php glass

‘জনগণের উন্নত জীবন নিশ্চিত করাই আমার একমাত্র কাজ’

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

walton

ঢাকা: বাংলাদেশের মানুষের উন্নত জীবন নিশ্চিত করাই একমাত্র কাজ বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

তিনি বলেছেন, ‘আমার একমাত্র কাজ হচ্ছে বাংলাদেশকে একটি টেকসই দেশ হিসেবে গড়ে তোলা এবং এদেশের জনগণকে উন্নত জীবন ব্যবস্থা দেওয়া। এটাই আমার লক্ষ্য।’

বেইজিং সফরকালে চীনের টেলিভিশন চ্যানেল সিজিটিএন-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। জাতীয় সংবাদ সংস্থা বাসসে’র খবরে এমনটা জানানো হয়েছে। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একমাত্র আমার বোন ছাড়া আমি পরিবারের সবাইকে হারিয়েছি। কিন্তু জনগণ এখন আমার প্রকৃত পরিবার। তারা আমার খুব ঘনিষ্ঠ। তাই আমি মনে করি আমার একমাত্র কাজ হচ্ছে আমার জনগণকে উন্নত জীবন-যাপনের ব্যবস্থা করে দেওয়া। দারিদ্র্য ও ক্ষুধামুক্ত সমৃদ্ধ জীবন দেওয়া।’

তিনি বলেন, ‘আমার লক্ষ্য হচ্ছে আমার বাবার স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়নে বাংলাদেশকে একটি টেকসই দেশ হিসেবে গড়ে তোলা।’

১-৬ জুলাই চীনে সরকারি সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাইনিজ গ্লোবাল টেলিভিশন নেটওয়ার্ককে সাক্ষাৎকার দেন। টেলিভিশনের রিপোর্টার লিউ ইয়াং তাকে বলেন, ‘আপনি তো বাংলাদেশে খুবই জনপ্রিয় এবং একজন ক্ষমতাধর নারী।’ 

এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আসলে, আমি ফিল করি আমায় জনগণের সেবা করতে হবে। তবে অবশ্যই, আমার জনগণ আমায় ভালোবাসে।’

‘প্রতিটা মুহূর্তেই আমি ভাবতে চেষ্টা করে আমার বাবা কী করেছিলেন, আর তখনই আমি তার দিনলিপি (ডায়েরি) পড়ি। এটাই আমার অনুপ্রেরণা। আমার বাবা সব সময় জনগণের কথা ভাবতেন। কারণ তারা ছিল খুবই দারিদ্র্য। দেশের ৯০ শতাংশ মানুষ দরিদ্র্যতার মধ্যে বসবাস করতো। আমার বাবা এ সব মানুষের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করেছিলেন।’

তিনি বলেন, ‘আমার বাবা জানতেন কিভাবে জনগণ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। আমাদের শৈশব থেকেই সব সময় বলতেন, জনগণ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে এবং তিনি তাদের উন্নত জীবন দিতে চান। আমরা তার কাছ থেকে দেশ ও জনগণকে ভালোবাসতে এবং দায়িত্বশীলতা শিখেছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু তাকে জনগণের জন্য কাজ করতে এবং তাদের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করতে বলতেন।
 
সাক্ষাৎকারে চীন সফর নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। 

নিচে সাক্ষাৎকারের  অংশ বিশেষ তুলে ধরা হলো-

লিউ ইয়াং: পুনঃনির্বাচিত হওয়ার পর এটি আপনার প্রথম চীন সফর। এ সফর থেকে আপনি কি প্রত্যাশা করেন?
প্রধানমন্ত্রী: আপনি জানেন চীনের সঙ্গে আমাদের চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে। সেজন্যই আমি চীন সফরের চিন্তা-ভাবনা করি। ১৯৯৬ সালে আমার প্রথম মেয়াদেই আমি চীন সফর করি। এটি ছিল চীনে আমার প্রথম সরকারি সফর। আমার বাবা ১৯৫২ ও ১৯৫৭ সালে চীন সফর করেন। এখন আমি এখানে এবং খুবই আনন্দিত। চীন আমাদের বন্ধু দেশ। আমাকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য চীনের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

লিউ ইয়াং: আমরা জানি বাংলাদেশে অবকাঠামো খাতে চীন ব্যাপক বিনিয়োগ করেছে। অবকাঠামোর পাশাপাশি চীন ও বাংলাদেশের মধ্যে অন্যান্য খাতে বিশেষ করে বেল্ট ও রোড ফ্রেমওয়ার্কের অধীনে কি সহযোগিতা হতে পারে?

প্রধানমন্ত্রী: আমি মনে করি যোগাযোগ ব্যবস্থা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের সকল প্রতিবেশী দেশের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থা দরকার। চীন সত্যিই আমাদের সঙ্গে সহযোগিতা করছে। চীনের অনেক কোম্পানি আমাদের বহু গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে নির্মাণ কাজ চালাচ্ছে। আপনি জানেন আমরা বাংলাদেশ-চীন-ভারত-মিয়ানমারকে নিয়ে অর্থনৈতিক করিডোরে চুক্তি স্বাক্ষর করেছি। এ করিডোর আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্য ও যোগাযোগের দরজা উন্মুক্ত করে দেবে। পাশাপাশি ট্রান্স এশিয়ান হাইওয়ে ও রেল যোগাযোগের উন্নয়নেও সহায়ক হবে।

লিউ ইয়াং: আপনি চীনের গত ৭০ বছরের উন্নয়নের মূল্যায়ন কিভাবে করেন? এশিয়া ও বাকি বিশ্বে চীনের সফলতা সম্পর্কে আপনি কি মনে করেন?

প্রধানমন্ত্রী: আমাদের একটি প্রতিবেশী দেশ উন্নত হলে অন্যান্য প্রতিবেশীরাও এর ফলাফল পায়। আমার প্রতিবেশী অনেক উন্নত হলে আমরা তাদের কাছ থেকে শিক্ষা নিতে পারি। পাশাপাশি এক সঙ্গে কাজও করতে পারি। সত্যি বলতে কি চীন ৭০ বছর আগে পুনর্জন্ম লাভ করে। সে সময় কি পরিস্থিতি ছিল আপনি কল্পনাও করতে পারবেন না। কিন্তু এ স্বল্প সময়ের মধ্যে চীন ব্যাপক উন্নয়ন করেছে। বর্তমানে চীন বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি। সুতরাং আপনি এ ব্যাপারে গর্ব করতে পারেন।

আরেক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমার বাবা জনগণের স্বার্থে নিজেকে উৎসর্গ করেন। আমরা তাঁর কাছ থেকে দেশ ও জনগণকে ভালোবাসতে এবং দায়িত্বশীলতা শিখেছি।’ 

‘২০০৯-২০১৯ এই ১০ বছরে বাংলাদেশকে আমরা পরিবর্তন করেছি। চীনই আমাদেরকে উন্নয়নের এই পথ দেখিয়েছে। তাই আমি এ অর্জনের জন্য আবারো অভিনন্দন জানাচ্ছি।’

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৪ ঘণ্টা, জুলাই ০৮, ২০১৯
এমএ

ঘোলা পানিতে মাছ শিকারিদের সতর্ক করলেন চেয়ারম্যান কালাম
মানিকগঞ্জে তৈরি পোশাকের শো-রুম মালিককে জরিমানা
মিলনের সঙ্গে প্রথমবার জুটি বাঁধলেন তানহা
১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার আসামি একদিনের রিমান্ডে
সিলেট নগরে মিললো ৬ বিষধর সাপ


কমলাপুরে পরিত্যক্ত বগিতে মিললো মাদ্রাসাছাত্রীর মরদেহ
ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা নিম্নগতি: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর
কোহলির ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছেন স্মিথ
কুষ্টিয়ায় মাদক মামলায় একজনের যাবজ্জীবন 
নানা আয়োজনে ত্রিপুরার শেষ মহারাজার জন্মতিথি উদযাপন