বিদেশি পেঁয়াজ আমদানি করে পস্তাচ্ছে ভারত

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

পেঁয়াজ। ফাইল ফটো

walton

কলকাতা: ভারতে দেশীয় পেঁয়াজের উৎপাদন অনেকটাই বেড়ছে। এরই মাঝে ধীরে ধীরে সেসব পেঁয়াজ বাজারেও আসতে শুরু করেছে। পশ্চিমবঙ্গের বাজারগুলোতে কিছুদিন আগ পর্যন্ত ১৩০ রুপি কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হলেও এখন দাম অপেক্ষাকৃত কম। সার্বিক পরিস্থিতিতে কেন্দ্রের কাছ থেকে বিদেশ থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ নিতে চাইছে না অনেক রাজ্যই। ফলে আমদানি করা পেঁয়াজ নিয়ে বিপাকে পড়েছে  মোদি সরকার। 

সূত্র জানায়, এখন পর্যন্ত অন্ধ্রপ্রদেশ, কেরালা, তেলেঙ্গানা, উত্তরপ্রদেশ ও পশ্চিমবঙ্গ কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে সস্তায় পেঁয়াজ নিলেও বাকি রাজ্যগুলো আর কেন্দ্রের কাছ থেকে পেঁয়াজ নিতে চাইছে না। ফলে এরই মাঝে আমদানি করা পেঁয়াজ পচতে শুরু করেছে। অবস্থা এতোটাই বেগতিক যে বাংলাদেশকে শস্তায় পেঁয়াজ দিতে চাইলেও তাতে তেমন আগ্রহ দেখাচ্ছে না দেশটির সরকার। 

কেন্দ্রীয় সরকারের উপভোক্তা সচিব অবিনাশ শ্রীবাস্তব জানান, দেশে পেঁয়াজের ঘাটতি থাকায় রাজ্যগুলোর আবেদন অনুযায়ী বিদেশ থেকে ৪২ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করার কথা ছিল। কিন্তু সে সময় কেন্দ্র নিজ থেকেই তা কমিয়ে ৩৮ হাজার মেট্রিক টন করেছিল। এরই মধ্যে তিন দফায় ১৮ হাজার ৩০০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ এসেছে আফগানিস্তান, মিশর ও তুরষ্ক থেকে। তবে রাজ্যগুলি এখন আর পেঁয়াজ নিতে চাইছে না। আবার চুক্তি অনুযায়ী আমদানির অর্ডারও বাতিল করা যায় না। ফলে আমাদের হাতে এখন অতিরিক্ত পেঁয়াজ। 

অবিনাশ শ্রীবাস্তব আরও জানান, যেসব রাজ্য এখনও কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে পেঁয়াজ নিচ্ছে তাদের মাত্র ২২ রুপি কেজি দরে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু বিদেশি পেঁয়াজের মান, ভারতের মতো না হওয়ায় খুচরা ক্রেতারা আগ্রহী কম। সব মিলিয়ে বিদেশি পেঁয়াজ নিয়ে পস্তাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার।

বাংলাদেশ সময়: ০৯৪৫ ঘণ্টা, ১৭ জানুয়ারি, ২০২০
ভিএস/এইচজে

চট্টগ্রামে প্রথমবারের মতো করোনা রোগীর শরীরে প্লাজমা থেরাপি
অধ্যক্ষ নিলুফার মঞ্জুরের মৃত্যুতে বসুন্ধরা পরিবারের শোক
ইবনে খালদুনের জন্ম, নেহরুর প্রয়াণ
খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন মান্না
রংপুরে মদপানে পাঁচজনের মৃত্যু


করোনায় ঢাকায় আইনজীবীর মৃত্যু
রাজধানীতে বেড়েই চলেছে করোনার সংক্রমণ
ডা. জাফরুল্লাহর জন্য ফল পাঠালেন খালেদা জিয়া
করোনায় আক্রান্ত হয়ে কাউন্সিলর মাজহারের মৃত্যু
শিবগঞ্জে বজ্রপাতে গৃহিণীর মৃত্যু