মেঘ কেটে গেলেই কলকাতায় ফের জেঁকে বসবে শীত

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মেষ ভেদ করে উঁকি দেওয়ার চেষ্টা করছে সূর্য

walton

কলকাতা: দুইদিন ধরে বৃষ্টি ঝরছে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায়। শুক্রবার (২৭ ডিসেম্বর) সকালেও মাঝারি বৃষ্টি হয়েছে কলকাতায়। আকাশ মেঘলা থাকায় সূর্যের দাপট তেমন একটা টিকছে না। তবে বৃষ্টি হওয়ায় ধীরে ধীরে মেঘ কাটছে।

কলকাতা আবহাওয়া দপ্তরের ডেপুটি ডিরেক্টর জেনারেল সঞ্জিব বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, মূলত আকাশ পরিষ্কার হবে শনিবার (২৮ ডিসেম্বর) থেকে। তখন সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে তাপমাত্রাও নামতে শুরু করবে। সেই সময় স্বাভাবিকের চেয়ে ২ থেকে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা নেমে যেতে পারে। এতে শনিবার ও রোববার কনকনে শীত অনুভূত হবে।

তবে শীতের পথে ফের নতুন করে বাধা আসতে চলেছে বলে পূর্বাভাস দিয়েছেন তিনি। সঞ্জিব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ৩০ ডিসেম্বর নাগাদ ভারতের উত্তর-পশ্চিম অংশে একটি নতুন ঝঞ্জা আসতে চলেছে। এজন্য উত্তরের হাওয়া ফের বাধাপ্রাপ্ত হবে। তার জেরে নতুন বছরের ২ ও ৩ জানুয়ারি কলকাতাসহ রাজ্যে হালকা বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনাও আছে। এই ঝঞ্জা কেটে গেলে কলকাতায় ফের জেঁকে বসবে শীত।

এদিকে কলকাতাসহ রাজ্যে শুক্রবার সকাল থেকেই আকাশ মেঘলা রয়েছে। সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ঘন কুয়াশা। এই কুয়াশার কারণে বিক্ষিপ্তভাবে ফোঁটাফোঁটা বৃষ্টিও হচ্ছে। 

এদিন কলকাতায় সর্বোচ্চ ১৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

এছাড়া শুক্রবার রাজ্যের বিভিন্ন জায়গার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা হলো কোচবিহারে ৭ ডিগ্রি, দার্জিলিংয়ে ৩ ডিগ্রি, জলপাইগুড়িতে ৮ ডিগ্রি, কালিম্পংয়ে ৫ ডিগ্রি, মালদহে ১০ দশমিক ৪ ডিগ্রি, পুরুলিয়ায় ১২ দশমিক ৪ ডিগ্রি ও শিলিগুড়িতে ৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৪১ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৯
ভিএস/জেডএস

ঈদে তেঁতুলিয়ায় সব বিনোদন কেন্দ্র বন্ধ, কড়া অবস্থানে পুলিশ
নগরবাসীকে মেয়র আরিফের ঈদ শুভেচ্ছা
করোনা আতঙ্ক নিয়েই ঘরে ফিরছে মানুষ
সড়কে দায়িত্ব পালনে গর্বিত, আফসোস নেই ট্রাফিক সদস্যদের
দেশবাসীকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা সাজেদা চৌধুরীর


‘চির উন্নত শির...’
আজ ১২১তম নজরুলজয়ন্তী

‘চির উন্নত শির...’

সাবেক এমপি মকবুলের মৃত্যুতে তাপসের শোক
হাসপাতাল কর্মচারীদের জন্য আতিকের ঈদ উপহার
সিলেট আওয়ামী পরিবারে করোনার হানা
হাজি মকবুলের মৃত্যুতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীর শোক