php glass

হলি আর্টিজান মামলায় আরও ছয়জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

ঢাকা: রাজধানীর গুলশানের স্প্যানিশ রেস্তোরাঁ হলি আর্টিজান বেকারির জঙ্গি হামলা মামলায় এবার সাক্ষ্য দিলেন ওই রেস্তোরাঁর কোষাধ্যক্ষ  আল-আমিন চৌধুরীসহ ছয়জন। পরে আদালত পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ১৬ জুলাই দিন ঠিক করেছেন। 

মঙ্গলবার (০৯ জুলাই) ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মজিবুর রহমানের আদালতে তাদের সাক্ষ্যগ্রহণ হয়। 

ছয় সাক্ষী হলেন- রেস্তোরাঁর কোষাধ্যক্ষ আল-আমিন চৌধুরী, কিচেন বয় সুহিন খান, ওয়েটার ইমাম হোসেন, কফিম্যান শাহরিয়ার আহম্মেদ, পুলিশের কনস্টেবল গোবিন্দ চন্দ্র মোহন ও গাড়ি চালক বাসেত সরদার।

এর আগে গত ২ জুলাই ভারতীয় নাগরিক ডা. শরৎ প্রকাশ ও আসলাম হোসেন ট্রাইব্যুনালে সাক্ষ্য দেন। 

এর আগে গত ২৫ জুনও মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ হয়। এ মামলায় ২১১ জন সাক্ষীর মধ্যে এখন পর্যন্ত ৬৮ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন ট্রাইব্যুনালে।

২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গিরা হামলা চালিয়ে ১৭ বিদেশিসহ ২০ জনকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে। হামলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে পুলিশের ওপর গ্রেনেড হামলা চালায় জঙ্গিরা। এতে মহানগর ডিবি পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) রবিউল ইসলাম ও বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সালাউদ্দিন নিহত হন।

এরপর ৪ জুলাই গুলশান থানার এসআই রিপন কুমার দাস বাদী হয়ে মামলা করেন। ২০১৮ সালের ২৩ জুলাই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পরিদর্শক হুমায়ূন কবির আদালতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। 

তবে সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় মামলার চার্জশিট থেকে বাদ দেওয়া হয় এই হামলা নিয়ে আলোচনায় আসা নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক হাসনাত করিমের নাম। 

পরে ২০১৮ সালের ২৬ নভেম্বর আট আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হয়। এরপর ৪ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয় মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ। এ মামলার আসামিরা হলেন- হামলার মূল সমন্বয়ক বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডার নাগরিক তামিম চৌধুরীর সহযোগী আসলাম হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আবু জাররা, ঘটনায় অস্ত্র ও বিস্ফোরক সরবরাহকারী নব্য জেএমবি নেতা হাদিসুর রহমান সাগর, নব্য জেএমবির অস্ত্র ও বিস্ফোরক শাখার প্রধান মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান, জঙ্গি রাকিবুল হাসান রিগ্যান, জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব ওরফে রাজীব গান্ধী, হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারী আব্দুস সবুর খান (হাসান) ওরফে সোহেল মাহফুজ, শরিফুল ইসলাম ও মামুনুর রশিদ ওরফে রিপন।

এর মধ্যে পলাতক মামুনুর রশিদ ওরফে রিপনকে গত ১৯ জানুয়ারি গাজীপুর এবং শরিফুল ইসলাম ওরফে আব্দুস সবুর খানকে ২৫ জানুয়ারি চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করা হয়। সাক্ষ্যগ্রহণের সময় সব আসামিকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৩৯ ঘণ্টা, জুলাই ০৯, ২০১৯,
এমএআর/এমএ

সৈয়দপুরে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধা নিহত
লোকসানের বোঝা মাথায় নিয়ে আমন চাষ
‘সোনার চর’ ঘিরে হচ্ছে এক্সক্লুসিভ পর্যটন কেন্দ্র
নির্ধারিত সময়েই সম্মেলনের প্রস্তুতি নিচ্ছে আওয়ামী লীগ
মেসিকে খুশি রাখতেই নেইমার ‘নাটক’!


'১১ দিনের বাচ্চা নিয়ে রাস্তায়-রাস্তায় ঘুরছি'
ফতুল্লায় অটো ও ব্যাটারির দোকানে অগ্নিকাণ্ড
ত্রিপুরায় ১৫ লাখ রুপির মাদক জব্দ
বেনাপোলে সাড়ে ১৭ লাখ ভারতীয় রুপিসহ আটক ১
নেতাজির ‘মৃত্যুদিন’ উল্লেখ করল পিআইবি, বিতর্ক ভারতজুড়ে