php glass

রহস্য দ্বীপ (পর্ব-৫৭)

মূল: এনিড ব্লাইটন; ভাষান্তর: সোহরাব সুমন | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

রহস্য দ্বীপ

walton

[পূর্বপ্রকাশের পর]
ফুটোটা তাহলে সকালে নোরা খাবার দেওয়ার সময়ও এখানেই ছিল। জ্যাক বলে। নোরা, এভাবে কাজ করার মানে কী? সকালে তোমাকে বলিনি প্রতিবার খাবার দেওয়ার সময় বেড়াটা ঠিকঠাক আছে কিনা ভালো মতো ঘুরে দেখতে? আর এখন, প্রথম তুমিই মুরগিদের পালিয়ে যেতে দিলে! তোমাকে নিয়ে আমার ভারি লজ্জা হচ্ছে!
আমাদের মহামূল্যবান মুরগি! হতাশায় পেগি বলে। 

কাজটা খুঁটে খুঁটে করা উচিত ছিল, নোরা, মাইক বলে। খুব খারাপ হলো!
নেরা কান্না শুরু করে, কিন্তু কেউই তাকে সমবেদনা জানায় না। মুরগি খোয়া যাওয়াটা বড় ধরনের একটা লোকসান। কোথাও লুকিয়ে রয়েছে কিনা সবাই তা ঘুরে ঘুরে খুঁজে দেখতে শুরু করে।

জ্যাক ওর সঙ্গে রাগারাগি করায় নোরা আরো বেশি করে কাঁদতে থাকে। বাচ্চাদের মতো শব্দ করে বাজে কান্না বন্ধ করো! সে বলে। তুমি কি মুরগি খুঁজতে সাহায্য করতে পারো না?
তুমি আমার সঙ্গে এভাবে কথা বলতে পারো না! নোরা কাঁদে। 

আমার যেমন ইচ্ছে তেমন করে কথা বলবো, জ্যাক বলে। আমি এখানকার ক্যাপ্টেন, আর এখন যা বলছি তাই করো। আমাদের কেউ অসতর্ক হলে তার জন্য সবাইকে ভুগতে হবে, আর আমি সেটা হতে দিতে পারি না! কান্না থামাও, আমি বলছি, আর মুরগি খুঁজতে সাহায্য করো।

নোরা খুঁজতে শুরু করে, তবে কান্না থামায় না। ওর খুব খারাপ লাগে, সাবাই তার ওপর ক্ষেপে আছে, কেউ তার সঙ্গে একটা কথাও বলছে না তাই তার খুব লজ্জা লাগে, সে মনমরা হয়ে মুরগি খুঁজতে থাকে, কিন্তু খুঁজে পায় না। 

ওরা এখানে কোথাও নেই! শেষে জ্যাক বলে। ভালো হয়, আমরা সবাই ছড়িয়ে পড়ি আর দেখি দ্বীপের কোথাও ওদের খুঁজে পাওয়া যায় কিনা। ওরা হয়তো ঘুরতে ঘুরতে অন্য কোথায় চলে গেছে। আমরা সবাই আলাদা হয়ে যাবো এবং ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় খুঁজবো। পেগি তুমি ওদিকটায় যাও, আর আমি ডেইজির কাছাকাছি খুঁজে দেখছি।

বাচ্চারা আলাদা হয়ে যায় এবং বিভিন্ন দিকে গিয়ে চিৎকার করে মুরগিগুলোকে ডাকতে থাকে। জ্যাক যেখানে দেখিয়েছে নোরা সেদিকে যায়। সেও মুরগিদের ডাকে, তবে কেউ জবাব দেয় না। 
ওরা কোথায় যেতে পারে?

দুপুরবেলায় হারানো মুরগিগুলোকে খুব করে খোঁজা হয়! সত্যিই খুব অবাক ব্যাপার কেউই খুঁজে পায় না। জ্যাক এটা বুঝে উঠতে পারে না! পাহাড়ের কোথাও ওরা নেই! এমনকি আগের দিন জ্যাক ওদের যে ছোট্ট গুহার মাঝে লুকিয়ে রেখেছিল সেখানেও না, কারণ জায়গাটা সে খুব ভালো করেই দেখে এসেছে। রাজবেরি ঝোপেও ওদের পাওয়া যায় না। ডেইজির মাঠেও না। আর সব ঝোপের তলাতেও না। দেখা যায়, ওরা কোথাও নেই! 

চলবে....

বাংলাদেশ সময়: ০৬৪০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৭
এএ

আশুলিয়ায় ভ্যানচালকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
তুহিনের কণ্ঠে ‘রং তুলি’
ইউজিসি চেয়ারম্যানের সঙ্গে সাক্ষাতে সিআইইউর উপাচার্য
চামড়া খাতে ব্রিটিশ বাঙালিদের বিনিয়োগের আহ্বান 
মন্ত্রী ব্যবসায়ী হলে বাজেট দিতে পারবেন না, এটা ঠিক না


বাজেটে রেমিটেন্স প্রণোদনা, অনুপ্রেরণা পাবেন প্রবাসীরা
কালিহাতীতে যুবকের মরদেহ উদ্ধার
শুরুতেই উইকেট হারালো পাকিস্তান
টাঙ্গাইলকে দু’টি সাংগঠনিক জেলা করছে বিএনপি
ওসি মোয়াজ্জেম গ্রেফতারে নুসরাতের পরিবারে স্বস্তি