php glass

তাইওয়ানকে যুদ্ধবিমান দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, নাখোশ চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মার্কিন ‘এফ-১৬’ যুদ্ধবিমান, ছবি: সংগৃহীত

walton

ঢাকা: তাইওয়ানের কাছে শক্তিশালী যুদ্ধবিমান ‘এফ-১৬’ বিক্রি করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। ইতোমধ্যে ট্রাম্প প্রশাসন অনানুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের অস্ত্রের একটি বড় চালান তাইওয়ানকে দিতে সবুজ সংকেত দিয়েছে।

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তারা এবং বিষয়টির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট আরও কয়েকজন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য দেন।

সংবাদমাধ্যম বলছে, চীনের সঙ্গে বাণিজ্যযুদ্ধের উত্তেজনা বেড়ে যাওয়া এবং হংকংয়ের বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে চীনা কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার কারণে নিজেরা সমালোচনার মুখে পড়ে সম্ভাব্য এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

তাইওয়ানকে নতুন এই অস্ত্রসম্ভার দেওয়া; অঞ্চলটিতে বেশ কয়েক বছরের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় বিক্রি। একইসঙ্গে তাইওয়ান দ্বীপটি বেইজিং শাসিত হওয়ায় এই অস্ত্র দেওয়ার কারণে চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কের আরও অবনতি হতে পারে। এছাড়া বেইজিং স্ব-শাসিত দ্বীপটিকে চীনের অংশ হিসেবেই দেখে। চীনের প্রদেশ হিসেবে তাইওয়ান প্রশাসিত।

বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) মার্কিন কংগ্রেসকে সম্ভাব্য এ বিক্রয় সম্পর্কে অনানুষ্ঠানিকভাবে অবহিত করা হয়েছিল বলে জানান প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং বিষয়টির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অন্যরা।

এখন অস্ত্র দেওয়ার বিষয়টি সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্ক কমিটি এবং হাউসের বিদেশ বিষয়ক কমিটি দ্বারা পর্যালোচনা ও অনুমোদিত হওয়ার আশা করা হচ্ছে।

এ নিয়ে শুক্রবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনিং বলেছেন, তাইওয়ানের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র বিক্রয় চীনের সার্বভৌমত্ব এবং মূল স্বার্থকে ক্ষুণ্ণ করে।

চীন এর ‘তীব্র বিরোধিতা’ করে জানিয়ে হুয়া চুনিং এও বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তাইওয়ানের কাছে ‘এফ-১৬ভি’ যুদ্ধবিমান বিক্রি থেকে বিরত থাকবে। একইসঙ্গে তাইওয়ানের সঙ্গে সামরিক যোগাযোগ বন্ধ করবে বলে আমরা দাবি করছি।

চীনের মূল ভূখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন তাইওয়ান মূলত দক্ষিণ চীন সমুদ্রের একটি দ্বীপ। এক সময় ওলন্দাজ কলোনি ছিল। তবে ১৬৮৩ থেকে ১৮৯৫ সাল পর্যন্ত চীনের রাজারাই শাসন করেছে তাইওয়ান। এরপর জাপানিরা নিয়ে নেয় এই দ্বীপ। কিন্তু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর তাইওয়ানের নিয়ন্ত্রণ পায় চিয়াং কাইশেকের নেতৃত্বাধীন চীনা সরকার।

২০০০ সালে তাইওয়ানের নুতন প্রেসিডেন্ট হন চেন শুই বিয়ান। ২০০৪ সালে তিনি ঘোষণা দেন- তাইওয়ান চীন থেকে আলাদা হয়ে সম্পূর্ণ স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে চায়। মূলত এরপর থেকে চীনের সঙ্গে দ্বীপাঞ্চলটির দ্বন্দ্ব লেগে আছে। তারা বহির্বিশ্বের সহায়তা নিয়ে এগিয়ে যেতে চাইছে।

বাংলাদেশ সময়: ১২২০ ঘণ্টা, আগস্ট ১৭, ২০১৯
টিএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: যুক্তরাষ্ট্র চীন
ksrm
ভালুকায় নারী সাংবাদিকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
সাভারে আ’লীগ নেতা হত্যার ঘটনায় মামলা 
প্রধানমন্ত্রীর সফরে বিমানবন্দরে উপস্থিতিতে নির্দেশনা
তারাকাইকে নিজের দ্বিতীয় শিকার বানালেন সাইফ
আড়াইহাজারে বাল্যবিয়ে বন্ধ, কনের বাবা-মাকে জরিমানা


১৯৭১ স্মরণে লতা মঙ্গেশকর
ডেঙ্গু প্রতিরোধে সরকারের অবহেলা নেই: হানিফ
ঢামেক হাসপাতালে এক্স-রে বিড়ম্বনায় রোগীরা
প্রথম বলেই গুরবাজের স্ট্যাম্প উপড়ে ফেললেন সাইফ
গোয়ালঘরে আশ্রয় বৃদ্ধার, পুলিশের সহায়তায় মুক্ত