খুলনার অডিওবাজারে আবিদের অ্যালবাম পাওয়া যাচ্ছে না

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

পাগলা হাওয়ায় বাদল দিনে’এই রবীন্দ্র সঙ্গীতটি গেয়ে ক্লোজআপ ওয়ান তারকা আবিদ পেয়েছিলেন জনপ্রিয়তা। এই গানটি এখন খুলনার তরুণ-তরুণীর মুখে মুখে। কেউ কেউ আবার সেলফোনের টিউন হিসেবেও এটি ব্যবহার করছেন।

‘পাগলা হাওয়ায় বাদল দিনে’এই রবীন্দ্র সঙ্গীতটি গেয়ে ক্লোজআপ ওয়ান তারকা আবিদ পেয়েছিলেন জনপ্রিয়তা। এই গানটি এখন খুলনার তরুণ-তরুণীর মুখে মুখে। কেউ কেউ আবার সেলফোনের টিউন হিসেবেও এটি ব্যবহার করছেন। নগরীর ক্যাসেট-সিডির দোকানগুলোতেও প্রতিদিন শত শত তরুণ-তরুণী ভীড় করছেন আবিদ শাহরিয়ারের নিজ কন্ঠে গাওয়া ‘এতো ভালবাসি’ অ্যালবামটি কিনতে। কিন্তু কোনো দোকানেও তারা এটি পাচ্ছেন না।

নগরীর সিডি ও ক্যাসেট মার্কেট বলে পরিচিত শঙ্খ মার্কেটের নিউ সিডি প্যালেসে ০৪ জুলাই সোমবার বেলা ১১ টায় আবিদের অ্যালবাম কিনতে এসেছিলেন জুয়েল। তিনি বাংলানিউজকে  বললেন,  আবিদ খুব ভাল গান গাইতেন। উপস্থাপনা করতেন। তার অকাল মৃত্যুর পর সবাই বলছে, আবিদ আসলেই বড় মাপের শিল্পী ছিলেন। তাই তার গান ভালো করে শোনার জন্য এসেছিলাম তার গাওয়া গানের সিডি কিনতে।

খুলনা মহানগরীর হাদিস পার্কের প্রধান ফটকের সামনে রাহুল ইলেক্ট্রনিক্সের দোকান সেখানে দেশী-বিদেশী শিল্পীদের অনেক গান, নাটক টেলিফিল্ম’র সিডি ও ক্যাসেট রয়েছে। সেখানে এসেছিলেন অনার্স পড়–য়া তরুণী ফাতেমা-তুজ জোহরা হিরা। তিনি হতাশ কন্ঠে বাংলানিউজকে  বললেন, খুলনার বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আবিদের গান শুনেছি। ভাল লাগতো। আবিদ যে সবার কাছে এতো প্রিয় একজন মানুষ ছিলেন, তা অকাল প্রয়ানে জানতে পারলাম। আবিদের রবীন্দ্রসঙ্গীতের অ্যালবাম ‘এতো ভালোবাসি’ আর আধুনিক গানের অ্যালবাম ‘ভালবাসারই প্রহর’ কিনতে এসেছিলাম। কোনোটিই খুঁজে পেলাম না।


পাইওনিয়ার কলেজের ছাত্রী শিরিন আক্তার শান্তমনি হতাশ কন্ঠে বাংলানিউজকে  বললেন, আমরা প্রায় সকলেই কেউ মারা যাওয়ার পর তাঁর প্রতিভার মূল্যায়ন করি। আবিদ শাহরিয়ার খুলনার সাংস্কৃতিক অঙ্গনের গর্ব। সারাদেশে সঙ্গীতাঙ্গনে তিনি ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছেন। অথচ খুলনার সিডি’র দোকানগুলোতে আবিদের গাওয়া গানের কোন সিডি নেই এটি দুঃখজনক।

নিউ সিটি প্যালেসের স্বত্ত্বাধিকারী মোঃ মনির হোসেন মিলন বাংলানিউজকে  বললেন, এর আগে আবিদের অ্যালবাম তেমন কেউ কিনতে আসত না। তাই অতিরিক্ত রাখা হয়নি। এখন ক্রেতাদের চাহিদার কারণে আনব বলে মনে করছি।

আবিদ শাহরিয়ারের দু’টি অ্যালবাম প্রকাশ করেছে গাঙচিল। ওই প্রতিষ্ঠানটির খুলনার ডিস্ট্রিবিউটর সোনার বাংলা সিডি সেন্টার। এর মালিক মোঃ সালেক বললেন, বছর খানেক আগেই আবিদের অ্যালবাম ফুরিয়ে গেছে। তাছাড়া বিভিন্ন কম্পিউটারের দোকানে ব্যাপকভাবে পাইরেসি হয়েছে। এ কারণে অ্যালবাম ফুরিয়ে যাওয়ার পরে আর আনা হয়নি। ্য আবিদ শাহরিয়া’র অকাল মৃত্যুর পর ভক্তারা তার অ্যালবাম কিনতে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। তাই গাঙচিল’র সাথে যোগাযোগ করেছি। আশা করছি, শিগগিরই আবিদের অ্যালবাম সরবরাহ করতে পারবো।

প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান গাঙচিলের কর্মকর্তা আরিফ মঈন উদ্দিন সেলফোনে বাংলানিউজকে  জানান, আবিদ শাহরিয়ারের অ্যালবাম বাজারে রয়েছে। কোথাও যদি সংকট থাকে তবে আমাদের কাছে চাহিদা পত্র পাঠালে যথাসময়ে সরবরাহ করা হবে।
উল্লেখ্য, ক্লোজ আপ ওয়ান তারকা খুলনার সন্তান আবিদ শাহরিয়ার গত শুক্রবার সন্ধ্যায় কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে দুই সহকর্মীর সঙ্গে প্রবল স্রোতে ভেসে গিয়ে অকালে প্রাণ হারান।

বাংলাদেশ সময় ১৭৪৫, আগষ্ট ২০১১

ওসির গাড়িতে গর্ভবতী নারীকে নেওয়া হলো হাসপাতালে
রামগতিতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় সাংবাদিক নিহত
করোনায় সিরিয়ায় প্রথম মৃত্যু
স্বল্প পরিসরে চেক ক্লিয়ারিং করার নির্দেশ
করোনায় ইতালিতে আরও ৭৫৬ জনের মৃত্যু


করোনাভাইরাস মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর বার্তা
প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে ১ দিনের বেতন দিলেন সেনা সদস্যরা
মাঠে নেমে সহায়তা করছেন বলিউড তারকারা
ল্যাব না থাকলেও সিংড়ায় গেল দুই'শ করোনা টেস্টিং কিট
মানুষকে টেলিফোনে চিকিৎসাসেবা দিতে ফারাজের উদ্যোগ