php glass

বিশ্ব ইজতেমা ১০ জানুয়ারি, অংশ নেবেন না মাওলানা সাদ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বিশ্ব ইজতেমার ময়দান। ফাইল ছবি/বাংলানিউজ

walton

ঢাকা: আগামী জানুয়ারি মাসে দুই পর্বে বিশ্ব ইজতেমা-২০২০ অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, এবারও দুই পক্ষের ইজতেমা দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম পর্ব মাওলানা জুবায়েরপন্থীদের ও দ্বিতীয় পর্ব মাওলানা সাদপন্থীদের।

সোমবার (২৮ অক্টোবর) সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে উভয়পক্ষের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠক করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ তথ্য জানান।

ইজতেমা বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল গণমাধ্যমকে বলেন, দুই পক্ষের নেতৃবৃন্দর সঙ্গে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে আগামী জানুয়ারি মাসে আলাদাভাবে উভয়পক্ষের ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে ১০, ১১ ও ১২ জানুয়ারি প্রথম পর্ব এবং ১৭, ১৮ ও ১৯ জানুয়ারী দ্বিতীয় পর্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে। ইজতেমার সার্বিক নিরাপত্তা নিয়ে পরে আবার বৈঠক করা হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আব্দুল্লাহ, ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল ও অন্যরা।

কাকরাইল মারকাজের মুরব্বি মাওলানা জোবায়ের আহমদের নেতৃত্বে এই বৈঠকে আলেমদের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন মুফতি রুহুল আমীন, মুফতি নুরুল আমীন, মাওলানা মাহফুজুল হক, প্রকৌশলী মাহফুজুর রহমান, হাজি সেলিম।

মাওলানা সাদ অনুসারীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম, মুফতি ইজহার, মাওলানা মোশাররফ হোসাইন ও মাওলানা আশরাফ আলী।

বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় ভারতের নিজামুদ্দিন মারকাজের মুরব্বি মাওলানা সাদ কান্ধলভি ইজতেমায় অংশ নিতে পারবেন না। আইন শৃঙ্খলার অবনতির আশঙ্কা ও তার বহুল বিতর্কিত বক্তব্যের কারণেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে বৈঠক সূত্রে জানা গেছে।

ইজতেমার আগে তিন চিল্লার সাথীদের বিশেষ ‘জোড় ইজতেমা’ এবার হবে না বলেও সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে। এবারের বিশ্ব ইজতেমা দুই পর্বে হলেও মাঠে প্রস্তুতের কাজ আলেম-উলামা ও আলমি শুরার অনুসারী সাথীরা করবেন বলে জানা গেছে।

১৯৬৭ সাল থেকে টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব ইজতেমা নিয়মিত অনুষ্ঠিত হয়ে চলছে। তবে মানুষের বৃদ্ধি কারণে ও যানজটের দুর্ভোগ কমাতে ২০১১ সাল থেকে বিশ্ব ইজতেমা দুই পর্বে ভাগ করা হয়।

পরবর্তীতে ভারতের বিতর্কিত মাওলানা সাদ কান্ধলভির বিভিন্ন ভ্রান্তিমূলক বক্তব্যের কারণে তাবলিগ জামাতে বিরোধ দেখা দেয়। ফলে বিরোধকে কেন্দ্র করে গত বছর দুইপক্ষের আলাদা আলাদা ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে গত বছরের জানুয়ারির ০১ তারিখে সাদ অনুসারীরা মাঠ তৈরির কাজে ব্যস্ত আলেম-উলামা ও আলমি শুরার অনুসারীদের ওপর হামলা করেন এবং পারস্পরিক সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। ফলে গত বছরের ইজতেমায় নিরাপত্তা দ্বিগুণ করা হয়।

২০২০ সালে অনুষ্ঠিতব্য ইজতিমাটি হবে ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমা। বিশ্ব ইজতেমা ঈমান-আমল ও মননশীলতার চর্চার পাশাপাশি বাংলাদেশকে বহির্বিশ্বের কাছে পরিচিত করে তুলে এবং অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অবদান রাখে।

ইসলাম বিভাগে আপনিও লেখা-প্রশ্ন পাঠাতে পারেন। জীবনঘনিষ্ঠ প্রশ্ন ও বিষয়ভিত্তিক লেখা পাঠাতে মেইল করুন: [email protected]

বাংলাদেশ সময়: ২০০৬ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৮, ২০১৯
জিসিজি/এমএমইউ

‘দাম আর বাড়বে না, সর্বকালের সর্বোচ্চ চাল মজুদ রয়েছে’
দুবাই এয়ার শো’তে যোগ দিলেন প্রধানমন্ত্রী
ফেনীতে পৌঁছেছে ২০২০ সালের প্রাথমিকের সব বই
অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশের সেরা খাদ্যপণ্য প্রতিষ্ঠান ‘প্রাণ’
প্রধানমন্ত্রীকে দেওয়া বিএনপির চিঠিতে যা লেখা হয়েছে


ছেলের হাত ধরে যাচ্ছিলেন মা
খুচরা-পাইকারিতে দামের ব্যবধান ৭০ টাকা
খাগড়াছড়িতে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড
লক্ষ্মীপুরে বাস উল্টে আহত ২০
বনানীর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ড: এক মালিকসহ তিনজন কারাগারে