মালয়েশিয়ার জনসমাগম, স্বাধীনতা এবং আমরা

778 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: সংগৃহীত

walton
গত ২৯ ও ৩০ আগস্ট দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন করে মালয়েশিয়ার জনগণ। প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের ২৬০ কোটি ডলার আত্মসাৎ ও দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার অবনতির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এ আন্দোলন করে তারা। আন্দোলনে অংশ নেন ত্রিশ হাজারেরও বেশি মানুষ।
php glass

গত ২৯ ও ৩০ আগস্ট দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন করে মালয়েশিয়ার জনগণ। প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের ২৬০ কোটি ডলার আত্মসাৎ ও দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার অবনতির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এ আন্দোলন করে তারা। আন্দোলনে অংশ নেন ত্রিশ হাজারেরও বেশি মানুষ।

এই আন্দোলনের দাবি ছিল পাঁচটি; স্বাধীন ও নিরপেক্ষ নির্বাচন, দুর্নীতিমুক্ত সরকার, মতপ্রকাশের অধিকার, পার্লামেন্টকে শক্তিশালীকরণ এবং দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নয়ন।

একটি বিষয় বলে রাখা ভালো, কুয়ালালামপুরের দাতারান মারদেকায় যে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ হয়েছে, সেটাকে অনেকে বিক্ষোভ বলেছেন। কার্যত এটি জনসমাগম।

আন্দোলনকারীদের জোট বার্সিহ’র নেতৃত্বে শান্তিপূর্ণ জনসমাগমে যোগ নিয়ে দেশের জনগণের একাংশ সরকারের ভুলগুলো আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন এবং তা অতি দ্রুত শোধরাতে বলেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ মানেই সমস্যার সমাধান নয়, তা জনসমাগমে অংশগ্রহণকারীদের সবাই জানেন। সেজন্যই তারা জনসমাগমে ভুলগুলোই নির্দিষ্ট করে দেখিয়েছেন।

কুয়ালালামপুরের এ জনসমাগম থেকে আমাদের শিক্ষার বিষয় হলো, কীভাবে শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করা যায়। কীভাবে সংযত থেকে ভুলকে ঠিক করা যায় এবং কীভাবে রক্তপাত ছাড়া মানুষকে একত্র করা সম্ভব হয়।

প্রতিটি স্থানে পুলিশ এই সমাগমকে সংঘদ্ধভাবে নিয়ন্ত্রণ করেছে। আর হাজারো অংশগ্রহণকারী শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদে কোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি না হওয়ায় ধন্যবাদ দিয়েছেন পুলিশ প্রশাসনকে। কেবল তাই নয়, সমাগম শেষে নিজ হাতে রাস্তা পরিষ্কার করেছেন অংশগ্রহণকারীরা।

আরও বড় শিক্ষার বিষয় হলো, পরিকল্পিতভাবে সাপ্তাহিক ছুটির দু’দিন শনি এবং রোববার এই সমাগমের ডাক দেওয়া হয়, যেন সাধারণ মানুষ এবং দেশের কর্মক্ষেত্রে কোনো সমস্যার সৃষ্টি না হয়।

এ প্রতিবাদ কর্মসূচিতে বাংলাদেশের মতো কেউ অন্যের গাড়ি ভাঙচুর করেননি। পেট্রোল বোমা ছুঁড়ে মারেননি। পুলিশকে ঢিল ছোঁড়েননি অথবা নারীদের অপদস্থ করেননি। কেউ কোনো কুরুচিপূর্ণ মন্তব্যও করেননি কর্মসূচিতে। চালানো হয়নি কোনো উস্কানিমূলক অপপ্রচারও।
 
তাদের এ ধারার কর্মসূচির ফলাফল সারাবিশ্ব দেখেছে। সবাই মালয়েশিয়াকে নতুন করে দেখেছে, জেনেছে এবং এ ঐক্যকে বাহবা দিয়েছে।

আর দুর্নীতির অভিযোগের তীরে বিদ্ধ প্রধানমন্ত্রী নাজিবের সরকারও বুঝতে পেরেছে সাধারণ মানুষের অবস্থান। তাই, দেশের স্বাধীনতার ৫৮তম বার্ষিকীতে ‘সবাই মিলে’ একটি গণতান্ত্রিক দুর্নীতিমুক্ত শান্তির মালয়েশিয়া গড়ার অভিপ্রায় প্রকাশ করেছেন তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১৪২৭ ঘণ্টা, আগস্ট ৩১, ২০১৫
এইচএ/

এসে গেলো গেইলদের বিশ্বকাপের জার্সি
খালিদ হোসেনের মৃত্যুতে তারেক-ফখরুলের শোক
নিরঙ্কুশ জয়ের পথে বিজেপি, সমর্থকদের উল্লাস
রোজা রাখতে সম্পূর্ণ অক্ষম হলে ফিদিয়া দিতে হয়
ঈদযাত্রা আরামদায়ক না হলেও স্বস্তির যেন হয়: কাদের


পদ্মাসেতুর ত্রয়োদশ স্প্যান বসানোর কাজ শুরু শুক্রবার
সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন মির্জা ফখরুল
৪১৩ জন ড্রাইভার নিয়োগ দেবে বিআরটিসি
সাভারে নারীসহ ছিনতাইকারী চক্রের ৯ সদস্য আটক
জগন্নাথ হলের ফুটপাত থেকে নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার