php glass

ইংরেজি নতুন বছরকে স্বাগত জানাল নগরবাসী

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সতর্ক নজরদারির মধ্যেও রাজধানীর মানুষ ইংরেজি নতুন বছরের ‘থার্টি ফার্স্ট নাইট’ উদযাপন করেছে। রাজধানীর উচ্চবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষ নিজেদের মতো করে ‘নিউইয়ার ২০১১’ কে স্বাগত জানায়।

ঢাকা: আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সতর্ক নজরদারির মধ্যেও রাজধানীর মানুষ ইংরেজি নতুন বছরের ‘থার্টি ফার্স্ট নাইট’ উদযাপন করেছে। রাজধানীর উচ্চবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষ নিজেদের মতো করে ‘নিউইয়ার ২০১১’ কে স্বাগত জানায়।

ঘড়ির কাঁটায় রাত বারোটা বাজার আগে থেকেই অনেক এলাকার তরুণ-যুবারা পটকা-আতশবাজি পুড়িয়ে নিউ ইয়ারকে স্বাগত জানানোর প্রস্তুতি নেয়। আর রাত ১২টায় রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা পটকা ও আতশবাজির শব্দে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। যদিও পুলিশ আগেই থার্টি ফার্স্ট নাইটে পটকা ও আতশবাজি ব্যবহার নিষিদ্ধ করে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি মোড়, মোহাম্মদপুরের টাউন হল সংলগ্ন সড়ক, ধানমণ্ডির রবীন্দ্র সরোবর, গুলশান ১ ও ২ নম্বর চত্তর, বনানী ১১ নম্বর সড়ক, আজিমপুর কলোনির পাশের সড়ক, খিলগাঁও তালতলা সড়ক, শাহজাহানপুরের ফাইভারের মুখে, ওয়ারির মাঠে, উত্তরার বিভিন্ন মাঠে ও সড়ক, রামপুরার ওয়াপদা রোডসহ বিভিন্ন এলাকায় বিচ্ছিন্নভাবে তরুণ-যুবারা উন্মুক্ত প্রাঙ্গণে নতুন বছরকে স্বাগত জানায়। পৌনে বারোটা থেকে রাত একটার মধ্যেই তারা নতুন বছরের প্রথম প্রহরকে স্বাগত জানিয়ে বাড়ি বাড়ি ফিরে যায়।

এর বাইরে উচ্চবিত্ত শ্রেণীর একটি অংশের নারী-পুরুষ রাজধানীর বিভিন্ন পাঁচতারকা হোটেলসহ অন্যান্য কাবে নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে উপস্থিত হয়। এসব অনুষ্ঠানে মিউজিকের তালে নাচ-গানসহ বিভিন্ন ধরনের পানীয় পানেরও ব্যবস্থা থাকে। রাজধানীর একটি পাঁচতারকা হোটেলে অংশ নেওয়া একজন জানান, ‘তিনি রাত সাড়ে তিনটার দিকে সেখান থেকে বের হন। তখনও অনেকেই সেখানে ছিলেন।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে ঘিরে থার্টি ফার্স্ট নাইকে বিকেল থেকেই কড়া নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়। পরিচয়পত্র ছাড়া বাইরের কাউকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। যদিও টিএসসি চত্তরে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বহিরাগতকে দেখা গেছে বলে ছাত্ররা অভিযোগ করেছে।

বারোটার আগে থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় আবাসিক হলগুলো থেকে ছাত্ররা রাস্তায় নেমে আসে। সবার গন্তব্য থাকে টিএসসির দিকে। তারা গান গেয়ে, হৈ হুল্লোড় করে নতুন বছরকে স্বাগত জানায়। সেখানে ব্যান্ড সংগীতের আয়োজনও করা হয়েছিল। এ রাতে টিএসসি এলাকায় কোনো নারীকে দেখা যায়নি।  

থার্টি ফার্স্ট নাইটে এবছর টিএসসিতে বড় ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে রাজধানীর অনেকেই এদিন বিয়ার, হুইস্কিসহ বিভিন্ন ধরনের পানীয় গ্রহণ করার রীতি পালন করে থাকে। এদের জন্য অবশ্য প্রশাসন ও মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ৩০ ডিসেম্বরই জানিয়ে দিয়েছিল, রাজধানীর বারগুলো নতুন বছরের আগের রাতে সন্ধ্যা সাতটায় বন্ধ হয়ে যাবে। রাজধানীর ইস্কাটনের একটি বারের সূত্র জানায়, ‘এদিন বিকেল থেকেই তাদের ক্রেতারা এসে সাধ্যমত পানীয় কিনে নিয়ে গেছেন।’

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের ঢাকা অঞ্চলের উপ-পরিচালক ফজলুর রহমান এ ব্যাপারে জানান, ‘থার্টি ফার্স্ট নাইটে ঢাকায় অবস্থানকরা বিদেশিদের পাঁচ তারকা হোটেলের বার এবং বিশেষ অনুমোদন সাপেে কয়েকটি বার পানের জন্য খোলা রাখা হয়।’

থার্টি ফার্স্ট নাইটকে ঘিরে বরাবরের মতোই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ছিল বিশেষ তৎপর। গুলশান, বনানী ও ধানমণ্ডিতে ছিল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নিরাপত্তা। রাত দশটার পরই বনানীর কাকলী ক্রসিং, গুলশান লিংক রোড, বারিধারা ক্রসিং, খিলক্ষেতে বিশ্বরোড ক্রসিংয়ে পুলিশ ও র‌্যাব চেকপোস্ট বসায়। এ সময় সন্দেহভাজন গাড়িতে তল্লাশি চালানো হয়। থার্টি ফার্স্ট নাইটে যদিও গ্রেপ্তার বা আটকের কোনো ঘটনা ঘটেনি।  

র‌্যাবের গণমাধ্যম ও আইনি সহায়তা বিভাগের পরিচালক কমান্ডার সোহায়েল রাজধানীর নিরাপত্তার ব্যাপারে বাংলানিউজকে জানান, ‘থার্টি ফার্স্ট নাইট উদযাপনে তো কোনো বাধা নেই। তবে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রেখে শান্তিপূর্ণভাবে থার্টি ফার্স্ট নাইট পালনে তারা নগরবাসীকে আহ্বান জানান।’

বাংলাদেশ সময়: ১২৫৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০১, ২০১১

নূরকে পেয়ে আপ্লুত প্রতিমন্ত্রী এনাম, সালাম করলেন পা ছুঁয়ে
চূড়ান্ত তালিকায় মুশফিকসহ পাঁচ বাংলাদেশি!
৭১ একটি চেতনা, তার প্রকাশ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর
অনশনরত পাটকল শ্রমিকের মৃত্যুর প্রতিবাদে বাসদের মানববন্ধন
৫ দিন পর নিখোঁজ অটোরিকশা চালকের মরদেহ উদ্ধার


শীতের খাবার চিকেন মোমোর রেসিপি
সিলেটকে উড়িয়ে টানা দ্বিতীয় জয় রাজশাহীর
মাছ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হবে ত্রিপুরা: বিপ্লব
হাসু-কাসু বাহিনীর মূলহোতা আটক
দুর্নীতির দায়ে কারাভোগী ব্যক্তিকে সরকার সহযোগিতা করবে না