জানুয়ারির শেষেও কনকনে শীত থাকবে কলকাতায়

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কনকনে ঠাণ্ডায় আগুন পোহাচ্ছেন কয়েকজন। ছবি: বাংলানিউজ

walton

কলকাতা: দিন দুয়েক আগেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পারদ বেড়েছিল কলকাতায়। ফলে প্রভাব কমেছিল কনকনে ঠাণ্ডার। কিন্তু উত্তরের হাওয়া ফের সক্রিয় হওয়ায় কলকাতাসহ সমগ্র পশ্চিমবঙ্গে আবারও শীতে জবুথবু হয়ে পড়েছে। 

php glass

শুক্রবার (১৮ জানুয়ারি) কলকাতায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশপাশে আছে। যা উত্তর ২৪ পরগনায় ৮ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। পশ্চিমবঙ্গের অনেক জেলাতেই সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ ডিগ্রির নিচে ঘোরাফেরা করছে। দার্জিলিংয়েও ফের পড়তে পারে বরফ। যা চলতি মৌসুমে হতে পারে দ্বিতীয়বারের জন্য। আজকে সেখানকার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও সর্বনিম্ন ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে।

কলকাতা আবহাওয়া দফতরের কর্মকর্তা গণেশ দাস জানান, দার্জিলিং বাদে রাজ্যের অন্য জেলার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা এর নিচে খুব একটা নামবে না। আজ কলকাতায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৭ ডিগ্রির আশপাশে চলছে। চলতি মৌসুমে এখনও পর্যন্ত কলকাতায় ১০ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত পারদ নেমেছে। সেটাই ছিল এ মৌসুমের শীতলতম দিন।

কয়েকদিন আগে কাশ্মীর ও হিমাচল প্রদেশের উপর একটি শক্তিশালী পশ্চিমী ঝড় প্রভাব বিস্তার করেছিল। ঝড় চলে যাওয়ায় উত্তরের হাওয়া ফের সক্রিয় হয়েছে। ঠাণ্ডায় কাঁপছে গোটা উত্তর ভারত। এর প্রভাব পড়ছে পশ্চিমবঙ্গেও। আজ ফের একটি ঝড় কাশ্মীর ও হিমাচল প্রদেশে এসেছে। তার জন্য ১৮ জানুয়ারির পর কয়েকদিন ধরে তুষারপাত হবে সেখানে। তবে ওই পশ্চিমী ঝড় খুব শক্তিশালী না হওয়ায় উত্তরের হাওয়া বাধা পাবে বলে মনে করছেন না আবহাওয়াবিদরা। তাই আপাতত কনকনে শীতের আমেজ বহাল থাকবে কলকাতায় গোটা জানুয়ারিজুড়ে।

বাংলাদেশ সময়: ১১৫৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৮, ২০১৯
ভিএস/আরবি/

নিষ্ক্রিয় করার সময় শ্রীলঙ্কায় ফের বোমা বিস্ফোরণ
শ্রীলঙ্কায় হতাহতদের পরিবারকে অর্থ সহায়তা দেবে সরকার
হামলাস্থল পরিদর্শন লঙ্কান পুলিশের
পাকুন্দিয়ায় বাসচাপায় পথচারীর মৃত্যু
ঢাকা-কলকাতা প্রেসক্লাবের দুই নেতার সৌজন্য সাক্ষাৎ


কলম্বো বাস স্টেশন থেকে ৮৭ বিস্ফোরক উদ্ধার
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২ ফার্মেসিকে জরিমানা-সিলগালা, আটক ৩
শ্রীলঙ্কা হামলায় ড্যানিশ ধনকুবেরের ৩ সন্তানের মৃত্যু
ফিলিপাইনে ৬.৩ মাত্রার ভূমিকম্প
মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কায় রাষ্ট্রীয় শোক