গুজরাটের পর্যটনেও মোদী ম্যাজিক

আসিফ আজিজ, অ্যাসিসট্যান্ট আউটপুট এডিটর | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

সর্বভারতীয় যুব বিজেপির সাধারণ সম্পাদক হর্ষ সাঙ্গহাভি

walton

ইয়ুথ ডেলিগেশন টিমের সদস্যরা নান্দনিক, উদ্ভাবনী এক পানি সংরক্ষণাগারে। মাটির নিচে পাঁচতলা সমান এ সংরক্ষণাগারের নাম আদালজ স্টেপওয়েল।

php glass

আহমেদাবাদ, গুজরাট ঘুরে: ইয়ুথ ডেলিগেশন টিমের সদস্যরা নান্দনিক, উদ্ভাবনী এক পানি সংরক্ষণাগারে। মাটির নিচে পাঁচতলা সমান এ সংরক্ষণাগারের নাম আদালজ স্টেপওয়েল। বলা যায় প্রাকৃতিক উৎস কাজে লাগিয়ে নির্মিত কৃত্রিম পুকুর। কুয়া বললেও ভুল হবে না।

শুষ্ক অঞ্চলে পানি সংরক্ষণের জন্য তৈরি হলেও ধর্মীয় দিক দিয়েও এর গুরুত্ব কম ছিল না।

প্রায় ৫শ বছরের পুরনো সভ্যতার সাক্ষী। ঐতিহাসিক এ স্থাপনা পরিদর্শনের সময় হঠাৎ হাজির গুজরাটের মাজুরা রাজ্যসভার সদস্য ও সর্বভারতীয় যুব বিজেপির সাধারণ সম্পাদক হর্ষ সাঙ্গহাভি।
তার সংসদীয় এলাকায় বাংলাদেশি যুবাদের স্বাগত জানালেন তিনি। কুশল বিনিময় শেষে ডেলিগেশন টিমের সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মাত্র ২৭ বছর বয়সে রেকর্ড ভোট পেয়ে রাজ্যসভার সদস্য নির্বাচিত হওয়া এ তরুণ নেতা।

গুজরাটের পর্যটন নিয়ে বাংলানিউজের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পর্যটনের জন্য গুজরাট এখন ভারতের সবচেয়ে ভালো জায়গাগুলোর একটি। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। তিনি অনেক পদক্ষেপ নিয়েছেন গুজরাটের পর্যটন শিল্পকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য। এরপরই মূলত আমাদের পর্যটন শিল্প আরও এগিয়েছে।

২০০২ সাল থেকে ২০১৬ সাল। এই ১৪ বছরে অনেক পরিবর্তন হয়েছে গুজরাটে। রাজ্যের নিরপত্তা বিষয়ে তিনি বলেন,  গুজরাটে এখন রাত ২টার সময়ও যে কেউ বাইরে যেতে পারে। ভারতের নিরাপদ রাজ্যগুলোর একটি গুজরাট। মেয়েরা এখানে সারারাত বাইরে একা চলতে পারে। এখানে কোনো সহিংসতা নেই।

নিরাপত্তা গুজরাটের সবচেয়ে ভালো বিষয়গুলোর একটি বলে মনে করেন তিনি। বলেন, ২০০২ সালের ঘটনা ছিল একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা মাত্র। বিশ্বের অনেক জায়গায় এ ধরনের ঘটনা ঘটে। এটাও ছিল তেমন।
সমৃদ্ধ এ রাজ্য সম্পর্কে এ যুব বিজেপি নেতা আরও বলেন, গুজরাটের অধিবাসীরাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে শান্তি বজায় রেখেছে। আমি মনে করি এখানকার অধিবাসীদের জন্যই গুজরাট আজ ভারতের সবচেয়ে নিরাপদ রাজ্যগুলোর একটি।

‘গুজরাটের আইন ও এর প্রয়োগ খুবই কড়া। এখানকার মানুষের সহযোগিতায় আজ আমরা নিরাপদ।’

বাংলাদেশ-ভারতের সম্পর্ক নিয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা পরস্পর প্রতিবেশী রাষ্ট্র। আমাদের সবসময়ই সম্পর্ক উন্নত করতে হবে। আমরা ভ্রাতৃত্বভাবাপন্ন দেশ, দু’দেশই ঘনিষ্ঠ। দু’দেশের পারস্পরিক সম্পর্ক বিশ্বকে নেতৃত্ব দিতে পারে।

যেকোনো ইস্যু সমাধানের জন্য দুই দেশ একসঙ্গে বসলেই সমাধান সম্বব বলে মনে করেন তিনি।

মোদীর স্টার্টাপ ইন্ডিয়া কর্মসূচি গুরুত্বপূর্ণ একটি পদক্ষেপ উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটা আমাদের দেশ, যুব সমাজকে এগিয়ে নিতে সাহায্য করছে।

আরও পড়ুন...
** ইডেন গার্ডেনে গিয়ে যত আফসোস!

** সত্যি ‘গো দেওতা কা দেশ’!
**  তাজমহলে হয়ে যান ‘ডিপি’, করুন ‘সিপি’!
**গুজরাটে বসে কলকাতার থ্রিলার দর্শন
** সুর-বাদ্যে বাংলাদেশ-ভারতের সংস্কৃতি বিনিময়

 
 
 
 

 

** সমাধিসৌধে খচিত গান্ধীর ‘শেষ উক্তি’
** দিল্লি জামে মসজিদ থেকে লালকেল্লা
** সান্ধ্য আলোয় যুদ্ধস্মৃতির ইন্ডিয়া গেট
** জাদুটানা দিল্লি জাদুঘর
** বাংলা উচ্চারণেই মুগ্ধতা ছড়ালেন রাষ্ট্রপতি প্রণব
** বাংলাদেশের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রণব মুখার্জির
** হিমালয় দেখতে দেখতে সোয়া ২ ঘণ্টায় দিল্লি!
** ভারতে বাংলাদেশের ইয়ুথ ডেলিগেশন টিম
** ভারত যাচ্ছে বাংলাদেশের ইয়ুথ ডেলিগেশন টিম  

বাংলাদেশ সময়: ১৮৫৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১২, ২০১৬
এএ

শিরোপায় চোখ ভারতের
ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯

শিরোপায় চোখ ভারতের

মানুষ সচেতন হলে উন্নয়নের সুফল মিলতো বেশি: মেয়র
স্বাধীনতাবিরোধীদের অপচেষ্টা ব্যর্থ করে দেন শেখ হাসিনা
ধান কাটা নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০
কোহলির আশা ভারতকে নতুন উচ্চতায় তুলবেন মোদী


মাগুরায় দু’দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত ২৫ 
অর্থাভাবে আটকে আছে সিসিকের উন্নয়ন কাজ
কুড়িগ্রামে বিকাশ এজেন্টের ৫০ হাজার টাকা ছিনতাই
গুজরাটে বহুতল ভবনে আগুন, ১৯ শিক্ষার্থীর মৃত্যু
প্রেক্ষাগৃহে ‘নরেন্দ্র মোদী’