যুগ্মসচিব পদে দায়িত্ব পেলেন ইসির ৮ কর্মকর্তা!

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

নির্বাচন অফিস

walton

ঢাকা: পদোন্নতি না দিয়ে যুগ্মসচিবের পদে এবার চলতি দায়িত্বে নিজস্ব আট কর্মকর্তাকে পদায়ন করলো নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এর আগে অন্তত তিন বছর ধরে এই পদগুলো ফাঁকা ছিলো। এমনকি নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার মতো গুরুত্বপূ্র্ণ শাখাও চলতো যুগ্ম সচিব ছাড়াই।
 

php glass

ইসি কর্মকর্তারা বলছেন, চাকরি বিধি অনুযায়ী ইসির নিজস্ব কর্মকর্তাদের যুগ্ম সচিব পদে পদোন্নতি দিতে কোনো সমস্যা না থাকলেও এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংস্থাটি। সম্প্রতি প্রশাসন ক্যাডার থেকে এক যুগ্ম সচিবকে নির্বাচন কমিশনে প্রেষণে নিয়ে এসেছিলো নির্বাচন আয়োজনকারী সংস্থাটি।তবে ইসি কর্মকর্তাদের আন্দোলনের মুখে তিনি আর যোগদান করতে পারেননি।
 
এই অবস্থায় ইসির নিজস্ব কর্মকর্তাদের মধ্য থেকেই যুগ্ম সচিব পদে পদোন্নতি দেওয়ার দাবি তোলা হয়। অবশেষে সংস্থাটি তার কর্মকর্তাদের মধ্য থেকেই এ পদে আট কর্মকর্তাকে চলতি দায়িত্বে পদায়ন করলো রোববার (২২ অক্টোবর) রাতে। যদিও পদায়নের সেই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে- ‘এই আদেশের কারণে তারা জ্যেষ্ঠতা দাবি করতে পারবেন না এবং সরকারি প্রয়োজনে যে কোনো সময় এ আদেশ বাতিল করা যাবে।’
 
যুগ্ম সচিব পদে পদায়ন পাওয়া কর্মকর্তারা হলেন- নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক (চলতি দায়িত্ব) ইসি সচিবালয়ের উপসচিব খোন্দকার মিজানুর রহমান, কুমিল্লার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার (চলতি দায়িত্ব) উপসচিব এস এম এজহারুল হক, উপসচিব সৈয়দ মো. খুরশিদ আনোয়ার, উপসচিব মো. আবুল কাশেম, খুলনার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা (চলতি দায়িত্ব) ইসি সচিবালয়ের উপসচিব মোস্তফা ফারুক, ইসি সচিবালয়ের উপসচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান, নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের পরিচালক মো. আবদুল বাতেন ও ইসির জনসংযোগ পরিচালক এসএম আসাদুজ্জামান।
 
আটজনের মধ্যে তিনজনকে অর্থাৎ সৈয়দ মো. খুরশিদ আনোয়ারকে নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক পদে এবং খোন্দকার মিজানুর রহমানকে নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখা-২ এর যুগ্ম সচিব এবং মো. আবুল কাশেমকে নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখা-১ এর যুগ্মসচিব পদে পদায়ন করে যুগ্ম সচিবের চলতি দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আর পাঁচজনকে স্বপদে বহাল রেখেই যুগ্মসচিবের চলতি দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
 
এর আগে নির্বাচন কমিশন তার কর্মকর্তাদের মধ্যে থেকে চার দফায় মাত্র চারজনকে যুগ্ম সচিব করেছিলো। তারা হলেন- স ম জাকারিয়া, মোহাম্মদ জাকারিয়া, বিশ্বাস লুৎফর রহমান ও জেসমিন টুলী। তবে ঢাকা আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা হিসেবে অবসর গ্রহণ করা মিহির সারওয়ার মোর্শেদকে যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও যুগ্ম সচিব করেনি কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের কমিশন। অথচ সেই সময়ও যুগ্ম সচিবের পদ ফাঁকা ছিল। একই যোগ্যতা নিয়ে জেসমিন টুলী উপসচিব থেকে পদোন্নতি পেয়ে যুগ্ম সচিব এরপর অতিরিক্ত সচিব হিসেবে অবসরে যান। আর মিহির সারওয়ার মোর্শেদকে উপ-সচিবের পর আর পদোন্নতি দেয়নি তৎকালীন নির্বাচন কমিশন। সৎ এবং দক্ষ কর্মকর্তা হিসেবে যার অতুলনীয় খ্যাতি ছিল খোদ ইসি কর্মকর্তাদের মধ্যেই।

**ইসিতে পদোন্নতি সংকট, চলতি দায়িত্ব দিয়ে চলছে কাজ

বাংলাদেশ সময়: ২০৩২ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৩, ২০১৭
ইইউডি/বিএস 
 

দিনাজপুরে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেলের ২ আরোহী নিহত
বিজেপির আসন ৩০০ ছাড়াবে, আগেই জানতেন মোদী!
দায়িত্বশীল কারো কানে পৌঁছায়নি খুদ বানুর আর্তনাদ!
নবাবগঞ্জের ভাঙা মসজিদ নিয়ে নানা আলেখ্য
ছোটপর্দায় আজকের খেলা


ঈদযাত্রায় ভোগান্তি কমবে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে
বিআইডব্লিউটিসির ঈদ বহরে নেই ৯০ বছর পুরনো পিএস অস্ট্রিচ
বিশ্বকাপে কোহলিরা খেলতে পারেন কমলা জার্সিতে!
বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে মানিকগঞ্জের কাঁচা মরিচ
সাংবাদিকদের ওপর হামলার নিন্দা আগরতলা প্রেসক্লাবের