php glass

সরাইলে বিক্রি করা আট দিনের শিশু উদ্ধার, পাষণ্ড পিতাসহ আটক ২

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার সরাইলে মাত্র ৮ দিন বয়সের ছেলেশিশুকে ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে বিক্রি করে দেওয়ার ২০ ঘণ্টা পর শুক্রবার বিকেল ৩টায় শিশুটিকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে শিশুটির পাষণ্ড পিতা মোস্তফা ও শিশুটির ক্রেতা নিঃসন্তান পারভীন বেগমকে আটক করেছে।

ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়া: ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার সরাইলে মাত্র ৮ দিন বয়সের ছেলেশিশুকে ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে বিক্রি করে দেওয়ার ২০ ঘণ্টা পর শুক্রবার বিকেল ৩টায় শিশুটিকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে শিশুটির পাষণ্ড পিতা মোস্তফা ও শিশুটির ক্রেতা নিঃসন্তান পারভীন বেগমকে আটক করেছে।
 
সরাইল উপজেলার কালিকচ্ছ ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আরিফুল ইসলাম সুমন বাংলানিউজকে জানান, গর্ভধারিনী মাতা নিজ সন্তান বিক্রিতে রাজি না হওয়ায় তাকে মারধর করে জোরপূর্বক সাদা কাগজে সই আদায় করেন তারই পাষণ্ড স্বামী।

চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় তার নিজ গ্রামে।

তিনি জানান, তার এলাকায় এমন অমানবিক ঘটনা এর আগে কখনো ঘটেনি। তিনি তাৎণিকভাবে বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করেন।

হতভাগা সন্তানের জননী হাফেজা বেগম (২০) বাংলানিউজকে জানান, মাত্র ৮ দিন আগে উপজেলার দণি কালীকচ্ছ গ্রামে তার কোলে আসে ফুটপুটে পুত্র সন্তান। কিন্তু তাকে জন্মের পরই অন্যত্র বিক্রি করে দেওয়ার জন্য উঠে পড়ে লাগেন তার স্বামী।
 
শিশুটির মা হাফেজা কিছুতেই রাজি ছিলেন না বুকের ধনটিকে অনত্র ছেড়ে দিতে। এ নিয়ে বুকফাটা কান্নাও পাষণ্ডের মন গলাতে পারেনি। নানা অত্যাচার থেকেও রেহাই পাননি হাফেজা।

এ নিয়ে গত  কয়েক দিন ধরে তাদের পরিবারে চরম অশান্তি বিরাজ করছে। অবশেষে প্রাণ প্রিয় শিশুটিকে শেষ রা করতে পারেননি গর্ভধারিনী হাফেজা।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্ত্রীকে বেধড়ক মারপিট করে জোরপূর্বক শিশু সন্তানকে ছিনিয়ে নেন পাষণ্ড পিতা মোস্তফা। পরে একই গ্রামের বাসিন্দা জনৈক প্রবাসীর স্ত্রী তাজুল ইসলামের কন্যা পারভীন বেগমের কাছে মাত্র ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে ৮ দিনের ওই শিশুটিকে বিক্রি করে দেন তিনি।

এ ঘটনায় সন্তান হারিয়ে মা হাফেজা বেগম পাগল প্রায়।

নিজ সন্তান বিক্রির বিষয়টি শুক্রবার সকালে টক-অব সরাইলে পরিণত হয়।

সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) সুভাষ চন্দ্র সাহা বাংলানিউজকে জানান, শুক্রবার সকালে শিশুটির মা হাফেজা বেগম সরাইল থানায় বাদী হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

হাফেজার লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পরপরই সকাল ১১টার দিকে পুলিশ শিশুটিকে উদ্ধারের জন্য অভিযান  শুরু করে।

বিকেল ৩টায় শিশুটিকে প্রবাসী পারভীন বেগমের কাছ  থেকে উদ্ধার করা হয়।

ওসি সুভাষ জানান, ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পাষণ্ড পিতা মোস্তফা ও শিশুটির ক্রেতা প্রবাসীর স্ত্রী তাজুল ইসলামের কন্যা নিঃসন্তান পারভীন বেগমকে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে সরাইল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

হাফেজা জানান, তার আরও একটি ৬ বছর বয়সের ছেলে সন্তান রয়েছে। এ ছাড়া পাষণ্ড মোস্তফার চলাফেরা ভাল না। তিনি মাদকাসক্ত ও চুরি-ডাকাতিসহ নানা অপকর্মে জড়িত। তিনি মোট চারটি বিয়ে করেছেন। ইতিমধ্যে দুই স্ত্রীকে তালাক দিয়েছেন। তার আরো দুই স্ত্রী আছে। তৃতীয় স্ত্রী সন্তানসম্ভবা। গর্ভের ওই সন্তানটিকে বিক্রি করার জন্য এখনই ক্রেতার সন্ধান করছেন মোস্তফা।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০১০

মোবারক হোসেন খান’র ছেলে রাজিতের সুরে গাইলেন ডলি
টিপুর দ্রুত ফাঁসি চান সাক্ষী ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা
সু চির অধঃপতনে দুঃখ পেয়েছি: ড. মোমেন
কুষ্ঠরোগীদের সমাজ-চাকরিচ্যুতি নয়, চিকিৎসা করাতে হবে
বনানী থেকে চীনা নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার


স্বর্ণ জয়ের পথটা সহজ ছিল না: আফিফ
চলে গেলেন রক্সিট তারকা মেরি ফ্রেড্রিকসন
সিআইইউতে ‘আউটকাম বেসড অ্যাডুকেশন’ শীর্ষক কর্মশালা
বিজয়ের মাসে দৃশ্যমান হলো পদ্মাসেতুর ২৭০০ মিটার
বিশ্বমঞ্চে ধুতি-শাড়ি পরে নোবেল গ্রহণ অভিজিৎ-এস্থার দম্পতির