লাখো লাল কাঁকড়ার দখলে ক্রিসমাস আইল্যান্ড!

ফিচার ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: সংগৃহীত

walton

ঢাকা: প্রতি বছর অস্ট্রেলিয়ার ক্রিসমাস আইল্যান্ডে প্রায় কয়েক লাখ লাল কাঁকড়ার দেখা মেলে। বছরের একটি নির্দিষ্ট সময়ে ডিম পাড়ার জন্য দল ধরে এরা বেরিয়ে আসে গর্ত থেকে। এসময় ডিম পাড়ার উপযুক্ত স্থানের খোঁজে তারা হেঁটে ভ্রমণে বের হয়। গন্তব্য সাগরের দিকে। তাদের এ ভ্রমণের দৃশ্য দেখতে বিশ্বের দূর-দূরান্ত থেকে পর্যটকরা ভিড় করে ক্রিসমাস আইল্যান্ডে।

সম্প্রতি ক্রিসমাস আইল্যান্ডের লাল কাঁকড়ার ভ্রমণের দৃশ্য ধরা পড়ে গুগল স্ট্রিট ভিউয়ের ক্যামেরায়। এতে দেখা যায় বালুময় সৈকত জুড়ে নেমেছে লাল কাঁকড়ার মিছিল। সবগুলো কাঁকড়াই একই গন্তব্যে হেঁটে চলেছে। গুগল স্ট্রিট ভিউয়ের ট্রেকার ব্যবহার করে এ অসাধারণ দৃশ্য ক্যামেরায় বন্দি করার কাজটি তত্ত্বাবধান করেন অস্ট্রেলিয়ার অ্যালাসড্রাইর গ্রিগ।

ক্রিসমাস দ্বীপে নানা প্রজাতির পশুপাখি থাকলেও, এ দ্বীপের খ্যাতি মূলত এই লাল কাঁকড়ার কারণেই। কাঁকড়াগুলো মূলত ভূমিতে বাস করে। এরা থাকে দ্বীপের ভিতরে, জঙ্গলের দিকে। কিন্তু বছরের একটা সময়ে ডিম পাড়তে এরা দল-বেঁধে চলে আসে সাগরের দিকে। মাসখানেক পর আবারও আগের স্থানে ফিরে যায়।

জঙ্গল থেকে সাগরের দূরত্ব কম নয়। এ দূরত্ব পারি দিতে লাল কাঁকড়াদের প্রায় দু’সপ্তাহ সময় লেগে যায়। ভ্রমণটি ঘটে অক্টোবর-নভেম্বর মাসে, অর্থাৎ ওই অঞ্চলে তখন বর্ষাকাল। তাই, কাঁকড়াদের যাত্রাটাও হয় নানা বাঁধার মধ্যে দিয়ে।

ক্রিসমাস আইল্যান্ডের লাল কাঁকড়ার যাত্রা আরও নিরাপদ করতে দ্বীপের বাসিন্দারা নিয়েছেন নানা উদ্যোগ। বর্ষাকালে যেসব রাস্তা দিয়ে এসব কাঁকড়া যাওয়া-আসা করে, সেসব রাস্তার যানচলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। অনেক যায়গায় দেয়াল বা বেড়ার মাধ্যমে কাঁকড়াদের নিরাপদে গন্তব্যে পৌঁছাতে সহায়তা করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ০০৩৭ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৭
এনএইচটি/এএ

মার্কিন নাগরিকদের জন্য বিশেষ ফ্লাইট ১৩ এপ্রিল
স্বাস্থ্যবিধি মেনে ধানকাটা শ্রমিকদের হাওরে যেতে বলেছে সরকার
বরিশালে হোম কোয়ারেন্টিন শেষে ৩০২০ জনকে ছাড়পত্র
খোয়াই নদীতে ভেসে এলো দুই কফিন
ঢাকায় ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা দেবে যুবলীগ


খুলনায় এখনও করোনা রোগী শনাক্ত হয়নি
করোনা: মৃত ব্যক্তি ঢাকার, বয়স ৬০ বছরের বেশি
রোগীর পাশে নেই পরিবার, নিজ উদ্যোগে দেখতে গেলেন চিকিৎসক! 
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এলাকায় ত্রাণ যাবে বাসায়
সিলেটে আরো ১৫৭ জন হোম কোয়ারেন্টিনে