সীমা থাকে। সেই সীমা অতিক্রম করলেই দুনিয়ায় মহামারী নেমে আসে। আঘাত হেনে কিয়ামতের নমুনা দেখিয়ে দিয়ে যায়। নিজেকে নিয়ে বড়াই করার কিছু নেই। ক্ষমতা দুই দিনের। অবৈধ আয়ের অর্থ থাকে না। যাওয়ার সময় কেউই কিছু নিয়ে যেতে পারে না। মানুষ একা আসে। একা যায়। সঙ্গে কিছুই যায় না। কোনো কিছুই থাকে না। এক নিষ্ঠুর করোনাভাইরাস তছনছ করে দিচ্ছে সারা দুনিয়া। মৃত্যুভয়ে পুরো বিশ্ব আজ অচল! মেডিক্যাল সায়েন্স বুঝতেই পারছে না কী করবে। চিকিৎসাবিজ্ঞান অনেক কিছুর উন্নতি করেছে। আবিষ্কার করেছে। চীন তিন দিনে বিশাল বিশাল হাসপাতাল করেছে। কিন্তু করোনাভাইরাস প্রমাণ করে দিয়েছে, মানুষ এখনো সবকিছু জয় করতে পারেনি। সবকিছু নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেনি। 

শেক্সপিয়র হ্যামলেটে মানুষের সীমিত জ্ঞান নিয়ে বলেছিলেন, ‘স্বর্গ ও পৃথিবীতে আরও কিছু রয়েছে’। আরও অনেক কিছু রয়েছে, যা আমরা জানি না। বুঝি না। নিজেদের মতো করে একটা ব্যাখ্যা দাঁড় করাই। কিন্তু এ ব্যাখ্যা শেষ পর্যন্ত টেকে না। সুপার পাওয়ার হয়ে যায় অসহায়। চিন্তায় পড়ে যায় নিজের শরীরের নিরাপত্তা নিয়ে। এত ভাব দেখানোর কিছু নেই। দুনিয়ার সম্পদ, ক্ষমতা নিয়ে গর্ব করার কিছু নেই। জীবন খুবই ছোট। হিটলার, মুসোলিনির মতো অতি দুঃসাহসীদেরও চলে যেতে হয়েছে নিষ্ঠুর পরাজয়ে। অন্যায় চিরস্থায়ী হয় না। অসত্য দীর্ঘদিন টেকে না। সততা নিয়ে চলার অহংকার থাকে। ভালোমন্দ জয় করে চলারও একটা ভাব থাকে; যা সম্পূর্ণ আলাদা। রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, ‘যাত্রী আমি ওরে/চলতে পথে গান গাহি প্রাণ ভরে/দেহ-দুর্গে খুলবে সকল দ্বার/ছিন্ন হবে শিকল বাসনার/ভালোমন্দ কাটিয়ে হব পার/চলতে রব লোকে লোকান্তরে।’

ইসলামের ইতিহাসের ব্যতিক্রম শাসক হজরত ওমর (রা.) শাসক হিসেবে বারবার প্রকৃতির নিষ্ঠুরতা মোকাবিলা করেছেন। তাঁর সময়ে আরবে একবার ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ দেখা দেয় ৬৩৮ সালে। ক্ষুধা, মহামারীতে অনেক মানুষের মৃত্যু হয়। দুঃখ-দুর্দশার শেষ ছিল না সাধারণ মানুষের। কীভাবে পরিস্থিতি মোকাবিলা করবেন এ নিয়ে চিন্তিত ছিলেন ওমর (রা.)। ভীষণ উৎকণ্ঠা নিয়ে পরিস্থিতি মোকাবিলায় তিনি শাসনকার্যে অনেক পরিবর্তন আনেন। 

মদিনার খাদ্য সংকট মোকাবিলায় চিঠি লেখেন সিরিয়া, ইরাক ও ফিলিস্তিনের গভর্নরদের। সবাই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে এগিয়ে আসেন। সবার আগে সাড়া দেন সিরিয়ার গভর্নর আবু উবাইদা ইবনুল জাররাহ। তিনি নিজে মদিনায় ছুটে আসেন খাদ্যসামগ্রী নিয়ে। রক্ষা করেন মদিনাবাসীকে। এই সময়ে মদিনার ক্ষতিগ্রস্ত লোকেরা সিরিয়া, ইরাকসহ বিভিন্ন দেশে গিয়ে আশ্রয় নেয়। এর কিছুদিন পরই মহামারী প্লেগ হানা দেয় ওমর (রা.)-এর নিয়ন্ত্রণে থাকা বিভিন্ন প্রদেশে। সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয় সিরিয়া ও ফিলিস্তিন। মানুষ আল্লাহর কাছে রাতদিন এ সময় প্রার্থনা করত এ রোগ থেকে রক্ষা পেতে। সেবার প্লেগে ২৫ হাজারের বেশি মানুষ মারা যায়। সবাই ছিলেন মুসলমান। প্লেগ থেকে মানুষকে রক্ষা করতে একসঙ্গে কাজ করেন ওমর ও আবু উবাইদা (রা.)। 

এ সময় হজরত ওমর উৎকণ্ঠায় পড়েন উবাইদার শরীর নিয়ে। সিরিয়ায় থাকলে প্লেগে উবাইদা আক্রান্ত হতে পারেন। ওমর প্লেগ নিয়ে সতর্ক করেন উবাইদাকে। এক পর্যায়ে অনুরোধও করেন মদিনায় চলে আসতে। আবু উবাইদা নিজের সৈন্য ও সাধারণ মানুষকে রেখে মদিনায় যেতে অপারগতা ব্যক্ত করেন। তিনি তখন বলেছিলেন, ‘আমার যোদ্ধা ও নাগরিকদের বিপদে রেখে আমি যেতে পারি না। এটা হয় না।’ প্রকৃতির নিষ্ঠুর নিয়তিতে ৬৩৯ সালে প্লেগে আক্রান্ত হয়েই উবাইদা (রা.) মৃত্যুবরণ করেন। হজরত ওমর এ মৃত্যুতে দুঃখ পেয়েছিলেন। পরের বছর প্লেগে শেষ হয়ে যাওয়া সিরিয়ার রাজনীতি ও প্রশাসনিক কার্যক্রম স্বাভাবিক করতে ওমর (রা.) আবারও সিরিয়া সফর করেন। সবকিছু ঠিক করে ফিরে যান।

 লেখক : সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন।

বাংলাদেশ সময়: ১০১৭ ঘণ্টা, মার্চ ১৪, ২০২০

ঈদে তেঁতুলিয়ায় সব বিনোদন কেন্দ্র বন্ধ, কড়া অবস্থানে পুলিশ
নগরবাসীকে মেয়র আরিফের ঈদ শুভেচ্ছা
করোনা আতঙ্ক নিয়েই ঘরে ফিরছে মানুষ
সড়কে দায়িত্ব পালনে গর্বিত, আফসোস নেই ট্রাফিক সদস্যদের
দেশবাসীকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা সাজেদা চৌধুরীর


‘চির উন্নত শির...’
আজ ১২১তম নজরুলজয়ন্তী

‘চির উন্নত শির...’

সাবেক এমপি মকবুলের মৃত্যুতে তাপসের শোক
হাসপাতাল কর্মচারীদের জন্য আতিকের ঈদ উপহার
সিলেট আওয়ামী পরিবারে করোনার হানা
হাজি মকবুলের মৃত্যুতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীর শোক