php glass

কেসিসি নির্বাচনে জমজমাট ডিজিটাল প্রচারণা

মাহবুবুর রহমান মুন্না, ব্যুরো এডিটর | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কেসিসি নির্বাচনে ডিজিটাল প্রচারণা। ছবি ফেসবুক থেকে নেওয়া

walton

খুলনা: প্রযুক্তির সার্বজনীন ব্যবহার বাড়ার কারণে নির্বাচনী প্রচারেও ডিজিটাল পদ্ধতি ব্যবহার করা হচ্ছে। এ থেকে পিছিয়ে নেই খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনের মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। তরুণরা বর্তমানে ডিজিটাল মাধ্যমে বেশি যুক্ত থাকায় তাদের আকৃষ্ট করতে ডিজিটাল মাধ্যমকে ব্যবহার করছেন প্রার্থীরা।

৫ মেয়র প্রার্থীর মধ্যে বিশেষ করে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জুর সমর্থকরা ফেসবুকে ফ্যানপেজ খুলে সেখানে প্রার্থীদের নাম, প্রতীক এবং ব্যক্তির ভালো দিকগুলো তুলে ধরছেন। গণসংযোগের বিভিন্ন ছবি দিয়ে করছেন ভোট প্রার্থনা।

পাশাপাশি মাইকিং ও জনসংযোগ এর মতো নির্বাচনী প্রচারণার সনাতন পদ্ধতির সঙ্গে ডিজিটাল প্রচারণাও খুলনায় বেশ জমজমাট হয়ে ওঠেছে।

ডিজিটাল প্রচারণার কাজে নিয়োজিত প্রার্থীর সমর্থকরা বলছেন, নির্বাচনী সভার চেয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের একটি স্ট্যাটাসের বার্তা বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছায়। তাই স্যোশাল মিডিয়ার নানা প্ল্যাটফর্মে নির্বাচনী প্রচারণা চালালে বেশি ফলপ্রসু হচ্ছে।

আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইতোমধ্যে তার প্রচারণার জন্য উদ্বোধন করেছেন ‘ভোট ফর খালেক’ নামে ওয়েব সাইট। বিএনপির তৈরি করেছেন ‘বিএনপি খুলনা.কম’ নামের ওয়েব সাইট।

যার অংশ হিসেবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক ‘ভোট ফর খালেক’ নামে ওয়েব সাইটের উদ্বোধন করেছেন। ওয়েব সাইট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভোটারদের সঙ্গে সরাসরি সংযোগের লক্ষ্যে এ আয়োজন বলছে আওয়ামী লীগ।

খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও আব্দুল খালেকের ডিজিটাল নির্বাচনী প্রচারণা সেলের সদস্য সফিকুর রহমান পলাশ বাংলানিউজকে বলেন, নির্বাচনী প্রচারে সবচেয়ে শক্তিশালী রাজনৈতিক হাতিয়ার এখন স্যোশাল মিডিয়া। বিশেষ করে ফেসবুকের মাধ্যমে ভোটারদের কাছে দ্রুত বার্তা পৌঁছানো যায়।

তিনি জানান, http://voteforkhaleque.tk/ ওয়েব সাইড ছাড়াও ফেসবুকে পেইজ রয়েছে ‘খালেক ভাই কে মেয়র চাই’ নামে। এছাড়া টুইটার খোলা হয়েছে ‘KCC Mayor-2018’ নামে।

পাশাপাশি খোলা হয়েছে ইউটিউব চ্যানেলও https://www.youtube.com/channel/UCjKwVttGW-z3bIJ7GN6RNog/featured। আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা মিডিয়া উপ কমিটির অফিস সেক্রেটারি ও খুলনা জেলা যুবলীগের দফতর সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিয়াজ বাংলানিউজকে জানান, নৌকা প্রতীকের গণসংযোগের ছবি-নিউজ মুহূর্তের মধ্যে ইমেইলের মাধ্যমে সংবাদিকদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।

নির্বাচন পরিচালনা মিডিয়া উপ-কমিটির সদস্য ছাত্রলীগ নেতা জয়নাল ফরাজী বাংলানিউজকে বলেন, সামাজিক মাধ্যমে সাবেক মেয়র খালেকের সময়ের এবং আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নমূলক নানা তথ্য তুলে ধরা হচ্ছে।

এদিকে, বিএনপির নির্বাচন পরিচালনা মিডিয়া উপ কমিটির সদস্য সচিব ও মহানগর বিএনপির তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এহতেশামুল হক শাওন বাংলানিউজকে বলেন, খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত ২০ দল সর্মথিত, ধানের শীষের প্রার্থী খুলনা মহানগর বিএনপির সভাপতি, সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জুর নির্বাচনী বিষয়ে নিয়ে দেশে, বিদেশে যে কোনো স্থান থেকে আলোচনা, উপদেশ, পরামর্শ সংক্রান্ত যে কোনো ধরনের যোগাযোগ করার জন্য স্যোশাল মিডিয়ার বিভিন্ন প্লাটফর্ম খোলা হয়েছে।

তিনি জানান, মেয়র প্রার্থী কখন কোথায় গণসংযোগ করছেন সঙ্গে সঙ্গে তার সংবাদ ও নিউজ সাংবাদিকদের কাছে ইমেইলের মাধ্যমে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। ফেসবুকের মাধ্যমে গণসংযোগটি লাইভ প্রচার করা হচ্ছে।

ধানের শীষের নির্বাচনী প্রচার উপ-কমিটির সদস্য সচিব ও সেচ্ছাসেবক দলের খুলনা মহানগর আহ্বায়ক আজিজুল হাসান দুলু বাংলানিউজকে বলেন, নজরুল ইসলাম মঞ্জুর সমর্থনে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মিডিয়ার নানা প্ল্যাটফর্মে পেইজ তৈরি করা হয়েছে।

এগুলো হচ্ছে- https://www.bnpkhulna.com/ WhatsApp/ Viber/imo/Twitter/ YouTube.
# Facebook Group (কেসিসি নির্বাচন খুলনা বিএনপি) 

#https://www.facebook.com/groups/184416118946885/?ref=group_browse_new

# Facebook Pages (কেসিসি নির্বাচন খুলনা বিএনপি)

#https://www.facebook.com/kccelectionbnp2018/

# Facebook Account (কেসিসি নির্বাচন খুলনা বিএনপি)

#https://www.facebook.com/profile.php?id=100022107035020

# E-mail: [email protected]

# আপনার স্মার্টফোনে KCC ELECTION ২০১৮ অ্যাপটি ডাউনলোড করে নির্বাচনী ইশতেহারসহ সব ধরনের তথ্য জানতে পারবেন এবং

# QR Code এর মাধ্যমে প্রতিদিন সংবাদপত্রে জানতে পারবেন নির্বাচন সংক্রান্ত সর্বশেষ সংবাদ।

# আপনি চাইলে আপনার প্রোফাইলের ছবিটি ধানের শীষের ফ্রেমেও আনতে পারবেন।

নির্বাচন পরিচালনা মিডিয়া উপ কমিটির সদস্য যুবদল নেতা জিএম রাসেল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, নির্বাচনী প্রচারণা চালানো হচ্ছে ফেসবুকসহ সামাজিক মাধ্যমে। প্রার্থীদের ফেসবুকের জনপ্রিয় নানা পোস্ট তুলে ধরা হচ্ছে। সেগুলো অনেক 'শেয়ার' ও 'লাইক' পাচ্ছে। এতে বিভিন্ন তথ্য পৌঁছে যাচ্ছে ভোটারের কাছে।

আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রির্টানিং অফিসার মো. ইউনুচ আলী বাংলানিউজকে বলেন, ডিজিটাল প্রচারণার অনুমতি আছে নির্বাচন আইনে। তারপরও সচেতনভাবে প্রচারণা চালানোর আহ্বান জানান তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১১৫৯ ঘণ্টা,  মে ০২ , ২০১৮
এমআরএম/আরআইএস/

ksrm
নিখোঁজের দিনই মেরে ফেলা হয় স্কুলছাত্র আশরাফুলকে 
জনসাধারণকে সচেতন করতে গিয়ে ৫ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
রাজবাড়ীতে রবীন্দ্রনাথের ভানুসিংহের পদাবলী মঞ্চস্থ
মিলান ডার্বিতে জিতলো ইন্টার মিলান
রোনালদোর নৈপুণ্যে জিতলো জুভেন্টাস


আবৃত্তিও এক ভাষা আন্দোলন: মুনমুন মুখার্জী
গ্রানাদার কাছে বার্সার পরাজয়
ঘুরে দাঁড়াতে চায় ‘নড়বড়ে’ সিলেট বিএনপি
সিলেট চেম্বার নির্বাচনে দুই প্যানেলেই জয় জয়কার
জাতীয় নারী দাবায় তৃতীয় রাউন্ড শেষে শীর্ষে ৬ জন